নৌকাকে ডোবাতে আ.লীগ নেতার চক্রান্ত ফাঁস
jugantor
ভোলাকোট ইউপি নির্বাচন
নৌকাকে ডোবাতে আ.লীগ নেতার চক্রান্ত ফাঁস

  লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি  

২৮ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রামগঞ্জ উপজেলার ভোলাকোট ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে ডোবাতে এক আওয়ামী লীগ নেতার চক্রান্তের অডিও ফাঁস হয়েছে। বিদ্রোহী প্রার্থীকে জেতাতে গোপনে তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। কীভাবে নৌকাকে ডোবাতে হবে সে ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু সে কৌশলও মোবাইল ফোনে কর্মীদের জানাচ্ছেন। এক কর্মীর সঙ্গে বাচ্চুর কথোপকথনের ৩৪ মিনিটের একটি গোপন অডিও শনিবার যুগান্তরের হাতে এসেছে। এতে শোনা যায়-বাচ্চু বলছেন, ‘উপর দিয়ে নৌকা চলবে। ভেতর দিয়ে জুয়েলের সঙ্গে কাজ করবা।’ ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া অডিওটি কবে ধারণ করা হয়েছে তা জানা যায়নি।

আজ ভোলাকোটসহ রামগঞ্জ উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ভোলাকোট ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জামান পাটওয়ারী দুলাল, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সদস্য জাহিদ হোসেন জুয়েল ও বাচ্চু নিকটাত্মীয় দেলোয়ার হোসেন (চশমা) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

অভিযোগ-উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু নৌকার পরাজয় নিশ্চিত করতে গোপনে বিভিন্ন রকম দিকনির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন। ৩৪ মিনিটের কথোপকথনের অডিও বিদ্রোহী প্রার্থী জুয়েল নিজেই ধারণ করেছেন। জুয়েলও তা স্বীকার করেছেন। একটি প্রাইভেটকারে জুয়েলের সঙ্গে বসে থাকা অবস্থায় বাচ্চুর মোবাইল ফোনে কর্মী মহসিনের এক ফোন আসে। এ সময় বাচ্চু তাকে বলেন, ‘উপর দিয়ে নৌকা চলবে। ভেতর দিয়ে জুয়েলের সঙ্গে কাজ করবা। রাতে বাড়িতে এসো তোমার সঙ্গে এ ব্যাপারে বিস্তারিত কথা বলব।’ অডিওর শেষের দিকে জুয়েলকে পরামর্শ দিয়ে বাচ্চু বলেন, ‘এজেন্টদের শপথ করাবে। এটি তোমাদের ও আমাদের চ্যালেঞ্জ। জীবন চলে যাইব। ভোট শুরু থেকে গণনা পর্যন্ত কেন্দ্রে থাকতে হবে। প্রয়োজনের তাগিদে ভোট বন্ধ হয়ে যাবে। বাট আপস করা যাবে না। এবার ১০টি ইউনিয়নে একযোগে নির্বাচন। বিগত দিনের মতো এবার বাচ্চু (নিজ) পুলিশ, ম্যাজিস্ট্রেট অথবা লোকজন আনবে না।’

বাচ্চু আরও বলেন, ‘৯ তারিখ বর্ধিতসভা। দলীয় নেতাদের চিঠি দেওয়া হবে। তোমার (জুয়েল) যেহেতু পদ-পদবি নেই। তাই তোমাকে চিঠি দেওয়া হবে না। তোমাকে বহিষ্কারেরও কোনো সুযোগ নেই। তবে বেলাল (রামগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমেদ) ভাইকে দিয়ে তোমার নমিনেশন উইথড্র করাতে চাইবে। এজন্য ১২ তারিখের আগ পর্যন্ত মোবাইল ফোন বন্ধ রাখবে। নতুন নম্বর ব্যবহার করবে।’ এরপর বাচ্চু নিজের একটি গোপন মোবাইল ফোন নম্বর জুয়েলকে দেন। বাচ্চু আরও বলেন, ‘প্রশাসনকে প্রেসার হাই রাখতে হবে। ডিপে কাজ চলবে। কেন্দ্রভিত্তিক মেম্বার প্রার্থীদের সঙ্গে সখ্য গড়ে তুলতে হবে। ২০ নভেম্বর কেন্দ্র কমিটি গঠন করতে হবে। যাদের তুমি মেম্বার বানাতে চাও তাদের কৌশলে খরচ দেবে। তিনটি কেন্দ্রে প্রশাসনের কাছে অবজেকশন দিতে হবে। কয়েকজন মেম্বার প্রার্থীর সঙ্গে কথা বলেছি। তাদের বলেছি উপর দিয়ে নৌকার জন্য কাজ করবে। আর ডিপে যেন তোমার (জুয়েল) জন্য করে। ২২-২৩ তারিখে একটি সংবাদ সম্মেলন করতে হবে। এতে বলতে হবে-সুকৌশলে দলের নাম ও প্রভাব খাঁটিয়ে কেন্দ্র দখলের পাঁয়তারা করতে আমরা শুনেছি। ভোলাকোট ইউনিয়নের জনগণ এবার সজাগ, তা সম্ভব হবে না। এসব অভিযোগ সংবাদ সম্মেলন করে গণমাধ্যমে ছড়িয়ে দিতে হবে। দুলালের (নৌকার প্রার্থী) কোনো লোক সেখানে গিয়ে কিছু করতে ক্ষমতা আসেনি? ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের অনেককেই তিনি (তার অনুসারী) জুয়েলের পক্ষে কাজ করার জন্য বলে দেবেন বলে আশ্বাস দেন।’

বিদ্রোহী প্রার্থী জাহিদ হোসেন জুয়েল বলেন, দেওয়ান বাচ্চু এখন আবার আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছেন। আত্মীয় দেলোয়ারকে (চশমা) চেয়ারম্যান বানাতে বাচ্চু কাজ করছেন। জুয়েল রামগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পৌর মেয়র বেলাল আহমেদের ভাতিজা।

কথোপকথন সম্পর্কে দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু দাবি করেন কথাগুলো মনোনয়ন দেওয়ার আগে হতে পারে। আমি কোনো ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত নই। আমি ভাদুর ইউনিয়নে নৌকার ভোট করছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সফিক মাহমুদ পিন্টু বলেন, নির্বাচনকে ঘিরে আমি এলাকায় রয়েছি। বাচ্চু নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করছেন তা আমি জানি না। কেউ জানায়ওনি। যদি এরকম কিছু হয়, সেই বিষয়ে উপজেলা কমিটির সবার সঙ্গে কথা বলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভোলাকোট ইউপি নির্বাচন

নৌকাকে ডোবাতে আ.লীগ নেতার চক্রান্ত ফাঁস

 লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি 
২৮ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রামগঞ্জ উপজেলার ভোলাকোট ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে ডোবাতে এক আওয়ামী লীগ নেতার চক্রান্তের অডিও ফাঁস হয়েছে। বিদ্রোহী প্রার্থীকে জেতাতে গোপনে তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। কীভাবে নৌকাকে ডোবাতে হবে সে ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু সে কৌশলও মোবাইল ফোনে কর্মীদের জানাচ্ছেন। এক কর্মীর সঙ্গে বাচ্চুর কথোপকথনের ৩৪ মিনিটের একটি গোপন অডিও শনিবার যুগান্তরের হাতে এসেছে। এতে শোনা যায়-বাচ্চু বলছেন, ‘উপর দিয়ে নৌকা চলবে। ভেতর দিয়ে জুয়েলের সঙ্গে কাজ করবা।’ ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া অডিওটি কবে ধারণ করা হয়েছে তা জানা যায়নি।

আজ ভোলাকোটসহ রামগঞ্জ উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ভোলাকোট ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জামান পাটওয়ারী দুলাল, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সদস্য জাহিদ হোসেন জুয়েল ও বাচ্চু নিকটাত্মীয় দেলোয়ার হোসেন (চশমা) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

অভিযোগ-উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু নৌকার পরাজয় নিশ্চিত করতে গোপনে বিভিন্ন রকম দিকনির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন। ৩৪ মিনিটের কথোপকথনের অডিও বিদ্রোহী প্রার্থী জুয়েল নিজেই ধারণ করেছেন। জুয়েলও তা স্বীকার করেছেন। একটি প্রাইভেটকারে জুয়েলের সঙ্গে বসে থাকা অবস্থায় বাচ্চুর মোবাইল ফোনে কর্মী মহসিনের এক ফোন আসে। এ সময় বাচ্চু তাকে বলেন, ‘উপর দিয়ে নৌকা চলবে। ভেতর দিয়ে জুয়েলের সঙ্গে কাজ করবা। রাতে বাড়িতে এসো তোমার সঙ্গে এ ব্যাপারে বিস্তারিত কথা বলব।’ অডিওর শেষের দিকে জুয়েলকে পরামর্শ দিয়ে বাচ্চু বলেন, ‘এজেন্টদের শপথ করাবে। এটি তোমাদের ও আমাদের চ্যালেঞ্জ। জীবন চলে যাইব। ভোট শুরু থেকে গণনা পর্যন্ত কেন্দ্রে থাকতে হবে। প্রয়োজনের তাগিদে ভোট বন্ধ হয়ে যাবে। বাট আপস করা যাবে না। এবার ১০টি ইউনিয়নে একযোগে নির্বাচন। বিগত দিনের মতো এবার বাচ্চু (নিজ) পুলিশ, ম্যাজিস্ট্রেট অথবা লোকজন আনবে না।’

বাচ্চু আরও বলেন, ‘৯ তারিখ বর্ধিতসভা। দলীয় নেতাদের চিঠি দেওয়া হবে। তোমার (জুয়েল) যেহেতু পদ-পদবি নেই। তাই তোমাকে চিঠি দেওয়া হবে না। তোমাকে বহিষ্কারেরও কোনো সুযোগ নেই। তবে বেলাল (রামগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমেদ) ভাইকে দিয়ে তোমার নমিনেশন উইথড্র করাতে চাইবে। এজন্য ১২ তারিখের আগ পর্যন্ত মোবাইল ফোন বন্ধ রাখবে। নতুন নম্বর ব্যবহার করবে।’ এরপর বাচ্চু নিজের একটি গোপন মোবাইল ফোন নম্বর জুয়েলকে দেন। বাচ্চু আরও বলেন, ‘প্রশাসনকে প্রেসার হাই রাখতে হবে। ডিপে কাজ চলবে। কেন্দ্রভিত্তিক মেম্বার প্রার্থীদের সঙ্গে সখ্য গড়ে তুলতে হবে। ২০ নভেম্বর কেন্দ্র কমিটি গঠন করতে হবে। যাদের তুমি মেম্বার বানাতে চাও তাদের কৌশলে খরচ দেবে। তিনটি কেন্দ্রে প্রশাসনের কাছে অবজেকশন দিতে হবে। কয়েকজন মেম্বার প্রার্থীর সঙ্গে কথা বলেছি। তাদের বলেছি উপর দিয়ে নৌকার জন্য কাজ করবে। আর ডিপে যেন তোমার (জুয়েল) জন্য করে। ২২-২৩ তারিখে একটি সংবাদ সম্মেলন করতে হবে। এতে বলতে হবে-সুকৌশলে দলের নাম ও প্রভাব খাঁটিয়ে কেন্দ্র দখলের পাঁয়তারা করতে আমরা শুনেছি। ভোলাকোট ইউনিয়নের জনগণ এবার সজাগ, তা সম্ভব হবে না। এসব অভিযোগ সংবাদ সম্মেলন করে গণমাধ্যমে ছড়িয়ে দিতে হবে। দুলালের (নৌকার প্রার্থী) কোনো লোক সেখানে গিয়ে কিছু করতে ক্ষমতা আসেনি? ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের অনেককেই তিনি (তার অনুসারী) জুয়েলের পক্ষে কাজ করার জন্য বলে দেবেন বলে আশ্বাস দেন।’

বিদ্রোহী প্রার্থী জাহিদ হোসেন জুয়েল বলেন, দেওয়ান বাচ্চু এখন আবার আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছেন। আত্মীয় দেলোয়ারকে (চশমা) চেয়ারম্যান বানাতে বাচ্চু কাজ করছেন। জুয়েল রামগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পৌর মেয়র বেলাল আহমেদের ভাতিজা।

কথোপকথন সম্পর্কে দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু দাবি করেন কথাগুলো মনোনয়ন দেওয়ার আগে হতে পারে। আমি কোনো ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত নই। আমি ভাদুর ইউনিয়নে নৌকার ভোট করছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সফিক মাহমুদ পিন্টু বলেন, নির্বাচনকে ঘিরে আমি এলাকায় রয়েছি। বাচ্চু নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করছেন তা আমি জানি না। কেউ জানায়ওনি। যদি এরকম কিছু হয়, সেই বিষয়ে উপজেলা কমিটির সবার সঙ্গে কথা বলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন