খালেদা জিয়ার বিষয়ে আইনজীবীদের সুপারিশ খতিয়ে দেখা হচ্ছে: আইনমন্ত্রী
jugantor
খালেদা জিয়ার বিষয়ে আইনজীবীদের সুপারিশ খতিয়ে দেখা হচ্ছে: আইনমন্ত্রী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা যেসব সুপারিশ করেছেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

তিনি বলেছেন, বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা যে সুপারিশ করেছেন সেই পদ্ধতিতে অন্য কোনো দেশে মুক্তি দেওয়ার নজির আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অচিরেই সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

বুধবার বিকালে গুলশানে আবাসিক অফিসে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হত্যা মামলার রায়ের প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। আবরার হত্যা মামলার রায়ে প্রকৃত ও ন্যায়বিচার করা হয়েছে উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী বলেন, রায়ে এটা প্রমাণ হয় যে, দেশে আইনের শাসন আছে। এখন কেউ এরকম হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে বা কোনো রকম হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে ঘুরে বেড়াতে পারবে না। তারা রাজনীতি করতে পারবে না।

তিনি বলেন, রায়ের নথিপত্র আগামী সাত দিনের মধ্যে হাইকোর্টে যাবে। সেখানে মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তি হওয়ার ব্যাপারে সরকার সব ধরনের সহযোগিতা করবে।

মন্ত্রী বলেন, সমাজে কিছু হত্যাকাণ্ড আছে যা সমাজকে নাড়া দেয়। সমাজের বিবেককে নাড়া দেয়। এসব হত্যাকাণ্ডের বিচার করা না হলে সমাজে হতাশা দেখা দেয়। সরকারের দায়িত্ব এই মামলাগুলো ত্বরিত বিচার করে, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করে সমাজকে আশ্বস্ত করা যে, দেশে আইনের শাসন বিরাজ করছে।

খালেদা জিয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় যে দরখাস্ত একবার নিষ্পত্তিকৃত হয়ে থাকে, সেই দরখাস্তকে আবার পুনরুজ্জীবিত করার কোনো ‘স্কোপ’ নেই। তার এই আইনি ব্যাখ্যাই সঠিক।

বিএনপির ১৫ আইনজীবী তার সঙ্গে দেখা করে যে বক্তব্য দিয়েছেন সে বিষয়ে এই উপমহাদেশের কোনো আদালতের নজির আছে কিনা সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এই কাজ প্রায় শেষ প্রান্তে। কিছুদিনের মধ্যেই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত পাওয়া যাবে।

পদত্যাগকারী তথ্য প্রতিমন্ত্রীর বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, তার কর্মকাণ্ডে আমি গভীরভাবে ক্ষুব্ধ। শুধু সংসদ সদস্য নয়, কোনো বিবেকবান মানুষ এটা করতে পারে না।

খালেদা জিয়ার বিষয়ে আইনজীবীদের সুপারিশ খতিয়ে দেখা হচ্ছে: আইনমন্ত্রী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা যেসব সুপারিশ করেছেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

তিনি বলেছেন, বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা যে সুপারিশ করেছেন সেই পদ্ধতিতে অন্য কোনো দেশে মুক্তি দেওয়ার নজির আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অচিরেই সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

বুধবার বিকালে গুলশানে আবাসিক অফিসে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হত্যা মামলার রায়ের প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। আবরার হত্যা মামলার রায়ে প্রকৃত ও ন্যায়বিচার করা হয়েছে উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী বলেন, রায়ে এটা প্রমাণ হয় যে, দেশে আইনের শাসন আছে। এখন কেউ এরকম হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে বা কোনো রকম হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে ঘুরে বেড়াতে পারবে না। তারা রাজনীতি করতে পারবে না।

তিনি বলেন, রায়ের নথিপত্র আগামী সাত দিনের মধ্যে হাইকোর্টে যাবে। সেখানে মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তি হওয়ার ব্যাপারে সরকার সব ধরনের সহযোগিতা করবে।

মন্ত্রী বলেন, সমাজে কিছু হত্যাকাণ্ড আছে যা সমাজকে নাড়া দেয়। সমাজের বিবেককে নাড়া দেয়। এসব হত্যাকাণ্ডের বিচার করা না হলে সমাজে হতাশা দেখা দেয়। সরকারের দায়িত্ব এই মামলাগুলো ত্বরিত বিচার করে, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করে সমাজকে আশ্বস্ত করা যে, দেশে আইনের শাসন বিরাজ করছে।

খালেদা জিয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় যে দরখাস্ত একবার নিষ্পত্তিকৃত হয়ে থাকে, সেই দরখাস্তকে আবার পুনরুজ্জীবিত করার কোনো ‘স্কোপ’ নেই। তার এই আইনি ব্যাখ্যাই সঠিক।

বিএনপির ১৫ আইনজীবী তার সঙ্গে দেখা করে যে বক্তব্য দিয়েছেন সে বিষয়ে এই উপমহাদেশের কোনো আদালতের নজির আছে কিনা সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এই কাজ প্রায় শেষ প্রান্তে। কিছুদিনের মধ্যেই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত পাওয়া যাবে।

পদত্যাগকারী তথ্য প্রতিমন্ত্রীর বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, তার কর্মকাণ্ডে আমি গভীরভাবে ক্ষুব্ধ। শুধু সংসদ সদস্য নয়, কোনো বিবেকবান মানুষ এটা করতে পারে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন