সাত কারণে বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান বাংলাদেশ
jugantor
সুইজারল্যান্ডের ব্যবসায়ীদের প্রতি নীতিনির্ধারকরা
সাত কারণে বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান বাংলাদেশ
পণ্য উৎপাদন করে চীন ভারতে রপ্তানি করা যায়

  মনির হোসেন, জুরিখ (সুইজারল্যান্ড) থেকে  

২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সাত কারণে বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান বাংলাদেশ। এর মধ্যে রয়েছে আর্থ-সামাজিক অবস্থা, সামষ্টিক অর্থনীতির স্থিতিশীলতা, অবকাঠামো ও দেশীয় বাজার, উচ্চ রিটার্ন, মানবসম্পদ এবং বিদেশে রপ্তানির সুযোগ। সুইজারল্যান্ডের জুরিখে বাংলাদেশের অর্থনীতি বিষয়ক রোড শোতে দেশটির ব্যবসায়ীদর উদ্দেশে বাংলাদেশ অর্থনীতির নীতিনির্ধারকরা এ কথা বলেন।

৩ দিনব্যাপী রোড শোর প্রথম দিন ছিল সোমবার। জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। দেশটিতে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের সন্তানরা জাতীয় সংগীত পরিবেশন করে। স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় জুরিখের ডোলডার গ্রান্ড হোটেলে ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। বাংলাদেশের অর্থনীতির সক্ষমতা, বিনিয়োগ, বাণিজ্য, বাংলাদেশি পণ্য ও সেবা, শেয়ারবাজার এবং বন্ড মার্কেটকে তুলে ধরতেই এ আয়োজন করেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড কমিশন। অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তির বিবেচনায় ইউরোপের অন্যতম প্রভাবশালী এই দেশটিতে বাংলাদেশকে তুলে ধরে বিদেশি ও অনিবাসী বাংলাদেশিদের বিনিয়োগ আকর্ষণ এই আয়োজনের মূল লক্ষ্য। বিশেষ করে প্রবাসীরা যাতে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেন; সে বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘রেইজ অব বেঙ্গল টাইগার’। অনুষ্ঠানে সুইজারল্যান্ডের ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন ৬৫ জন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। তারা হলেন- সুইজারল্যান্ডের মার্কুজ স্কিলটার, সিলভান স্টিটলার, এলেক্জান্ডার ক্লিংকম্যান, বাংলাদেশের অর্থ মন্ত্রণালয়ের ফাইন্যান্স ডিভিশনের সিনিয়র সচিব আবদুর রউফ তালুকদার, বিএসইসির চেয়ারম্যান প্রফেসর শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম, তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এনএম জিয়াউল আলম, বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেপজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল নজরুল ইসলাম, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য আলমগীর হোসেন এবং বিএসইসির কমিশনার শেখ শামসুদ্দীন আহমেদ।

অনুষ্ঠানে ভূমিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সামষ্টিক অর্থনীতি ও ব্যষ্টিক অর্থনীতির মধ্যে ভারসাম্য রয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ, প্রবাসী আয়, জিডিপি প্রবৃদ্ধি প্রতিযোগী দেশগুলোর তুলনায় অত্যন্ত উচ্চ। এছাড়া বাংলাদেশ একটি জনবহুল দেশ। এখানে শ্রমশক্তি বিশাল। এই শ্রমশক্তিকে কাজে লাগাতে আমরা গবেষণায় জোর দিয়েছি।

তিনি বলেন, আমাদের উৎপাদন বিস্ময়করভাবে বাড়ছে। ইতোমধ্যে আমরা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছি। চীন-ভারত থাইল্যান্ডের মতো দেশে আমাদের রপ্তানি বাড়ছে। সামগ্রিক বিবেচনায় বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য এখনই উপযুক্ত সময়। সুইজারল্যান্ডের ব্যবসায়ী এবং প্রবাসীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, বাংলাদেশে আসুন এবং বিনিয়োাগ করুন, আমরা প্রস্তুত।

প্রফেসর শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম বলেন, সুনির্দিষ্ট কিছু কারণে বিনিয়োগের জন্য উত্তম জায়গা বাংলাদেশ। এর মধ্যে অন্যতম হলো বাংলাদেশের মানবসম্পদ। প্রতিযোগী দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশের যথেষ্ট শ্রমশক্তি রয়েছে। এই শ্রমশক্তির দক্ষতা বাড়াতে কাজ করছে বাংলাদেশ সরকার। দ্বিতীয়ত আমাদের অর্থনৈতিক অবকাঠামো অত্যন্ত শক্তিশালী। যেসব পণ্য উৎপাদন করবেন বাংলাদেশে তার বড় একটি বাজার রয়েছে। এছাড়াও বাংলাদেশে পণ্য উৎপাদন করে চীন ও ভারতের মতো দেশে রপ্তানি করা যায়। বিনিয়োগ করে বিনিয়োগের মুনাফা নিয়ে ফেরা যায়। অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা রয়েছে।

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে উচ্চ রিটার্ন পাওয়া যায়। তথ্যপ্রযুক্তি, চামড়াজাত শিল্প, হালকা প্রকৌশল, পর্যটন, ব্যাংক ও আর্থিক, গার্মেন্ট, ইলেক্ট্রনিকস ও খাদ্য শিল্পে বিনিয়োগের জন্য অত্যন্ত সম্ভাবনাময় জায়গা বাংলাদেশ। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার রিপোর্টেও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতার বিষয়টি উঠে এসেছে। এসব বিবেচনায় বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান বাংলাদেশ।

আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, করোনার পরে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে চারটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়েছে সরকার। এগুলো হলো সরকারি ব্যয় বাড়ানো, ব্যবসায়ীদের সহজ শর্তে ঋণ, সামাজিক নিরাপত্তা বাড়ানো এবং বাজারের টাকার প্রবাহ বাড়ানো। ইতোমধ্যে সরকার ২৮টি স্টিমুলাস প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। এই প্যাকেজ বাস্তবায়নে ২২ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে। এই সবকিছুর মূল উদ্দেশ্য একটাই-অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা ধরে রাখা। ইতোমধ্যে তা সফলতার সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ২০০৫ সালে আমাদের দারিদ্রতার হার ছিল ৪০ শতাংশ, যা বর্তমানে চার শতাংশে নেমে এসেছে। অতিদরিদ্রের হার ২৫% থেকে ১০ শতাংশে নেমে এসেছে। মানুষের গড় আয়ু ৬৭ শতাংশ থেকে ৭২ দশমিক ৬ শতাংশ উন্নীত হয়েছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১ দশমিক ৪৯ শতাংশ থেকে ১.৩৭ শতাংশে নেমে এসেছে। শিশু মৃত্যুর হার ৫০% থেকে ২১ শতাংশে নেমে এসেছে। শিক্ষার হার, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক সূচকের উন্নতি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতার প্রমাণ। এসব বিবেচনায় আপনারা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকর্ন কুমার ঘোষ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মফিজ উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ কবির হোসেন, বিএসইসির সাবেক কমিশনার আরিফ খান, সুইজারল্যান্ড বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি মোহাম্মদ নকিব উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক সাদ ওমর ফাহিম, বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমান, মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম এবং বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছায়েদুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সুইজারল্যান্ডের ব্যবসায়ীদের প্রতি নীতিনির্ধারকরা

সাত কারণে বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান বাংলাদেশ

পণ্য উৎপাদন করে চীন ভারতে রপ্তানি করা যায়
 মনির হোসেন, জুরিখ (সুইজারল্যান্ড) থেকে 
২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সাত কারণে বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান বাংলাদেশ। এর মধ্যে রয়েছে আর্থ-সামাজিক অবস্থা, সামষ্টিক অর্থনীতির স্থিতিশীলতা, অবকাঠামো ও দেশীয় বাজার, উচ্চ রিটার্ন, মানবসম্পদ এবং বিদেশে রপ্তানির সুযোগ। সুইজারল্যান্ডের জুরিখে বাংলাদেশের অর্থনীতি বিষয়ক রোড শোতে দেশটির ব্যবসায়ীদর উদ্দেশে বাংলাদেশ অর্থনীতির নীতিনির্ধারকরা এ কথা বলেন।

৩ দিনব্যাপী রোড শোর প্রথম দিন ছিল সোমবার। জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। দেশটিতে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের সন্তানরা জাতীয় সংগীত পরিবেশন করে। স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় জুরিখের ডোলডার গ্রান্ড হোটেলে ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। বাংলাদেশের অর্থনীতির সক্ষমতা, বিনিয়োগ, বাণিজ্য, বাংলাদেশি পণ্য ও সেবা, শেয়ারবাজার এবং বন্ড মার্কেটকে তুলে ধরতেই এ আয়োজন করেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড কমিশন। অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তির বিবেচনায় ইউরোপের অন্যতম প্রভাবশালী এই দেশটিতে বাংলাদেশকে তুলে ধরে বিদেশি ও অনিবাসী বাংলাদেশিদের বিনিয়োগ আকর্ষণ এই আয়োজনের মূল লক্ষ্য। বিশেষ করে প্রবাসীরা যাতে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেন; সে বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘রেইজ অব বেঙ্গল টাইগার’। অনুষ্ঠানে সুইজারল্যান্ডের ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন ৬৫ জন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। তারা হলেন- সুইজারল্যান্ডের মার্কুজ স্কিলটার, সিলভান স্টিটলার, এলেক্জান্ডার ক্লিংকম্যান, বাংলাদেশের অর্থ মন্ত্রণালয়ের ফাইন্যান্স ডিভিশনের সিনিয়র সচিব আবদুর রউফ তালুকদার, বিএসইসির চেয়ারম্যান প্রফেসর শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম, তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এনএম জিয়াউল আলম, বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেপজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল নজরুল ইসলাম, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য আলমগীর হোসেন এবং বিএসইসির কমিশনার শেখ শামসুদ্দীন আহমেদ।

অনুষ্ঠানে ভূমিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সামষ্টিক অর্থনীতি ও ব্যষ্টিক অর্থনীতির মধ্যে ভারসাম্য রয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ, প্রবাসী আয়, জিডিপি প্রবৃদ্ধি প্রতিযোগী দেশগুলোর তুলনায় অত্যন্ত উচ্চ। এছাড়া বাংলাদেশ একটি জনবহুল দেশ। এখানে শ্রমশক্তি বিশাল। এই শ্রমশক্তিকে কাজে লাগাতে আমরা গবেষণায় জোর দিয়েছি।

তিনি বলেন, আমাদের উৎপাদন বিস্ময়করভাবে বাড়ছে। ইতোমধ্যে আমরা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছি। চীন-ভারত থাইল্যান্ডের মতো দেশে আমাদের রপ্তানি বাড়ছে। সামগ্রিক বিবেচনায় বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য এখনই উপযুক্ত সময়। সুইজারল্যান্ডের ব্যবসায়ী এবং প্রবাসীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, বাংলাদেশে আসুন এবং বিনিয়োাগ করুন, আমরা প্রস্তুত।

প্রফেসর শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম বলেন, সুনির্দিষ্ট কিছু কারণে বিনিয়োগের জন্য উত্তম জায়গা বাংলাদেশ। এর মধ্যে অন্যতম হলো বাংলাদেশের মানবসম্পদ। প্রতিযোগী দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশের যথেষ্ট শ্রমশক্তি রয়েছে। এই শ্রমশক্তির দক্ষতা বাড়াতে কাজ করছে বাংলাদেশ সরকার। দ্বিতীয়ত আমাদের অর্থনৈতিক অবকাঠামো অত্যন্ত শক্তিশালী। যেসব পণ্য উৎপাদন করবেন বাংলাদেশে তার বড় একটি বাজার রয়েছে। এছাড়াও বাংলাদেশে পণ্য উৎপাদন করে চীন ও ভারতের মতো দেশে রপ্তানি করা যায়। বিনিয়োগ করে বিনিয়োগের মুনাফা নিয়ে ফেরা যায়। অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা রয়েছে।

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে উচ্চ রিটার্ন পাওয়া যায়। তথ্যপ্রযুক্তি, চামড়াজাত শিল্প, হালকা প্রকৌশল, পর্যটন, ব্যাংক ও আর্থিক, গার্মেন্ট, ইলেক্ট্রনিকস ও খাদ্য শিল্পে বিনিয়োগের জন্য অত্যন্ত সম্ভাবনাময় জায়গা বাংলাদেশ। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার রিপোর্টেও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতার বিষয়টি উঠে এসেছে। এসব বিবেচনায় বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান বাংলাদেশ।

আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, করোনার পরে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে চারটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়েছে সরকার। এগুলো হলো সরকারি ব্যয় বাড়ানো, ব্যবসায়ীদের সহজ শর্তে ঋণ, সামাজিক নিরাপত্তা বাড়ানো এবং বাজারের টাকার প্রবাহ বাড়ানো। ইতোমধ্যে সরকার ২৮টি স্টিমুলাস প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। এই প্যাকেজ বাস্তবায়নে ২২ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে। এই সবকিছুর মূল উদ্দেশ্য একটাই-অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা ধরে রাখা। ইতোমধ্যে তা সফলতার সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ২০০৫ সালে আমাদের দারিদ্রতার হার ছিল ৪০ শতাংশ, যা বর্তমানে চার শতাংশে নেমে এসেছে। অতিদরিদ্রের হার ২৫% থেকে ১০ শতাংশে নেমে এসেছে। মানুষের গড় আয়ু ৬৭ শতাংশ থেকে ৭২ দশমিক ৬ শতাংশ উন্নীত হয়েছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১ দশমিক ৪৯ শতাংশ থেকে ১.৩৭ শতাংশে নেমে এসেছে। শিশু মৃত্যুর হার ৫০% থেকে ২১ শতাংশে নেমে এসেছে। শিক্ষার হার, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক সূচকের উন্নতি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতার প্রমাণ। এসব বিবেচনায় আপনারা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকর্ন কুমার ঘোষ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মফিজ উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ কবির হোসেন, বিএসইসির সাবেক কমিশনার আরিফ খান, সুইজারল্যান্ড বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি মোহাম্মদ নকিব উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক সাদ ওমর ফাহিম, বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমান, মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম এবং বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছায়েদুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন