কোটা সংস্কার আন্দোলন

পরীক্ষা বর্জন স্থগিত

হয়রানির উদ্দেশ্যে ২৫ ছাত্রীকে নোটিশ

  ঢাবি প্রতিনিধি ২০ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কোটা সংস্কার আন্দোলন
ফাইল ফটো

কোটা সংস্কার আন্দোলনে অংশ নেয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ২৫ ছাত্রীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে। এমন অভিযোগ করেছে কোটা সংস্কার দাবিতে গড়ে ওঠা শিক্ষার্থীদের প্লাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

শনিবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পরিষদ নেতারা এ অভিযোগ করেন। সংবাদ সম্মেলন থেকে রমজান ও সেশনজট বিবেচনায় নিয়ে চলমান পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি স্থগিত ঘোষণা করা হয়।

পাশাপাশি সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা প্রজ্ঞাপন আকারে জারি না হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস বর্জন কর্মসূচি অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনে অংশ নেয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন হয়রানির উদ্দেশ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৫ ছাত্রীকে নোটিশ দিয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, এসব ছাত্রী অসত্য ও বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে গুজব ছড়িয়েছে। আমরা বলতে চাই, শিক্ষার্থীরা যদি গুজব ছড়ায়, তাহলে ঢাবি ভিসি এবং প্রক্টর এই গুজবের মহানায়ক। কারণ কোটা সংস্কার আন্দোলন ঘিরে যত গুজব ছড়িয়েছে, এর পেছনে তারা রয়েছেন।

নুর বলেন, ঘটনার দিন রাতে গণমাধ্যমের কাছে ঢাবি ভিসি ও প্রক্টর সুফিয়া কামাল হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইফফাত জাহান এশা কর্তৃক শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের বিষয়টি স্বীকার করে বলেছিলেন, দোষ পেয়েই তারা এশাকে বহিষ্কার করেছেন।

কিন্তু কোনো এক অদৃশ্য কারণে পরের দিন সকালেই তারা ইউটার্ন নিলেন। বললেন, এশা এমন কোনো কাজ করেনি। উল্টো আমরা দেখতে পাচ্ছি, এশাকে হেনস্তার অভিযোগে ২৫ ছাত্রীকে জড়িয়ে তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে।

ঢাবি প্রশাসন সেদিন সত্য উদ্ঘাটন না করেই এশাকে বহিষ্কার করেছিল, নাকি কোনো প্রভাবশালী গোষ্ঠীর চাপে বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করেছে, এটাই এখন বিবেকবান জাতির প্রশ্ন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলন করায় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে শিক্ষার্থীদের নির্যাতন, হল ত্যাগের হুমকি ও ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে।

একটি অতি উৎসাহী ও কুচক্রী মহল সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলার জন্য এসব ঘৃণ্য কাজ করছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ?ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তিনি সুফিয়া কামাল হলে ঘটে যাওয়া অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার কারণ দর্শানোর নামে সাধারণ ছাত্রীদের হয়রানি না করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান।

তিনি আরও বলেন, রমজান ও সেশন জটের কথা বিবেচনা করে পরীক্ষা বর্জনের কর্মসূচি স্থগিত ঘোষণা করা হল। তবে কোটা বাতিলে প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়া পর্যন্ত ক্লাস বর্জন কর্মসূচি আগের মতো চলমান থাকবে। ‘কুচক্রী মহল ও অতি উৎসাহী’ কারা- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক বলেন, ছাত্রলীগের একটি অনুপ্রবেশকারী দল সাধারণ ছাত্রদের হয়রানি করছে। যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাস করে, তারা এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে পারে না।’

তিনি বলেন, ‘বিচার না হওয়ার কারণে তারা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েই চলেছে। তাদের বিচার না হওয়ায় আমরা দ্বিধাগ্রস্ত হয়ে পড়েছি যে সরকার তাদের উৎসাহ দিচ্ছে কি না’। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান, ফারুক হোসেন প্রমুখ।

ঘটনাপ্রবাহ : কোটাবিরোধী আন্দোলন ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter