মুড়ি খেতে মমতার নিষেধাজ্ঞার রহস্য জানালেন বাবুল
jugantor
কলকাতার কথকতা
মুড়ি খেতে মমতার নিষেধাজ্ঞার রহস্য জানালেন বাবুল

  কৃষ্ণকুমার দাস, কলকাতা  

২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অনেকদিন আগে কলকাতার ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের সামনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির দেওয়া ঝালমুড়ি খেয়েছিলেন তৎকালীন মোদি মন্ত্রিসভার সদস্য বাবুল সুপ্রিয়। সেই ঝালমুড়ি খাওয়া নিয়ে প্রতিমন্ত্রী বাবুলকে যেমন ঘরে-বাইরে বিস্তর টিপ্পনী সহ্য করতে হয়েছিল, তেমনই কটাক্ষের শিকার হয়েছিলেন মমতাও। তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার পর সেই বাবুল সুপ্রিয়কে মুড়ি খেতে নিষেধ করেছেন মমতা। কিন্তু কেন? সোমবার নবান্নে দুইজনের প্রথমবার দেখা হওয়ার পর বাবুল সেই রহস্য ফাঁস করেছেন।

বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার তিন দিনের মাথায় ভারি বৃষ্টির মধ্যে বাবুল সুপ্রিয় নিজেই গাড়ি চালিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর সচিবালয় নবান্নে যান। পাশে বসেছিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় মুখপাত্র ও রাজ্যসভার নেতা ডেরেক ওব্রায়েন। মুখ্যমন্ত্রীর ঘরে চারজনের আধঘণ্টা কথাবার্তা হয়। মমতা-বাবুল সাক্ষাতে স্বাভাবিকভাবেই ঝালমুড়ি প্রসঙ্গ উঠে আসে। বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করতেই সাবেক কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল বলেন, এখন ইউরিয়া মেশানো মুড়ি খেয়ে সবাই মোটা হয়ে যাচ্ছে। তাই দিদি এ ধরনের মুড়ি খেতে বারণ করেছেন। উনিও (মমতা) এখন মুড়ি খাচ্ছেন না। মুড়ি খেতে চাইলে আমাকে গ্রামীণ খাঁটি মুড়ি খুঁজে বের করতে হবে।

নবান্ন থেকে বেরিয়ে সদ্য তৃণমূলে যোগ দেওয়া বাবুল সুপ্রিয় বলেন, আমি আজ খুশি। দিদির ভালোবাসা ও উষ্ণ অভ্যর্থনায় আমি আপ্লুত। এখন মন খুলে কাজ করতে পারব। রাজনীতির পাশাপাশি গান নিয়েও মমতার সঙ্গে তার কথা হয়েছে। নবান্নে বৈঠকের পর তৃণমূল শিবিরে তার দায়িত্ব ও কার্যক্রম নিয়ে বাবুল সুপ্রিয় জানান, মুখ্যমন্ত্রী (মমতা) ঠিক করে দেবেন। তিনি আরও বলেন, ‘দিদি, অভিষেক যা দায়িত্ব দেবেন তা পালন করব। বলিউডের প্রখ্যাত গায়ক বাবুল বলেন, দিদি বলেছেন মন খুলে কাজ করতে। সঙ্গে মন খুলে গান করতেও বলেছেন। তাই এখন মন খুলে গান গাইতে পারব। দিদি যে গান গাইতে বলবেন, সেই গান গাইব।

সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় বলেন, আগেও নানা কর্মসূচিতে একাধিকবার দিদির (মমতা) সঙ্গে আমার দেখা হয়েছে। ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একটা কর্মসূচিতে পাশেই বসেছিলাম। তখন তিনি (মমতা) গানের নানা বিষয় জানতে চেয়েছিলেন। আজও গান নিয়ে কথা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, তৃণমূল কংগ্রেসে নতুন এলেও দিদি, অভিষেক জোড়াফুল পরিবারে আমাকে আপন করে নিয়েছেন।

বুধবার স্পিকারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বাবুল সুপ্রিয় আসানসোলের সংসদ সদস্য থেকে ইস্তফা দেবেন। বিজেপির টিকিটে তিনি সংসদ সদস্য হয়েছিলেন। এর আগে ৩ আগস্ট কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়ে তার সিআরপিএফ ও কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা প্রত্যাহার করে নিতে অনুরোধ করেছিলেন বলে তিনি দাবি করেন।

কলকাতার কথকতা

মুড়ি খেতে মমতার নিষেধাজ্ঞার রহস্য জানালেন বাবুল

 কৃষ্ণকুমার দাস, কলকাতা 
২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অনেকদিন আগে কলকাতার ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের সামনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির দেওয়া ঝালমুড়ি খেয়েছিলেন তৎকালীন মোদি মন্ত্রিসভার সদস্য বাবুল সুপ্রিয়। সেই ঝালমুড়ি খাওয়া নিয়ে প্রতিমন্ত্রী বাবুলকে যেমন ঘরে-বাইরে বিস্তর টিপ্পনী সহ্য করতে হয়েছিল, তেমনই কটাক্ষের শিকার হয়েছিলেন মমতাও। তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার পর সেই বাবুল সুপ্রিয়কে মুড়ি খেতে নিষেধ করেছেন মমতা। কিন্তু কেন? সোমবার নবান্নে দুইজনের প্রথমবার দেখা হওয়ার পর বাবুল সেই রহস্য ফাঁস করেছেন।

বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার তিন দিনের মাথায় ভারি বৃষ্টির মধ্যে বাবুল সুপ্রিয় নিজেই গাড়ি চালিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর সচিবালয় নবান্নে যান। পাশে বসেছিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় মুখপাত্র ও রাজ্যসভার নেতা ডেরেক ওব্রায়েন। মুখ্যমন্ত্রীর ঘরে চারজনের আধঘণ্টা কথাবার্তা হয়। মমতা-বাবুল সাক্ষাতে স্বাভাবিকভাবেই ঝালমুড়ি প্রসঙ্গ উঠে আসে। বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করতেই সাবেক কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল বলেন, এখন ইউরিয়া মেশানো মুড়ি খেয়ে সবাই মোটা হয়ে যাচ্ছে। তাই দিদি এ ধরনের মুড়ি খেতে বারণ করেছেন। উনিও (মমতা) এখন মুড়ি খাচ্ছেন না। মুড়ি খেতে চাইলে আমাকে গ্রামীণ খাঁটি মুড়ি খুঁজে বের করতে হবে।

নবান্ন থেকে বেরিয়ে সদ্য তৃণমূলে যোগ দেওয়া বাবুল সুপ্রিয় বলেন, আমি আজ খুশি। দিদির ভালোবাসা ও উষ্ণ অভ্যর্থনায় আমি আপ্লুত। এখন মন খুলে কাজ করতে পারব। রাজনীতির পাশাপাশি গান নিয়েও মমতার সঙ্গে তার কথা হয়েছে। নবান্নে বৈঠকের পর তৃণমূল শিবিরে তার দায়িত্ব ও কার্যক্রম নিয়ে বাবুল সুপ্রিয় জানান, মুখ্যমন্ত্রী (মমতা) ঠিক করে দেবেন। তিনি আরও বলেন, ‘দিদি, অভিষেক যা দায়িত্ব দেবেন তা পালন করব। বলিউডের প্রখ্যাত গায়ক বাবুল বলেন, দিদি বলেছেন মন খুলে কাজ করতে। সঙ্গে মন খুলে গান করতেও বলেছেন। তাই এখন মন খুলে গান গাইতে পারব। দিদি যে গান গাইতে বলবেন, সেই গান গাইব।

সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় বলেন, আগেও নানা কর্মসূচিতে একাধিকবার দিদির (মমতা) সঙ্গে আমার দেখা হয়েছে। ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একটা কর্মসূচিতে পাশেই বসেছিলাম। তখন তিনি (মমতা) গানের নানা বিষয় জানতে চেয়েছিলেন। আজও গান নিয়ে কথা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, তৃণমূল কংগ্রেসে নতুন এলেও দিদি, অভিষেক জোড়াফুল পরিবারে আমাকে আপন করে নিয়েছেন।

বুধবার স্পিকারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বাবুল সুপ্রিয় আসানসোলের সংসদ সদস্য থেকে ইস্তফা দেবেন। বিজেপির টিকিটে তিনি সংসদ সদস্য হয়েছিলেন। এর আগে ৩ আগস্ট কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়ে তার সিআরপিএফ ও কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা প্রত্যাহার করে নিতে অনুরোধ করেছিলেন বলে তিনি দাবি করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন