জেনেভা ক্যাম্পে হাত বাড়ালেই মেলে মাদক

দেশব্যাপী অভিযানের মধ্যেও অবাধে চলছে ব্যবসা * আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অসহায়

  আহমদুল হাসান আসিক ২৩ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জেনেভা ক্যাম্পে হাত বাড়ালেই মেলে মাদক
জেনেভা ক্যাম্প

দেশব্যাপী অভিযানের মধ্যেও রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পে অবাধে চলছে মাদক ব্যবসা। এ ক্যাম্পে হাত বাড়ালেই মিলছে মাদক। এটি দেশে বিহারিদের সবচেয়ে বড় ক্যাম্প। এখানকার অসংখ্য অলিগলি আর ঘুপচি ঘরে প্রায় ৪০ হাজার বিহারির বাস। এই ক্যাম্প ঘিরে গড়ে উঠেছে শক্তিশালী মাদক সিন্ডিকেট।

ঢাকার বাইরে থেকে আসা মাদকের বড় মজুদখানাও এই ক্যাম্প। মাদককে কেন্দ্র করে ক্যাম্পে খুনোখুনির ঘটনাও ঘটছে। তবে এখানে অভিযান চালাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ভয় পায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুলিশ ও মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের একাধিক কর্মকর্তা জানান, জেনেভা ক্যাম্পের মাদক ব্যবসায়ীরা সংঘবদ্ধ। ভেতরে অসংখ্য অলিগলি থাকায় মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে ক্যাম্পের বাইরে আনা কঠিন। আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে অভিযানে গিয়েও অনেক সময় শূন্য হাতে ফিরে আসতে হয়। এ ছাড়া অভিযানে গেলে নারী-পুরুষ মিলে হামলা করে।

ক্যাম্পের বাসিন্দারা বলেন, স্থানীয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় এখানে মাদকের শক্তিশালী সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানে দু-এক খুচরা বিক্রেতা গ্রেফতার হয়। তবে গডফাদাররা থাকে ধরাছোঁয়ার বাইরে। এই ক্যাম্পের মাদকের মূল নিয়ন্ত্রক ইশতিয়াক। শীর্ষ এই মাদক ব্যবসায়ী বিলাসবহুল গাড়িতে করে বিভিন্ন সময় ক্যাম্পে আসে। তবুও তাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা খুঁজে পায় না। তার ঘনিষ্ঠ দুই সহযোগী নাদিম ওরফে পচিশ ও আরশাদ ক্যাম্পে থেকেই মাদক ব্যবসা চালায়। ইশতিয়াকের হয়ে তারা ক্যাম্পে মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করে।

তাদের চার সহযোগী পাচু সেলিম, সাথী, রাজিয়া ও শান্তি পুরো ক্যাম্পে মাদক ছড়িয়ে দেয়। এই সিন্ডিকেটের আরও কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হল- তানভীর, মনির, আরিফ, মুন্না, সীমা, রাজা, বিল্লাল, আরমান, রাকিব, মুক্তার, সোলেমান, মুক্তার, চুন্না কসাই, বিল্লাল ও গুড্ডু।

মঙ্গলবার সকালে জেনেভা ক্যাম্পে দেখা যায়, বৃষ্টির মধ্যে কিশোর ও তরুণরা মাদক বিক্রি করছে। অপরিচিত লোকজন দেখলে তারা তাদের পর্যবেক্ষণ করে। স্কুল-কলেজ পড়ুয়া কাউকে দেখলে তারা জিজ্ঞাসা করে, কিছু লাগবে কিনা। এই প্রতিবেদককে ঘুরতে দেখে একাধিক কিশোর ও তরুণ ক্যাম্পে প্রবেশের কারণ জানতে চায়।

ইয়াবা কেনার কথা জানালে এক কিশোরকে বলে, ‘এখন সময় ভালো না। টাকা বেশি লাগবে।’ এক পিস কত জানতে চাইলে সে জানায়, ‘একশ টাকা বেশি দিতে হবে। সাড়ে তিনশ!’ এ সময় মধ্য বয়সী কয়েকজন নারীকেও ইয়াবা ও গাঁজা বিক্রি করতে দেখা যায়। এই ক্যাম্প থেকে ইয়াবা সংগ্রহ করে বিভিন্ন এলাকার মাদক ব্যবসায়ীরা।

ক্যাম্পের বাসিন্দারা জানান, কারা মাদক ব্যবসা করে তা প্রশাসনের লোকজন জানে। বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি এখান থেকে নিয়মিত মাসোয়ারা নেয়। ক্যাম্পের অনেক নেতা মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। মাসোয়ারা দিয়ে তারা নির্বিঘেœ মাদক ব্যবসা চালাচ্ছে। এতে তাদের কোনো সমস্যা হচ্ছে না।

বিহারি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘এখানে মাদক নিয়ে কথা না বলাই ভালো। বললে আমারও সমস্যা হবে, আপনারও হবে। বরং এসব নিয়ে কথা না বলে চলে যান।’ তার পাশে থাকা গোলাম আলী নামে এক কিশোর বলেন, ‘ভাই আপনি চলে যান। এসব নিয়ে কথা বললে বাইরের লোকের সমস্যা হয়।’ মাদক নিয়ে ক্যাম্পের বাসিন্দারা কথা বলতে আগ্রহী নয়। আবার যারা কথা বলেছেন, তারা নাম প্রকাশ করতে চাননি।

মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মোহাম্মদপুর সার্কেলের পরিদর্শক আবুল কাশেম যুগান্তরকে বলেন, মাদক ব্যবসায়ীদের ধরতে জেনেভা ক্যাম্পে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। মঙ্গলবারও অভিযান চালানো হয়েছে। এদিন তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়।

মোহাম্মদপুর থানার ওসি জামাল উদ্দিন মীর মঙ্গলবার বিকালে যুগান্তরকে বলেন, জেনেভা ক্যাম্পের মাদক ব্যবসায়ীদের ধরতে কয়েক দিন ধরে নিয়মিত অভিযান চলছে। প্রথম সারির মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার না হলেও দ্বিতীয় সারির কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এখনও (মঙ্গলবার বিকাল) জেনেভা ক্যাম্পে অভিযানে আছি।

জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুরে জেনেভা ক্যাম্পে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) ও পুলিশের সহায়তায় মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর অভিযান চালায়। এ সময় আফসার আলম, হাসান ও খোকা নামের তিন খুচরা বিক্রেতাকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে ২০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। এরপর সেখানে মোহাম্মদপুর থানা পুলিশও অভিযান চালায়।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.