ঘাতক ট্রাকচালকের বিচার দাবিতে কফিন মিছিল, মানববন্ধন
jugantor
সড়কে ছাত্র লিমনের মৃত্যু
ঘাতক ট্রাকচালকের বিচার দাবিতে কফিন মিছিল, মানববন্ধন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী মাহাদি হাসান লিমনের ঘাতক ট্রাকচালকের বিচার দাবিতে কফিন মিছিল ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন তার সহপাঠীরা। সোমবার দুপুরে মিরপুর-১০ নম্বরে এ কর্মসূচি পালিত হয়।

গত শুক্রবার দিন গত গভীর রাতে বিমানবন্দর সড়কে অজ্ঞাত ট্রাকের চাপায় মারা যান বেসরকারি গ্রীন ইউনিভার্সিটির টেক্সটাইল চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মাহাদি হাসান লিমন। এ ঘটনার বিচার দাবিতে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির মধ্যেই শেওড়াপাড়াস্থ গ্রীন ইউনিভার্সিটি চত্বর থেকে প্রতীকী কফিন, ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে মিছিল করে কয়েকশ শিক্ষার্থী মিরপুর-১০ নম্বর গোলচত্বরে জড়ো হন। এরপর সেখানে মানববন্ধন করেন তারা। এসময় তারা লিমনের ঘাতকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং সড়ক নিরাপদ করাসহ বিভিন্ন দাবিতে স্লোগান দেন। কর্মসূচি চলাকালে অল্প সময়ের জন্য মিরপুর-১০ নম্বর গোলচত্বরে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলেও শিক্ষার্থীদের তৎপরতায় আবার যান চলাচল শুরু হয়। শিক্ষার্থীরা ১০ নম্বর ফুটওভার ব্রিজের নিচে অবস্থান নিয়ে সড়কে যান চলাচলের সুযোগ করে দেন।

শিক্ষার্থীরা বলেন, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমে আমাদের ভাই হত্যায় জড়িত ঘাতক চালকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। আমরা নিরাপদ সড়ক চাই, যেন সড়ক দুর্ঘটনায় আর কোনো মায়ের বুক খালি না হয়। তারা বলেন, আমরা একটি নীরব মিছিল নিয়ে আমাদের ইউনিভার্সিটি থেকে মিরপুর-১০ নম্বর পর্যন্ত এসেছি। আমরা কোনো বিশৃঙ্খলা করিনি। আমরা ‘নিরাপদ সড়ক’ চাই। সড়ক ব্যবস্থাপনা এমন করতে হবে যাতে আমাদের ভাই, বন্ধু, সহপাঠী লিমনের মতো আর কাউকে এমন দুর্ঘটনার শিকার না হতে হয়।

গ্রীন ইউনিভার্সিটির টেক্সটাইল ক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন আবীর বলেন, ‘লিমন আমাদের ডিপার্টমেন্টের মেধাবী ছাত্র ছিল। ঘাতক ট্রাক ওকে বাঁচতে দিল না। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আমরা চালকের শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’

পল্লবী জোনের এসি (ট্রাফিক) ইলিয়াস হোসেন জানান, শিক্ষার্থীরা ১০ মিনিটের মতো মানববন্ধন করেছে। রাস্তায় কোনো সমস্যা হয়নি।

প্রসঙ্গত, শিক্ষার্থীদের ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের মধ্যেই শুক্রবার গভীর রাতে বিমানবন্দর সড়কে ট্রাকচাপায় গ্রীন ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী মাহাদি হাসান লিমন (২১) নিহত হন। টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী লিমন ঢাকার উত্তরায় বাসা ভাড়া নিয়েছিলেন। কথা ছিল জয়পুরহাটের পাঁচবিবি থেকে মা শনিবার ভোরে ঢাকায় পৌঁছলে তাকে নিয়ে তিনি নতুন বাসায় উঠবেন। কিন্তু এর আগেই ট্রাক কেড়ে নিল তার প্রাণ।

সড়কে ছাত্র লিমনের মৃত্যু

ঘাতক ট্রাকচালকের বিচার দাবিতে কফিন মিছিল, মানববন্ধন

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী মাহাদি হাসান লিমনের ঘাতক ট্রাকচালকের বিচার দাবিতে কফিন মিছিল ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন তার সহপাঠীরা। সোমবার দুপুরে মিরপুর-১০ নম্বরে এ কর্মসূচি পালিত হয়।

গত শুক্রবার দিন গত গভীর রাতে বিমানবন্দর সড়কে অজ্ঞাত ট্রাকের চাপায় মারা যান বেসরকারি গ্রীন ইউনিভার্সিটির টেক্সটাইল চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মাহাদি হাসান লিমন। এ ঘটনার বিচার দাবিতে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির মধ্যেই শেওড়াপাড়াস্থ গ্রীন ইউনিভার্সিটি চত্বর থেকে প্রতীকী কফিন, ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে মিছিল করে কয়েকশ শিক্ষার্থী মিরপুর-১০ নম্বর গোলচত্বরে জড়ো হন। এরপর সেখানে মানববন্ধন করেন তারা। এসময় তারা লিমনের ঘাতকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং সড়ক নিরাপদ করাসহ বিভিন্ন দাবিতে স্লোগান দেন। কর্মসূচি চলাকালে অল্প সময়ের জন্য মিরপুর-১০ নম্বর গোলচত্বরে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলেও শিক্ষার্থীদের তৎপরতায় আবার যান চলাচল শুরু হয়। শিক্ষার্থীরা ১০ নম্বর ফুটওভার ব্রিজের নিচে অবস্থান নিয়ে সড়কে যান চলাচলের সুযোগ করে দেন।

শিক্ষার্থীরা বলেন, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমে আমাদের ভাই হত্যায় জড়িত ঘাতক চালকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। আমরা নিরাপদ সড়ক চাই, যেন সড়ক দুর্ঘটনায় আর কোনো মায়ের বুক খালি না হয়। তারা বলেন, আমরা একটি নীরব মিছিল নিয়ে আমাদের ইউনিভার্সিটি থেকে মিরপুর-১০ নম্বর পর্যন্ত এসেছি। আমরা কোনো বিশৃঙ্খলা করিনি। আমরা ‘নিরাপদ সড়ক’ চাই। সড়ক ব্যবস্থাপনা এমন করতে হবে যাতে আমাদের ভাই, বন্ধু, সহপাঠী লিমনের মতো আর কাউকে এমন দুর্ঘটনার শিকার না হতে হয়।

গ্রীন ইউনিভার্সিটির টেক্সটাইল ক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন আবীর বলেন, ‘লিমন আমাদের ডিপার্টমেন্টের মেধাবী ছাত্র ছিল। ঘাতক ট্রাক ওকে বাঁচতে দিল না। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আমরা চালকের শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’

পল্লবী জোনের এসি (ট্রাফিক) ইলিয়াস হোসেন জানান, শিক্ষার্থীরা ১০ মিনিটের মতো মানববন্ধন করেছে। রাস্তায় কোনো সমস্যা হয়নি।

প্রসঙ্গত, শিক্ষার্থীদের ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের মধ্যেই শুক্রবার গভীর রাতে বিমানবন্দর সড়কে ট্রাকচাপায় গ্রীন ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী মাহাদি হাসান লিমন (২১) নিহত হন। টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী লিমন ঢাকার উত্তরায় বাসা ভাড়া নিয়েছিলেন। কথা ছিল জয়পুরহাটের পাঁচবিবি থেকে মা শনিবার ভোরে ঢাকায় পৌঁছলে তাকে নিয়ে তিনি নতুন বাসায় উঠবেন। কিন্তু এর আগেই ট্রাক কেড়ে নিল তার প্রাণ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন