আইনজীবী তালিকাভুক্তি পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল প্রকাশ
jugantor
আইনজীবী তালিকাভুক্তি পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল প্রকাশ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আইনজীবী তালিকাভুক্তির (এনরোলমেন্ট) মৌখিক পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলে ৫ হাজার ৯৭২ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন। বার কাউন্সিলের সচিব রফিকুল ইসলাম শনিবার বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর ফলে উত্তীর্ণরা সংশ্লিষ্ট আদালতে আইনজীবী হিসাবে প্র্যাকটিস করতে পারবেন। এর আগে ৩১ আগস্ট থেকে সুপ্রিমকোর্ট অডিটোরিয়াম ও সুপ্রিমকোর্ট জাজেস স্পোর্টস কমপ্লেক্সে ধাপে ধাপে এ মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ২৯ মে বার কাউন্সিলের আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। গত বছরের ১৯ ডিসেম্বর লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রায় ১৩ হাজার শিক্ষানবিশ আইনজীবী অংশ নেন। ফলাফলের তালিকা বার কাউন্সিলের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। ২০১০ সাল পর্যন্ত বছরে দুটি পরীক্ষা নিত বার কাউন্সিল। তবে ২০১১ সালের পর থেকে আইনজীবীদের অন্তর্ভুক্তির পরীক্ষা তিন ধাপে (নৈর্ব্যক্তিক, লিখিত ও মৌখিক) অনুষ্ঠানের বিধান করা হয়। তবে পিছিয়ে পড়ে বছরে দুটি করে পরীক্ষা নেওয়ার কার্যক্রম। ফলে ২০২১ সাল পর্যন্ত প্রায় ৭০ হাজার আইন শিক্ষার্থীর জট তৈরি হয়।

এদিকে পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে তিন বছর পর ২০২০ সালের ফেব্র“য়ারিতে নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর প্রকাশিত হয় ফলাফল। তবে একই বছরের মার্চে দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। তাতে থমকে যায় জনজীবন। তবে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা সামলে ওঠার পর নৈর্ব্যক্তিকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে আইনজীবী সনদের দাবি জানান। করোনা বিবেচনায় সেসব দাবি আমলে না নিয়ে একই বছরের ১৯ ডিসেম্বর ১২ হাজার ৮৭৮ জন শিক্ষার্থীর লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

করোনার মাঝেও পরীক্ষা এবং প্রশ্নপত্র কঠিন করার অভিযোগে রাজধানীর ৯টি কেন্দ্রের পাঁচটিতে বিশৃঙ্খলা, হল ভাঙচুর ও উত্তরপত্র ছিনিয়ে নিয়ে ছিড়ে ফেলার ঘটনা ঘটে। পরে বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন ক্ষতিগ্রস্ত কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করেন এবং এর সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দেন। এরপর ঘটনায় দায়ের হওয়া একাধিক মামলায় ৫০ জনের বেশি শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এদিকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হওয়া পাঁচটি কেন্দ্রের পরীক্ষা চলতি বছরের ২৭ ফেব্র“য়ারি পুনরায় অনুষ্ঠিত হয়। সম্প্রতি ১৯ ডিসেম্বরের পরীক্ষায় বিশৃঙ্খলার ঘটনায় জড়িত বা উসকানি দেওয়ার অভিযোগ তুলে কয়েকজন শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে বার কাউন্সিল সচিব রফিকুল ইসলাম। সেসব নোটিশের জবাবে বার কাউন্সিলের অভিযোগ সুনির্দিষ্ট নয় বলেও জবাব দিয়েছেন অনেকে।

আইনজীবী তালিকাভুক্তি পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল প্রকাশ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আইনজীবী তালিকাভুক্তির (এনরোলমেন্ট) মৌখিক পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলে ৫ হাজার ৯৭২ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন। বার কাউন্সিলের সচিব রফিকুল ইসলাম শনিবার বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর ফলে উত্তীর্ণরা সংশ্লিষ্ট আদালতে আইনজীবী হিসাবে প্র্যাকটিস করতে পারবেন। এর আগে ৩১ আগস্ট থেকে সুপ্রিমকোর্ট অডিটোরিয়াম ও সুপ্রিমকোর্ট জাজেস স্পোর্টস কমপ্লেক্সে ধাপে ধাপে এ মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ২৯ মে বার কাউন্সিলের আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। গত বছরের ১৯ ডিসেম্বর লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রায় ১৩ হাজার শিক্ষানবিশ আইনজীবী অংশ নেন। ফলাফলের তালিকা বার কাউন্সিলের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। ২০১০ সাল পর্যন্ত বছরে দুটি পরীক্ষা নিত বার কাউন্সিল। তবে ২০১১ সালের পর থেকে আইনজীবীদের অন্তর্ভুক্তির পরীক্ষা তিন ধাপে (নৈর্ব্যক্তিক, লিখিত ও মৌখিক) অনুষ্ঠানের বিধান করা হয়। তবে পিছিয়ে পড়ে বছরে দুটি করে পরীক্ষা নেওয়ার কার্যক্রম। ফলে ২০২১ সাল পর্যন্ত প্রায় ৭০ হাজার আইন শিক্ষার্থীর জট তৈরি হয়।

এদিকে পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে তিন বছর পর ২০২০ সালের ফেব্র“য়ারিতে নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর প্রকাশিত হয় ফলাফল। তবে একই বছরের মার্চে দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। তাতে থমকে যায় জনজীবন। তবে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা সামলে ওঠার পর নৈর্ব্যক্তিকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে আইনজীবী সনদের দাবি জানান। করোনা বিবেচনায় সেসব দাবি আমলে না নিয়ে একই বছরের ১৯ ডিসেম্বর ১২ হাজার ৮৭৮ জন শিক্ষার্থীর লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

করোনার মাঝেও পরীক্ষা এবং প্রশ্নপত্র কঠিন করার অভিযোগে রাজধানীর ৯টি কেন্দ্রের পাঁচটিতে বিশৃঙ্খলা, হল ভাঙচুর ও উত্তরপত্র ছিনিয়ে নিয়ে ছিড়ে ফেলার ঘটনা ঘটে। পরে বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন ক্ষতিগ্রস্ত কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করেন এবং এর সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দেন। এরপর ঘটনায় দায়ের হওয়া একাধিক মামলায় ৫০ জনের বেশি শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এদিকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হওয়া পাঁচটি কেন্দ্রের পরীক্ষা চলতি বছরের ২৭ ফেব্র“য়ারি পুনরায় অনুষ্ঠিত হয়। সম্প্রতি ১৯ ডিসেম্বরের পরীক্ষায় বিশৃঙ্খলার ঘটনায় জড়িত বা উসকানি দেওয়ার অভিযোগ তুলে কয়েকজন শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে বার কাউন্সিল সচিব রফিকুল ইসলাম। সেসব নোটিশের জবাবে বার কাউন্সিলের অভিযোগ সুনির্দিষ্ট নয় বলেও জবাব দিয়েছেন অনেকে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন