কুষ্টিয়ায় গুলিতে যুবক নিহত
jugantor
আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্ব
কুষ্টিয়ায় গুলিতে যুবক নিহত

  কুষ্টিয়া প্রতিনিধি  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার দরবেশপুর গ্রামে এক যুবককে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে বৃহস্পতিবার রাত ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে। যুবকের নাম রাজু আহম্মেদ (৪২)। তিনি ওই গ্রামের মুনতাজ মন্ডলের ছেলে। খুলনার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন তিনি। শুক্রবার দুপুরে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, রাতে রাজু ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। আনুমানিক ১টার দিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আবু বক্কর গ্র“পের লোকজন বাড়ি ঘেরাও করে রাজুকে ঘর থেকে টেনেহিঁচড়ে বাইরে বের করে মাথায় গুলি করে পালিয়ে যায়। রাজু স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মামুন অর রশিদের সমর্থক ও আত্মীয়। এ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়ক অবরোধ করেন স্থানীয়রা। রাজুর লাশ সড়কে রেখে প্রতিবাদ সভা করেন তারা। সভা থেকে আসামিদের গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়।

বেলা ১১টার দিকে সরেজমিন দেখা যায়, গ্রামের মোড়ে মোড়ে পুলিশের পাহারা। এ ছাড়া বাড়িঘরগুলো জনমানব শূন্য। লুটপাট ও ধড়পাকড়ের ভয়ে গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে গেছেন পুরুষরা। কয়েকটি বাড়িতে শুধু নারীরা আছে।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, গ্রামের পশ্চিমপাড়ায় আবু বক্করের বাড়ি। পূর্বপাড়ায় মামুন অর রশিদের বাড়ি। এলাকায় প্রভাব বিস্তার নিয়ে আবু বক্কর ও মামুনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। মামুন জেলা পরিষদের কাউন্সিলর। দ্বন্দ্বের জেরেই মামুনের সমর্থক রাজু খুন হয়েছেন।

এ ব্যাপারে মামুন অর রশিদ বলেন, বক্কর আলামপুর ইউনিয়ন বিএনপির বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক। অথচ হঠাৎ করে সে এলাকায় নিজেকে আওয়ামী লীগ নেতা দাবি করে নানা অপরাধ করে চলেছেন। এতে এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। অভিযোগের বিষয়ে জানতে আবু বক্করের মোবাইল নম্বরে বারবার কল করে তা বন্ধ পাওয়া যায়। কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ছাব্বিরুল আলম জানান, কয়েক মাস ধরে ভাদালিয়া দরবেশপুর এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে স্থানীয় মামুন ও বক্কার গ্র“পের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। ধারণা করা হচ্ছে এ কারণেই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে। তিনি বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে। নতুন করে সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্ব

কুষ্টিয়ায় গুলিতে যুবক নিহত

 কুষ্টিয়া প্রতিনিধি 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার দরবেশপুর গ্রামে এক যুবককে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে বৃহস্পতিবার রাত ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে। যুবকের নাম রাজু আহম্মেদ (৪২)। তিনি ওই গ্রামের মুনতাজ মন্ডলের ছেলে। খুলনার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন তিনি। শুক্রবার দুপুরে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, রাতে রাজু ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। আনুমানিক ১টার দিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আবু বক্কর গ্র“পের লোকজন বাড়ি ঘেরাও করে রাজুকে ঘর থেকে টেনেহিঁচড়ে বাইরে বের করে মাথায় গুলি করে পালিয়ে যায়। রাজু স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মামুন অর রশিদের সমর্থক ও আত্মীয়। এ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়ক অবরোধ করেন স্থানীয়রা। রাজুর লাশ সড়কে রেখে প্রতিবাদ সভা করেন তারা। সভা থেকে আসামিদের গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়।

বেলা ১১টার দিকে সরেজমিন দেখা যায়, গ্রামের মোড়ে মোড়ে পুলিশের পাহারা। এ ছাড়া বাড়িঘরগুলো জনমানব শূন্য। লুটপাট ও ধড়পাকড়ের ভয়ে গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে গেছেন পুরুষরা। কয়েকটি বাড়িতে শুধু নারীরা আছে।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, গ্রামের পশ্চিমপাড়ায় আবু বক্করের বাড়ি। পূর্বপাড়ায় মামুন অর রশিদের বাড়ি। এলাকায় প্রভাব বিস্তার নিয়ে আবু বক্কর ও মামুনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। মামুন জেলা পরিষদের কাউন্সিলর। দ্বন্দ্বের জেরেই মামুনের সমর্থক রাজু খুন হয়েছেন।

এ ব্যাপারে মামুন অর রশিদ বলেন, বক্কর আলামপুর ইউনিয়ন বিএনপির বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক। অথচ হঠাৎ করে সে এলাকায় নিজেকে আওয়ামী লীগ নেতা দাবি করে নানা অপরাধ করে চলেছেন। এতে এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। অভিযোগের বিষয়ে জানতে আবু বক্করের মোবাইল নম্বরে বারবার কল করে তা বন্ধ পাওয়া যায়। কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ছাব্বিরুল আলম জানান, কয়েক মাস ধরে ভাদালিয়া দরবেশপুর এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে স্থানীয় মামুন ও বক্কার গ্র“পের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। ধারণা করা হচ্ছে এ কারণেই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে। তিনি বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে। নতুন করে সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন