নীলক্ষেত মোড়ে আন্দোলনরতদের ওপর লাঠিচার্জ
jugantor
বয়সসীমা বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলন
নীলক্ষেত মোড়ে আন্দোলনরতদের ওপর লাঠিচার্জ

  ঢাবি প্রতিনিধি  

১৭ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সব ধরনের চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা স্থায়ীভাবে বৃদ্ধিসহ চার দাবিতে আন্দোলরতদের ওপর পুলিশ লাঠিচার্জ করেছে। রোববার সকালে রাজধানীর নীলক্ষেত মোড়ে আন্দোলনকারীরা অবরোধ করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এরপর সেখানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

চাকরিতে প্রবেশের সময়সীমা বৃদ্ধি, নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতি বন্ধ করা, সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষা চালুসহ চার দাবিতে নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করা হলে সেখানে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ফলে সায়েন্স ল্যাবরেটরি থেকে নীলক্ষেত ও আজিমপুর থেকে নীলক্ষেত পর্যন্ত সড়কের উভয় পাশের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে সাধারণ মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েন। এ সময় অনেককে হেঁটে গন্তব্যের দিকে যেতে দেখা যায়। এ অবস্থায় কয়েক দফা অনুরোধের পরও আন্দোলনকারীরা রাস্তা না ছাড়লে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এরপর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। জনভোগান্তির কথা চিন্তা করে আন্দোলনকারীদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানান নিউমার্কেট জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার শরীফ মোহাম্মদ ফারুকুজ্জামান। তিনি বলেন, আন্দোলনের শুরু থেকেই আমরা তাদের গুরুত্বপূর্ণ এ জায়গা থেকে সরে যেতে অনুরোধ করেছি। তাদের আন্দোলনের বিষয়টি আমরা যথাযথ জায়গায় জানিয়েছি। এটি আলোচনাসাপেক্ষে সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়। গুরুত্বপূর্ণ সড়ক অবরোধের ফলে চার পাশে ব্যাপক যানজট ছড়িয়ে পড়ে। তাই আন্দোলনকারীদের সরিয়ে দেওয়া হয়। কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।

আন্দোলনকারীদের ৪ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে-সব চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা স্থায়ীভাবে বৃদ্ধি করা, নিয়োগ দুর্নীতি ও জালিয়াতি বন্ধ করা, নিয়োগ পরীক্ষার (প্রিলি ও রিটেন) প্রাপ্ত নম্বরসহ ফল প্রকাশ, চাকরিতে আবেদনের ফি সর্বোচ্চ ১০০ টাকা করা এবং একই সময়ে একাধিক নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধ করে সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষার ব্যবস্থা করা।

বয়সসীমা বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলন

নীলক্ষেত মোড়ে আন্দোলনরতদের ওপর লাঠিচার্জ

 ঢাবি প্রতিনিধি 
১৭ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সব ধরনের চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা স্থায়ীভাবে বৃদ্ধিসহ চার দাবিতে আন্দোলরতদের ওপর পুলিশ লাঠিচার্জ করেছে। রোববার সকালে রাজধানীর নীলক্ষেত মোড়ে আন্দোলনকারীরা অবরোধ করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এরপর সেখানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

চাকরিতে প্রবেশের সময়সীমা বৃদ্ধি, নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতি বন্ধ করা, সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষা চালুসহ চার দাবিতে নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করা হলে সেখানে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ফলে সায়েন্স ল্যাবরেটরি থেকে নীলক্ষেত ও আজিমপুর থেকে নীলক্ষেত পর্যন্ত সড়কের উভয় পাশের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে সাধারণ মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েন। এ সময় অনেককে হেঁটে গন্তব্যের দিকে যেতে দেখা যায়। এ অবস্থায় কয়েক দফা অনুরোধের পরও আন্দোলনকারীরা রাস্তা না ছাড়লে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এরপর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। জনভোগান্তির কথা চিন্তা করে আন্দোলনকারীদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানান নিউমার্কেট জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার শরীফ মোহাম্মদ ফারুকুজ্জামান। তিনি বলেন, আন্দোলনের শুরু থেকেই আমরা তাদের গুরুত্বপূর্ণ এ জায়গা থেকে সরে যেতে অনুরোধ করেছি। তাদের আন্দোলনের বিষয়টি আমরা যথাযথ জায়গায় জানিয়েছি। এটি আলোচনাসাপেক্ষে সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়। গুরুত্বপূর্ণ সড়ক অবরোধের ফলে চার পাশে ব্যাপক যানজট ছড়িয়ে পড়ে। তাই আন্দোলনকারীদের সরিয়ে দেওয়া হয়। কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।

আন্দোলনকারীদের ৪ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে-সব চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা স্থায়ীভাবে বৃদ্ধি করা, নিয়োগ দুর্নীতি ও জালিয়াতি বন্ধ করা, নিয়োগ পরীক্ষার (প্রিলি ও রিটেন) প্রাপ্ত নম্বরসহ ফল প্রকাশ, চাকরিতে আবেদনের ফি সর্বোচ্চ ১০০ টাকা করা এবং একই সময়ে একাধিক নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধ করে সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষার ব্যবস্থা করা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন