চট্টগ্রাম কাস্টমসে সাড়ে ৭ ঘণ্টা শুল্কায়ন বন্ধ
jugantor
সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টের কর্মবিরতি
চট্টগ্রাম কাস্টমসে সাড়ে ৭ ঘণ্টা শুল্কায়ন বন্ধ

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

১৯ মে ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজে কর্মবিরতির কারণে বুধবার সাড়ে ৭ ঘণ্টা সব ধরনের আমদানি পণ্যের শুল্কায়ন কার্যক্রম বন্ধ ছিল।

লাইসেন্স নবায়নে জটিলতা নিরসনের দাবিতে চিটাগাং কাস্টমস ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরোয়ার্ডিং (সিঅ্যান্ডএফ) এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন এদিন সকাল ৯টা থেকে কাজ বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে।

কাস্টম হাউজের প্রধান ফটকে অবস্থান নিয়ে সিঅ্যান্ডএফ নেতারা বিক্ষোভ করেন। তবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ত্বরিতগতিতে তাদের দাবি মেনে নিয়ে সমস্যার সমাধান দেওয়ায় বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট কাজে যোগ দেয়। এতে শুল্কায়ন কার্যক্রম স্বাভাবিক হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম কাস্টম হউজের নিবন্ধিত কিছু সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট লাইসেন্সের গঠনগত পরিবর্তন করা হয়। লাইসেন্স বিক্রি করে দেওয়া, যৌথ বা একক মালিকানাসহ নানা কারণে এ পরিবর্তন হয়। কোম্পানি আইন ও পার্টনারশিপ অ্যাক্ট অনুযায়ী এসব লাইসেন্সের গঠনগত পরিবর্তন করা হলেও চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের লাইসেন্স শাখা এ ধরনের লাইসেন্স নবায়ন করছিল না।

২০২২ সালে নবায়নের জন্য আবেদন করা এমন প্রায় ২০০ লাইসেন্স নবায়ন না করায় সংশ্লিষ্ট মালিকরা বিপাকে পড়েন। তারা মার্চ থেকে দফায় দফায় সময় বাড়িয়ে নিয়ে কাজ করলেও মঙ্গলবার থেকে এসব লাইসেন্সে কাজ করতে দিচ্ছিল না কাস্টম হাউজ।

এ অবস্থায় অনেক আমদানিকারকের পণ্য শুল্কায়নে সমস্যা সৃষ্টি হয়। আবেদন-নিবেদনের পরও কাস্টম হাউজ লাইসেন্স জটিলতা নিরসনে উদ্যোগ না নেওয়ায় বুধবার সকালে আন্দোলনে নামে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন।

অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক কাজী মাহমুদ ইমাম বিলু যুগান্তরকে বলেন, চট্টগ্রাম কাস্টমসের লাইসেন্সিং অথরিটি তথা অতিরিক্ত কমিশনার শফিউদ্দিন আহমেদ লাইসেন্সের গঠনগত পরিবর্তনের বিষয়টি আমলেই নিচ্ছিলেন না। বরং এই পরিবর্তনের কারণে তিনি এ ধরনের অন্তত ২০০ লাইসেন্স নবায়ন না করে আটকে রাখেন।

যে কারণে এসব লাইসেন্স মালিক কাজ করতে পারছিলেন না। এই জটিলতা নিরসনে আমরা কাজ বন্ধ করে বিক্ষোভ করেছি। তবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) আমরা বিষয়টি বোঝাতে সক্ষম হয়েছি।

রাজস্ব বোর্ড দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে পত্র জারি করে। গঠনগত পরিবর্তনকে বিধিসম্মত উল্লেখ করে এসব লাইসেন্স নবায়নের নির্দেশনা দেওয়া হয় চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজকে। সমস্যার সমাধান হওয়ায় আমরা বিকাল থেকে কাজে যোগ দিয়েছি।

সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টের কর্মবিরতি

চট্টগ্রাম কাস্টমসে সাড়ে ৭ ঘণ্টা শুল্কায়ন বন্ধ

 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
১৯ মে ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজে কর্মবিরতির কারণে বুধবার সাড়ে ৭ ঘণ্টা সব ধরনের আমদানি পণ্যের শুল্কায়ন কার্যক্রম বন্ধ ছিল।

লাইসেন্স নবায়নে জটিলতা নিরসনের দাবিতে চিটাগাং কাস্টমস ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরোয়ার্ডিং (সিঅ্যান্ডএফ) এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন এদিন সকাল ৯টা থেকে কাজ বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে।

কাস্টম হাউজের প্রধান ফটকে অবস্থান নিয়ে সিঅ্যান্ডএফ নেতারা বিক্ষোভ করেন। তবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ত্বরিতগতিতে তাদের দাবি মেনে নিয়ে সমস্যার সমাধান দেওয়ায় বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট কাজে যোগ দেয়। এতে শুল্কায়ন কার্যক্রম স্বাভাবিক হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম কাস্টম হউজের নিবন্ধিত কিছু সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট লাইসেন্সের গঠনগত পরিবর্তন করা হয়। লাইসেন্স বিক্রি করে দেওয়া, যৌথ বা একক মালিকানাসহ নানা কারণে এ পরিবর্তন হয়। কোম্পানি আইন ও পার্টনারশিপ অ্যাক্ট অনুযায়ী এসব লাইসেন্সের গঠনগত পরিবর্তন করা হলেও চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের লাইসেন্স শাখা এ ধরনের লাইসেন্স নবায়ন করছিল না।

২০২২ সালে নবায়নের জন্য আবেদন করা এমন প্রায় ২০০ লাইসেন্স নবায়ন না করায় সংশ্লিষ্ট মালিকরা বিপাকে পড়েন। তারা মার্চ থেকে দফায় দফায় সময় বাড়িয়ে নিয়ে কাজ করলেও মঙ্গলবার থেকে এসব লাইসেন্সে কাজ করতে দিচ্ছিল না কাস্টম হাউজ।

এ অবস্থায় অনেক আমদানিকারকের পণ্য শুল্কায়নে সমস্যা সৃষ্টি হয়। আবেদন-নিবেদনের পরও কাস্টম হাউজ লাইসেন্স জটিলতা নিরসনে উদ্যোগ না নেওয়ায় বুধবার সকালে আন্দোলনে নামে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন।

অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক কাজী মাহমুদ ইমাম বিলু যুগান্তরকে বলেন, চট্টগ্রাম কাস্টমসের লাইসেন্সিং অথরিটি তথা অতিরিক্ত কমিশনার শফিউদ্দিন আহমেদ লাইসেন্সের গঠনগত পরিবর্তনের বিষয়টি আমলেই নিচ্ছিলেন না। বরং এই পরিবর্তনের কারণে তিনি এ ধরনের অন্তত ২০০ লাইসেন্স নবায়ন না করে আটকে রাখেন।

যে কারণে এসব লাইসেন্স মালিক কাজ করতে পারছিলেন না। এই জটিলতা নিরসনে আমরা কাজ বন্ধ করে বিক্ষোভ করেছি। তবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) আমরা বিষয়টি বোঝাতে সক্ষম হয়েছি।

রাজস্ব বোর্ড দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে পত্র জারি করে। গঠনগত পরিবর্তনকে বিধিসম্মত উল্লেখ করে এসব লাইসেন্স নবায়নের নির্দেশনা দেওয়া হয় চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজকে। সমস্যার সমাধান হওয়ায় আমরা বিকাল থেকে কাজে যোগ দিয়েছি।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন