একটি ‘অদৃশ্য শক্তি’ এখন দেশ চালাচ্ছে: মির্জা ফখরুল
jugantor
একটি ‘অদৃশ্য শক্তি’ এখন দেশ চালাচ্ছে: মির্জা ফখরুল

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৪ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

একটি ‘অদৃশ্য শক্তি’ এখন দেশ চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এই অদৃশ্য শক্তির ক্ষমতা, তাদের যাওয়ার রাস্তা এত গভীরে চলে গেছে যে তারা এ দেশের মানুষকে নিয়ন্ত্রণ করছে। এ দেশের সমাজকে নিয়ন্ত্রণ করছে। প্রতি মুহূর্তে প্রতিক্ষণে আমাদের ওপর খবরদারি করা হচ্ছে। এ রকম একটা অবস্থার মধ্যে আমরা গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছি।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। প্রয়াত রাজনীতিক অলি আহাদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এই সভা হয়। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে অংশগ্রহণে সব রাজনৈতিক দলের প্রতি আহ্বান রেখে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা বাম দলসহ সবার সঙ্গে ঐক্য করার চেষ্টা করেছি। আসুন, ঐক্যবদ্ধ হয়ে একটা লড়াই করি, সংগ্রাম করি। আমরা একসঙ্গে লড়াইটা করি এবং দেশকে এই ভয়াবহ অবস্থা থেকে বের করে নিয়ে আসি। এই ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটিয়ে একটা গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা করি। তারপর যার যেটা বোঝাপড়া তা সেটা করে নেবেন। অন্তত একটি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় আমরা ফিরে আসি।

প্রয়াত রাজনীতিক অলি আহাদের মেয়ে বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার সভাপতিত্বে ও ড. জাহিদ-উর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক দিলারা চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান জুনায়েদ সাকি, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক প্রমুখ।

মাহবুব উল্লাহ বলেন, আন্দোলন সংগ্রামের আগে যেভাবে জনসভা করা হতো, সেটা করাও এখন কঠিন হয়ে গেছে। গণতন্ত্র এখন পেছনের দিকে হাঁটছে। দিলারা চৌধুরী বলেন, তরুণ প্রজন্মের অনেকের ধারণা, ১৯৭১ সাল থেকে বাংলাদেশের ইতিহাস রচিত হয়েছে। এটা ভুল। মুক্তিযুদ্ধের পটভূমি তৈরি হয়েছে আরও আগে থেকে। সেখানে প্রথমসারির একজন নেতা ছিলেন অলি আহাদ। মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, পবিত্র কুরআন পূজামণ্ডপে রেখে অবমাননার ঘটনায় ইকবাল নামের এক ব্যক্তিকে হাজির করা হয়েছে। যার কথাবার্তাই উলটাপালটা। একটি ভিডিও ফুটেজ সরবরাহ করা হয়েছে, যেটা আর কেউ দেখেননি। মানুষকে প্রতারিত ও বিভ্রান্ত করার এমন রাজনীতি আগে আর দেখা যায়নি। জোনায়েদ সাকি বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান শাসন এখন পার্শ্ববর্তী দেশ দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। রাজনৈতিক সমাধান ছাড়া সব ধর্মের নাগরিকের বাংলাদেশ তৈরি করা যাবে না। সরকার আগুন নিয়ে খেলছে। পবিত্র কুরআন শরিফ অবমাননা করে মানুষকে উত্তেজিত করার ক্ষেত্র তৈরি করা হচ্ছে। সাইফুল হক বলেন, সাত বছরে তিন হাজার ৭৮৯টি সাম্প্রদায়িক ঘটনা ঘটেছে। এটাকে আর বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলার সুযোগ নেই। সরকারি দলের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মদদ দেওয়ার প্রমাণ এখন বেরিয়ে আসছে।

চাল-ডাল-তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমানোর দাবি : শনিবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য কমাতে ব্যর্থ হয়েছে। ‘দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের প্রতিবাদে’ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে এ মানববন্ধন হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার ১০ টাকা দরে চাল খাওয়ানোর কথা বলেছিল। এখন চালের কেজি ৭০ টাকা। তেলের দাম বেড়েছে, চিনির দাম বেড়েছে, ডালের দাম বেড়েছে। তাদের সেদিকে কোনো খেয়াল নেই। তারা নিজেরা লুটপাট করছে, পয়সা বানাচ্ছে, দুর্নীতি করছে। আমাদের দাবি-নিত্যপণ্যের দাম কমাতে হবে।

মহানগর দক্ষিণের সভাপতি আবদুস সালামের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনুর পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, মহানগর উত্তরের সভাপতি আমান উল্লাহ আমান, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা ফজলুল হক মিলন, মীর সরফত আলী সপু, যুবদলের সাইফুল আলম নিরব, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, কৃষক দলের হাসান জাফির তুহিন, মহানগর উত্তর বিএনপির সদস্য সচিব আমিনুল হক, দক্ষিণ বিএনপির ইশরাক হোসেন প্রমুখ।

একটি ‘অদৃশ্য শক্তি’ এখন দেশ চালাচ্ছে: মির্জা ফখরুল

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৪ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

একটি ‘অদৃশ্য শক্তি’ এখন দেশ চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এই অদৃশ্য শক্তির ক্ষমতা, তাদের যাওয়ার রাস্তা এত গভীরে চলে গেছে যে তারা এ দেশের মানুষকে নিয়ন্ত্রণ করছে। এ দেশের সমাজকে নিয়ন্ত্রণ করছে। প্রতি মুহূর্তে প্রতিক্ষণে আমাদের ওপর খবরদারি করা হচ্ছে। এ রকম একটা অবস্থার মধ্যে আমরা গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছি।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। প্রয়াত রাজনীতিক অলি আহাদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এই সভা হয়। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে অংশগ্রহণে সব রাজনৈতিক দলের প্রতি আহ্বান রেখে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা বাম দলসহ সবার সঙ্গে ঐক্য করার চেষ্টা করেছি। আসুন, ঐক্যবদ্ধ হয়ে একটা লড়াই করি, সংগ্রাম করি। আমরা একসঙ্গে লড়াইটা করি এবং দেশকে এই ভয়াবহ অবস্থা থেকে বের করে নিয়ে আসি। এই ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটিয়ে একটা গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা করি। তারপর যার যেটা বোঝাপড়া তা সেটা করে নেবেন। অন্তত একটি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় আমরা ফিরে আসি।

প্রয়াত রাজনীতিক অলি আহাদের মেয়ে বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার সভাপতিত্বে ও ড. জাহিদ-উর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক দিলারা চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান জুনায়েদ সাকি, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক প্রমুখ।

মাহবুব উল্লাহ বলেন, আন্দোলন সংগ্রামের আগে যেভাবে জনসভা করা হতো, সেটা করাও এখন কঠিন হয়ে গেছে। গণতন্ত্র এখন পেছনের দিকে হাঁটছে। দিলারা চৌধুরী বলেন, তরুণ প্রজন্মের অনেকের ধারণা, ১৯৭১ সাল থেকে বাংলাদেশের ইতিহাস রচিত হয়েছে। এটা ভুল। মুক্তিযুদ্ধের পটভূমি তৈরি হয়েছে আরও আগে থেকে। সেখানে প্রথমসারির একজন নেতা ছিলেন অলি আহাদ। মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, পবিত্র কুরআন পূজামণ্ডপে রেখে অবমাননার ঘটনায় ইকবাল নামের এক ব্যক্তিকে হাজির করা হয়েছে। যার কথাবার্তাই উলটাপালটা। একটি ভিডিও ফুটেজ সরবরাহ করা হয়েছে, যেটা আর কেউ দেখেননি। মানুষকে প্রতারিত ও বিভ্রান্ত করার এমন রাজনীতি আগে আর দেখা যায়নি। জোনায়েদ সাকি বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান শাসন এখন পার্শ্ববর্তী দেশ দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। রাজনৈতিক সমাধান ছাড়া সব ধর্মের নাগরিকের বাংলাদেশ তৈরি করা যাবে না। সরকার আগুন নিয়ে খেলছে। পবিত্র কুরআন শরিফ অবমাননা করে মানুষকে উত্তেজিত করার ক্ষেত্র তৈরি করা হচ্ছে। সাইফুল হক বলেন, সাত বছরে তিন হাজার ৭৮৯টি সাম্প্রদায়িক ঘটনা ঘটেছে। এটাকে আর বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলার সুযোগ নেই। সরকারি দলের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মদদ দেওয়ার প্রমাণ এখন বেরিয়ে আসছে।

চাল-ডাল-তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমানোর দাবি : শনিবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য কমাতে ব্যর্থ হয়েছে। ‘দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের প্রতিবাদে’ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে এ মানববন্ধন হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার ১০ টাকা দরে চাল খাওয়ানোর কথা বলেছিল। এখন চালের কেজি ৭০ টাকা। তেলের দাম বেড়েছে, চিনির দাম বেড়েছে, ডালের দাম বেড়েছে। তাদের সেদিকে কোনো খেয়াল নেই। তারা নিজেরা লুটপাট করছে, পয়সা বানাচ্ছে, দুর্নীতি করছে। আমাদের দাবি-নিত্যপণ্যের দাম কমাতে হবে।

মহানগর দক্ষিণের সভাপতি আবদুস সালামের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনুর পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, মহানগর উত্তরের সভাপতি আমান উল্লাহ আমান, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা ফজলুল হক মিলন, মীর সরফত আলী সপু, যুবদলের সাইফুল আলম নিরব, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, কৃষক দলের হাসান জাফির তুহিন, মহানগর উত্তর বিএনপির সদস্য সচিব আমিনুল হক, দক্ষিণ বিএনপির ইশরাক হোসেন প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন