বাংলা কমিকসের প্রাণপুরুষ নারায়ণ দেবনাথ আর নেই
jugantor
বাংলা কমিকসের প্রাণপুরুষ নারায়ণ দেবনাথ আর নেই

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলা চিত্রকাহিনি বা কমিকসের প্রাণপুরুষ নারায়ণ দেবনাথ আর নেই। কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে মঙ্গলবার সকালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর। কয়েক প্রজন্মের বাঙালি কিশোরবেলার সঙ্গী হয়ে রয়েছে নারায়ণ দেবনাথের সৃষ্টি করা একের পর এক জনপ্রিয় চরিত্র। এর মধ্যে রয়েছে হাঁদা-ভোঁদা, বাঁটুল দি গ্রেট, নন্টে-ফন্টে।

গত ২৪ ডিসেম্বর কলকাতার মিন্টো পার্কের একটি বেসরকারি হাসপাতালে বার্ধক্যজনিত অসুস্থতা নিয়ে ভর্তি হন প্রবীণ এই লেখক ও চিত্রশিল্পী। ১৩ জানুয়ারি নারায়ণ দেবনাথের সঙ্গে হাসপাতালে দেখা করেন পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী অরূপ রায়। এ সময় তার হাতে তুলে দেওয়া হয় পদ্মশ্রী সম্মাননা। হাসপাতালের বিছানায় শয্যাশায়ী অবস্থাতেই তিনি তা গ্রহণ করেন। শনিবার রাত সোয়া ৯টা নাগাদ শিল্পীকে ভেন্টিলেশনে দেওয়া হয়।

গত শতাব্দীর পঞ্চাশের দশক থেকেই নারায়ণ দেবনাথের আঁকার সঙ্গে পরিচয় বাঙালি পাঠকের। দেব সাহিত্য কুটির থেকে প্রকাশিত ছোটদের বই হোক কিংবা ‘শুকতারা’র পাতা, তরুণ নারায়ণ দেবনাথের অলংকরণের ম্যাজিক সবাইকে মুগ্ধ করেছিল। পাঠকের আপনজন হয়ে উঠেছিলেন তিনি। ষাটের দশকের গোড়ার দিকে ‘শুকতারা’র সম্পাদকের অনুরোধে ‘হাঁদা ভোঁদা’র জন্ম। খানিক পরে ‘বাঁটুল দি গ্রেট’-এর সঙ্গে পরিচয় খুদে শিক্ষার্থীদের। এসে পড়ে ‘নন্টে ফন্টে’, ‘বাহাদুর বেড়াল’-রা। জনপ্রিয়তায় এদের মতো না হলেও ‘শুঁটকি আর মুটকি’, ‘পটলচাঁদ দ্য ম্যাজিসিয়ান’, ‘গোয়েন্দা কৌশিক রায়’ও বাঙালি পাঠক পড়েছেন।

নারায়ণ দেবনাথের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শোকবার্তায় তিনি লিখেছেন, ‘বিশিষ্ট শিশুসাহিত্যশিল্পী ও কার্টুনিস্ট নারায়ণ দেবনাথের প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। বাঁটুল দি গ্রেট, হাঁদা-ভোঁদা, নন্টে ফন্টে, বাহাদুর বেড়াল প্রভৃতি চরিত্রের স্রষ্টা নারায়ণ দেবনাথ সব বয়সের পাঠকের মনে চিরস্থায়ী আসন লাভ করেছেন। আমি নারায়ণ দেবনাথের পরিবার-পরিজন ও অনুরাগীদের আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি।’

১৯২৫ সালে কলকাতার হাওড়ার শিবপুরে জন্ম নারায়ণ দেবনাথের। ছোটবেলা থেকেই শিল্পের প্রতি ঝোঁক ছিল। বাড়িতে অলংকার তৈরির চল ছিল। ছোট থেকেই গয়নার নকশা তৈরি করতেন তিনি। স্কুলের পড়া শেষে তিনি আর্ট কলেজে ভর্তি হন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ডামাডোলে বন্ধ হয়ে যায় আর্ট কলেজে পড়া। তারপর কয়েকটি বিজ্ঞাপনী সংস্থার হয়ে কাজ করেন। ২০১৩ সালে তাকে সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কার এবং বঙ্গবিভূষণ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। ২০২১ সালে পান পদ্মশ্রী।

বাংলা কমিকসের প্রাণপুরুষ নারায়ণ দেবনাথ আর নেই

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলা চিত্রকাহিনি বা কমিকসের প্রাণপুরুষ নারায়ণ দেবনাথ আর নেই। কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে মঙ্গলবার সকালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর। কয়েক প্রজন্মের বাঙালি কিশোরবেলার সঙ্গী হয়ে রয়েছে নারায়ণ দেবনাথের সৃষ্টি করা একের পর এক জনপ্রিয় চরিত্র। এর মধ্যে রয়েছে হাঁদা-ভোঁদা, বাঁটুল দি গ্রেট, নন্টে-ফন্টে।

গত ২৪ ডিসেম্বর কলকাতার মিন্টো পার্কের একটি বেসরকারি হাসপাতালে বার্ধক্যজনিত অসুস্থতা নিয়ে ভর্তি হন প্রবীণ এই লেখক ও চিত্রশিল্পী। ১৩ জানুয়ারি নারায়ণ দেবনাথের সঙ্গে হাসপাতালে দেখা করেন পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী অরূপ রায়। এ সময় তার হাতে তুলে দেওয়া হয় পদ্মশ্রী সম্মাননা। হাসপাতালের বিছানায় শয্যাশায়ী অবস্থাতেই তিনি তা গ্রহণ করেন। শনিবার রাত সোয়া ৯টা নাগাদ শিল্পীকে ভেন্টিলেশনে দেওয়া হয়।

গত শতাব্দীর পঞ্চাশের দশক থেকেই নারায়ণ দেবনাথের আঁকার সঙ্গে পরিচয় বাঙালি পাঠকের। দেব সাহিত্য কুটির থেকে প্রকাশিত ছোটদের বই হোক কিংবা ‘শুকতারা’র পাতা, তরুণ নারায়ণ দেবনাথের অলংকরণের ম্যাজিক সবাইকে মুগ্ধ করেছিল। পাঠকের আপনজন হয়ে উঠেছিলেন তিনি। ষাটের দশকের গোড়ার দিকে ‘শুকতারা’র সম্পাদকের অনুরোধে ‘হাঁদা ভোঁদা’র জন্ম। খানিক পরে ‘বাঁটুল দি গ্রেট’-এর সঙ্গে পরিচয় খুদে শিক্ষার্থীদের। এসে পড়ে ‘নন্টে ফন্টে’, ‘বাহাদুর বেড়াল’-রা। জনপ্রিয়তায় এদের মতো না হলেও ‘শুঁটকি আর মুটকি’, ‘পটলচাঁদ দ্য ম্যাজিসিয়ান’, ‘গোয়েন্দা কৌশিক রায়’ও বাঙালি পাঠক পড়েছেন।

নারায়ণ দেবনাথের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শোকবার্তায় তিনি লিখেছেন, ‘বিশিষ্ট শিশুসাহিত্যশিল্পী ও কার্টুনিস্ট নারায়ণ দেবনাথের প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। বাঁটুল দি গ্রেট, হাঁদা-ভোঁদা, নন্টে ফন্টে, বাহাদুর বেড়াল প্রভৃতি চরিত্রের স্রষ্টা নারায়ণ দেবনাথ সব বয়সের পাঠকের মনে চিরস্থায়ী আসন লাভ করেছেন। আমি নারায়ণ দেবনাথের পরিবার-পরিজন ও অনুরাগীদের আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি।’

১৯২৫ সালে কলকাতার হাওড়ার শিবপুরে জন্ম নারায়ণ দেবনাথের। ছোটবেলা থেকেই শিল্পের প্রতি ঝোঁক ছিল। বাড়িতে অলংকার তৈরির চল ছিল। ছোট থেকেই গয়নার নকশা তৈরি করতেন তিনি। স্কুলের পড়া শেষে তিনি আর্ট কলেজে ভর্তি হন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ডামাডোলে বন্ধ হয়ে যায় আর্ট কলেজে পড়া। তারপর কয়েকটি বিজ্ঞাপনী সংস্থার হয়ে কাজ করেন। ২০১৩ সালে তাকে সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কার এবং বঙ্গবিভূষণ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। ২০২১ সালে পান পদ্মশ্রী।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন