সংসদ নির্বাচন

তফসিল ঘোষণার আগেই ইসি পুনর্গঠন চান মওদুদ

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৬ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করা সম্ভব নয়। সেজন্য জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে। একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কমিশন আনতে হবে, যারা দলীয় পক্ষপাতদুষ্ট না হয়ে নিরপেক্ষভাবে একটি সুষ্ঠু অবাধ নির্বাচন করতে পারবে।

শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা নিশ্চিত করা এবং রমজানের আগে নিঃশর্ত মুক্তি দাবিতে সভার আয়োজন করে নাগরিক অধিকার আন্দোলন। সংগঠনটির উপদেষ্টা হাজী মোহাম্মদ মাসুকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালনায় সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, সাবিহা নাজমুল, ফরিদ উদ্দিন, মোশাররফ হোসেন প্রমুখ।

২৫টি সংসদীয় আসনের সীমানা পুনর্নির্ধারণে নির্বাচন কমিশনের প্রকাশিত চূড়ান্ত সংশোধনী প্রত্যাখ্যান করেন মওদুদ আহমদ। তিনি বলেন, বিএনপির অনেক নেতার এলাকা এমনভাবে সাজানো হয়েছে যাতে করে নির্বাচনে যেতে চাইলেও যেতে না পারি। নির্বাচনে সরকার সমর্থিত প্রার্থীদের সুবিধা সৃষ্টি করার জন্য এ নির্বাচনী আসনের সীমানা পুনর্নির্ধারণ করার ব্যবস্থা করেছে- সেটাই প্রমাণ করে। বিএনপির প্রায় সব নেতার নির্বাচনী সীমানা নির্ধারণে নির্বাচন কমিশন চরম পক্ষপাতিত্বের পরিচয় দিয়েছে।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের গৃহীত সীমানা পুনর্নির্ধারণের এ নতুন সিদ্ধান্তটি দেশের প্রচলিত আইনের পরিপন্থী। জনস্বার্থবিরোধী এবং ক্ষমতার চরম অপব্যবহার বলে আমরা মনে করি।

নিজের নির্বাচনী আসন নোয়াখালী-৫’র সীমানা পুনর্নির্ধারণের আপত্তি জানিয়ে তিনি বলেন, এলাকার হাজার হাজার মানুষ গণস্বাক্ষর নিয়ে এর প্রতিবাদ জানিয়েছে। নির্বাচন কমিশনের উচিত হবে বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করে ১৯৭৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত থাকা অশ্বদিয়া ও নেওয়াজপুর ইউনিয়নসহ নোয়াখালী-৫ নির্বাচনী এলাকা অক্ষুণœ রাখার জন্য অবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণ করা। আর যদি তা না করা হয়, তাহলে এর দায়দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনকেই নিতে হবে। মওদুদ আহমদ বলেন, ধীরে ধীরে সুকৌশলে বিরোধী দলের নেতারা যাতে অসুবিধায় থাকে, তার ব্যবস্থা করছে সরকার। মামলা-মোকদ্দমা তো রয়েছেই। ১১ লাখ কর্মী আসামি।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। উদ্দেশ্য- বিএনপি যাতে নির্বাচনই করতে না পারে। তিনি বলেন, ডিসেম্বরে যে নির্বাচন হবে, সেটি সুষ্ঠু, অবাধ নির্বাচন হবে। নির্বাচন নিয়ে সরকারের ষড়যন্ত্র সফল হতে দেয়া হবে না। তার আগে ষড়যন্ত্র ধ্বংস করে দেয়া হবে দেশের মানুষের গণজোয়ারের মাধ্যমে।গাজীপুর ও খুলনা সিটি নির্বাচন প্রসঙ্গে মওদুদ বলেন, দুই সিটিতে সরকার সমর্থিত প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা অব্যাহতভাবে নির্বাচন আচরণবিধি লঙ্ঘন করে চলছে। কারও বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করার একটি দৃষ্টান্তও স্থাপন করতে পারেনি নির্বাচন কমিশন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter