পদ্মা সেতুমুখী সারা দেশ সাজসাজ রব
jugantor
পদ্মা সেতুমুখী সারা দেশ সাজসাজ রব

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৫ জুন ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রব

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে সারা দেশে সাজ সাজ রব। সবাই যেন পদ্মা সেতুমুখী। আজ যে যেখানেই থাকুক না কেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উৎসব তাকে ছুঁয়ে যাবে। দিনটিকে রাঙিয়ে তুলতে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে আলোকসজ্জা, ব্যানার, ফেস্টুন ও প্রতীকী সেতুর মাধ্যমে সাজসজ্জা করা হয়েছে। ঢাকার প্রতিটি সড়ক, চত্বর ও স্থাপনার চোখে পড়ে পদ্মা সেতুর ছবি। জাতির এ অর্জন প্রতিটি দেশপ্রেমিক মানুষকে আন্দোলিত করছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, দুই সপ্তাহ ধরে নতুন রূপে সেজেছে বনানীর সেতু ভবন। বিশ্বজুড়ে আলোচিত পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ সেতু কর্তৃপক্ষের নেতৃত্বে বাস্তবায়িত হওয়ায় তাদের উৎসবের মাত্রা কিছুটা বেশি। এছাড়া নগর ভবন, সচিবালয়, সংসদসহ সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উৎসবের ছাপ লক্ষ্য করা যায়। পথেঘাটে, চায়ের কাপে, আড্ডায়-আলোচনায় সেই আনন্দেরই অনুরণন।

পুরান ঢাকার বিভিন্ন সড়ক ও চত্বরে পদ্মা সেতুর ছবি সংবলিত ব্যানার ও ফেস্টুন দেখা গেছে। আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন অঙ্গ-সংগঠনের নেতাদের সৌজন্যে এসব করা হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) উদ্যোগেও বিভিন্ন সড়কে ব্যানার, পোস্টার ও ফেস্টুন সাঁটানো হয়েছে। কাউন্সিলরদের উদ্যোগেও পদ্মা সেতুর প্রচারণা চালানো হয়েছে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) উদ্যোগে ব্যতিক্রমধর্মী প্রচারণা চালানো হয়েছে। পদ্মা সেতুর প্রতিকৃতি সংবলিত প্রচারণা চালানো হয়েছে সাতটি পয়েন্টে। কাওলা ইউটার্ন, আর্মি স্টেডিয়াম ইউটার্ন, চেয়ারম্যানবাড়ী ইউটার্ন, তেজগাঁও ইউটার্ন, সার্ক ফোয়ারা, গুলশান-১ ও বিমান চত্বরে পদ্মা সেতুর প্রতিকৃতি অনন্য মাত্রা যোগ করেছে। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

বরিশাল, বানারীপাড়া : দক্ষিণাঞ্চল থেকে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের উদ্দেশে শুক্রবার ৪৮টি বিলাসবহুল যাত্রীবাহী লঞ্চ রওয়ানা করে। এসব লঞ্চের নোঙর করার ব্যবস্থা করা হয়েছে পদ্মা সেতুসংলগ্ন বাংলাবাজার ঘাটে। এরমধ্যে বরিশাল থেকে ১৪টি লঞ্চ, ভোলা থেকে ৯টি, পিরোজপুর থেকে ৪টি, পটুয়াখালী থেকে ৬টি, ঝালকাঠি থেকে ২টি, বরগুনা থেকে ১টি, শরীয়তপুর থেকে ৮টি, ঢাকার মুন্সীগঞ্জ এবং আরও বিভিন্ন স্থান থেকে ৪টি লঞ্চ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানস্থলে মানুষ নিয়ে যাবে। এর মধ্যে বরিশাল ১ আসনের সংসদ-সদস্য আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে বরিশাল থেকে এমভি সুন্দরবন-৮, এমভি পারাবত-১০, এমভি পারাবত-১২, এমভি সুরভী-৮। বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর নেতৃত্বে এমভি কুয়াকাটা-২, এমভি কীর্তনখোলা-১০, এমভি অ্যাডভেঞ্চার-১। বরিশাল সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টুর নেতৃত্বে এমভি সুন্দরবন-১০, এমভি সুন্দরবন-৯ ও আমতলী থেকে এমভি সুন্দরবন-৭। গৌরনদী পৌরসভার মেয়র হারিসুর রহমান হারিসের নেতৃত্বে সিকারপুর থেকে এমভি মানামী। পিরোজপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন মহারাজের নেতৃত্বে পিরোজপুর থেকে এমভি সুরভী-৯ ও কাউখালী থেকে এমভি পারাবত-৮। পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আলমগীরের নেতৃত্বে পটুয়াখালী থেকে এমভি পূবৈ-১২। ঝালকাঠি ১ আসনের সংসদ-সদস্য আমির হোসেন আমুর নেতৃত্বে ঝালকাঠি ও কাঁঠালিয়া থেকে এমভি সুন্দরবন-১২, এমভি ফারহান-৭। পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়া থেকে মন্ত্রী স ম রেজাউল করিমের নেতৃত্বে এমভি ঈগল-৮। শরীয়তপুর ৩ আসনের সংসদ-সদস্য নাঈম রাজ্জাকের নেতৃত্বে কোদালপুর ঘোষের হাট থানা এমভি ঈগল-৪, ডামুড্যা থেকে এমভি স্বর্ণদ্বীপ-৮, ঢাকা থেকে এমভি রাজধানী-১, এমভি জামাল-৭। পটুয়াখালীর বাউফল পৌরসভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলের নেতৃত্বে নুরাইনপুর লঞ্চ ঘাট থেকে এমভি ঈগল-৫। পটুয়াখালী ২ আসনের সংসদ-সদস্য আ স ম ফিরোজের নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে এমভি স্বর্ণদ্বীপ প্লাস।

ভোলা-২ আসনের সংসদ-সদস্য আলী আজম মুকুলের নেতৃত্বে দৌলতখান থেকে এমভি ফারহান-৩। কলাপাড়া পৌরসভার মেয়র বিপুল হাওলাদার ও পটুয়াখালী ৪ আসনের সংসদ-সদস্য মহিব্বুর রহমান মহিবের নেতৃত্বে খেপুপাড়া থেকে এমভি পূবালী-৬। মুলাদী উপজেলা চেয়ারম্যান মিঠু খার নেতৃত্বে মুলাদী থেকে এমভি মানিক-৯। ভোলার সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের নেতৃত্বে ভোলা থেকে এমভি কর্ণফুলী-১০।

ভোলা ৪ আসনের সংসদ-সদস্য আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকবের নেতৃত্বে ঘোষেরহাট থেকে এমভি কর্ণফুলী-৯ ও বেতুয়া থেকে এমভি কর্ণফুলী-১২, এমভি কর্ণফুলী-১৩, এমভি তাসরিফ-৪। ভোলা ৩ আসনের সংসদ-সদস্য নূরুন্নবী চৌধুরী শাওনের নেতৃত্বে মঙ্গল সিকদার ঘাট থেকে এমভি তাসরিফ-৩ ও লালমোহন থেকে এমভি গ্লোরী অব শ্রীনগর-৭, এমভি শ্রীনগর-৮।

শরীয়তপুর ২ আসনের সংসদ-সদস্য এনামুল হক শামীমের নেতৃত্বে মুন্সীগঞ্জ ও সুরেশ্বর থেকে এমভি নাগরিক, এমভি মিরাজ-১, এমভি মিরাজ-৬, এমভি মিরাজ-৭, এমভি পূবালী, এমভি জামাল-৯, এমভি গাজী এক্সপ্রেস-৪। মঠবাড়িয়ার তুষখালী উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মিরাজের নেতৃত্বে এমভি মর্নিংসান-৯। বরিশাল ৪ আসনের সংসদ-সদস্য পংকজ দেবনাথের নেতৃত্বে ভাসানচর থেকে এমভি রাজহংস-১০, এমভি সম্রাট-৭, বরিশাল ২ আসনের সংসদ-সদস্য শাহে আলম তালুকদারের নেতৃত্বে উজিরপুর থেকে এমভি প্রিন্স আওলাদ-৪ ও পটুয়াখালী ৩ আসনের সংসদ-সদস্য এসএম শাহাজাদার নেতৃত্বে দশমিনা ও গলাচিপা থেকে এম.ভি জামাল-৫ ও এম.ভি জামাল-৬।

বরিশালের অতিরিক্ত রেঞ্জ ডিআইজি এহছান উল্লাহ বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে যে কোনো ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড প্রতিরোধে মহানগরীর ৪ থানা ও জেলার ১০ থানায় পুলিশ কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

শরীয়তপুর : শরীয়তপুর জেলা শহরসহ ৬টি উপজেলা থেকে আওয়ামী লীগের ১ লাখ নেতাকর্মী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন বলে জানিয়েছেন শরীয়তপুর-১ আসনের সংসদ-সদস্য ইকবাল হোসেন অপু। পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ও মাদারীপুরের শিবচরের কাঁঠালবাড়ী ফেরিঘাট এলাকায় জনসভা ঘিরে শরীয়তপুরেও রং-বেরঙের ব্যানার-ফেস্টুন, বড় বড় তোরণ তৈরিসহ উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। পদ্মা পাড়ের মোসলেম মাদবর বলেন, বাপ-দাদার ভিটেমাটি পদ্মা সেতুর জন্য দিয়ে আজ আমরা ধন্য। নাওডোবা এলাকার খবির ফরাজি বলেন, ঈদের চেয়েও বেশি খুশি আমরা। পদ্মা সেতু চালু হলে দ্রুত ঢাকা যেতে পারব। এলাকার উন্নতি হবে।

টাঙ্গাইল : দিনটি স্মরণীয় করে রাখতে উৎসবে মেতেছে টাঙ্গাইলও। জেলা প্রশাসন ও দলীয়ভাবে নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। সারা দেশের ন্যায় টাঙ্গাইলেও চলছে উৎসবের আমেজ। জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গনি জানান, আজ জেলার সব মসজিদে বাদ ফজর দোয়া ও সুবিধাজনক সময়ে মন্দির, গির্জা, প্যাগোডা ও অন্যান্য উপাসনালয়ে প্রার্থনা করা হবে। সকালে শহরের শহীদ স্মৃতি পৌর উদ্যানে বড় পর্দায় উদ্বোধন অনুষ্ঠান উপভোগ করবে সবাই। পরে বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং জয় বাংলা আশ্রয়ণ সাংস্কৃতিক সংসদের পরিবেশনায় বাউশা আশ্রয়ণ প্রকল্পে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আনন্দভোজের আয়োজন করা হয়েছে। টাঙ্গাইলে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ‘পদ্মা সেতু ফুটবল প্রতিযোগিতা’র আয়োজন করা হয়েছে।

পদ্মা সেতু নিয়ে গান বাঁধলেন ভোলার দৃষ্টিহারা শিল্পী মনজু : পদ্মা সেতু নিয়ে গান বেঁধেছেন ভোলার সেরা শিল্পী (সম্প্রতি দৃষ্টিশক্তি হারানো) মনজুর আহমেদ। শুক্রবার শিল্পী মনজুর আহমেদকে দেখতে যান জেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব। এ সময় স্থানীয় ৩০ জন শিল্পীকে সঙ্গে নিয়ে মনজুর আহমেদ নিজের লেখা ও সুরে গানটি পরিবেশন করেন। দৃষ্টিশক্তি ফেরাতে প্রতিভাবান শিল্পী মনজুর আহমেদের উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ভারতের চেন্নাইয়ে শংকর নেত্রালয় হাসপাতালে পাঠানোর উদ্যোগ নেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

লালমোহন (ভোলা) : লালমোহন ও তজুমদ্দিন থেকে ৬টি লঞ্চে ১০ হাজার মানুষ পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাত্রা করেছেন। ভোলা-৩ আসনের সংসদ-সদস্য নূরুন্নবী চৌধুরী শাওনের নেতৃত্বে শুক্রবার বিকালে লালমোহন থেকে ৫টি ও তজুমদ্দিন থেকে ১টি লঞ্চে এসব মানুষ রওয়ানা দেন।

কাউখালী (পিরোজপুর) : কাউখালীর সন্ধ্যা নদীর মোহনায় মিলিত হয়ে জেলার ১৫ হাজার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী আতশবাজি ফুটিয়ে যাত্রা করেন পদ্মা সেতুর উদ্দেশে। তাদের বহনকারী ৬টি বহুতল লঞ্চে আলোকসজ্জা করা হয়েছে। লঞ্চগুলো হলো-কীর্তনখোলা-১০, যুবরাজ-৭, সুরভী-৯, পারাবত-৮, মর্নিংসান-৯ ও ঈগল-৮।

ভাঙ্গা (ফরিদপুর) : পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে তিন চাকার গাড়ির ওপর বানানো হয়েছে কাঠের তৈরি বাহারি রঙের এক নৌকা। সেই নৌকাটিতে গান গেয়ে ও নাচের মাধ্যমে মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাটের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনস্থলের আশপাশে মাতিয়ে রাখছেন ৩০ জন মাঝিমাল্লা।

কাঁঠালিয়া (ঝালকাঠি) : কাঁঠালিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা শুক্রবার বিকাল ৫টায় কাঁঠালিয়া লঞ্চঘাট থেকে ফারহান-৭ নামের একটি লঞ্চে মাওয়ার উদ্দেশে রওয়ানা হন। এর আগে বিকালে উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের শত শত নেতাকর্মী উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে বর্ণাঢ্য একটি শোভাযাত্রা নিয়ে লঞ্চঘাটে পৌঁছান।

পটুয়াখালী : জেলা আওয়ামী লীগের ১৫-২০ হাজার নেতাকর্মী পদ্মা সেতুর অনুষ্ঠানে যাবেন। জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি কাজী আলমগীর বলেন, শুক্রবার বিকাল ৫টা থেকে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে তারা রওয়ানা হন। এর মধ্যে পটুয়াখালী সদর ও দুমকী মিলিয়ে দুটি লঞ্চ, গলাচিপা ও দশমিনা উপজেলা মিলিয়ে দুটি লঞ্চ, কলাপাড়া রাঙ্গাবালী মিলিয়ে একটি লঞ্চ, বাউফল থেকে ৩টি লঞ্চ ও মির্জাগঞ্জ থেকে ১টি লঞ্চে রওয়ানা করেন। এদিকে পদ্মা সেতু উদ্বোধন ঘিরে জেলা শহর বর্ণিল সাজে সজ্জিত করা হয়েছে। শহরের ঝাউতলা মোড়ে ৩ দিনব্যাপী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

পদ্মা সেতুমুখী সারা দেশ সাজসাজ রব

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৫ জুন ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
রব
পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে রংবেরঙের বাতিতে সেজেছে ঢাকা-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ের দুপাশ। ভাঙ্গার চৌরাস্তা থেকে শুক্রবার তোলা -যুগান্তর

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে সারা দেশে সাজ সাজ রব। সবাই যেন পদ্মা সেতুমুখী। আজ যে যেখানেই থাকুক না কেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উৎসব তাকে ছুঁয়ে যাবে। দিনটিকে রাঙিয়ে তুলতে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে আলোকসজ্জা, ব্যানার, ফেস্টুন ও প্রতীকী সেতুর মাধ্যমে সাজসজ্জা করা হয়েছে। ঢাকার প্রতিটি সড়ক, চত্বর ও স্থাপনার চোখে পড়ে পদ্মা সেতুর ছবি। জাতির এ অর্জন প্রতিটি দেশপ্রেমিক মানুষকে আন্দোলিত করছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, দুই সপ্তাহ ধরে নতুন রূপে সেজেছে বনানীর সেতু ভবন। বিশ্বজুড়ে আলোচিত পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ সেতু কর্তৃপক্ষের নেতৃত্বে বাস্তবায়িত হওয়ায় তাদের উৎসবের মাত্রা কিছুটা বেশি। এছাড়া নগর ভবন, সচিবালয়, সংসদসহ সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উৎসবের ছাপ লক্ষ্য করা যায়। পথেঘাটে, চায়ের কাপে, আড্ডায়-আলোচনায় সেই আনন্দেরই অনুরণন।

পুরান ঢাকার বিভিন্ন সড়ক ও চত্বরে পদ্মা সেতুর ছবি সংবলিত ব্যানার ও ফেস্টুন দেখা গেছে। আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন অঙ্গ-সংগঠনের নেতাদের সৌজন্যে এসব করা হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) উদ্যোগেও বিভিন্ন সড়কে ব্যানার, পোস্টার ও ফেস্টুন সাঁটানো হয়েছে। কাউন্সিলরদের উদ্যোগেও পদ্মা সেতুর প্রচারণা চালানো হয়েছে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) উদ্যোগে ব্যতিক্রমধর্মী প্রচারণা চালানো হয়েছে। পদ্মা সেতুর প্রতিকৃতি সংবলিত প্রচারণা চালানো হয়েছে সাতটি পয়েন্টে। কাওলা ইউটার্ন, আর্মি স্টেডিয়াম ইউটার্ন, চেয়ারম্যানবাড়ী ইউটার্ন, তেজগাঁও ইউটার্ন, সার্ক ফোয়ারা, গুলশান-১ ও বিমান চত্বরে পদ্মা সেতুর প্রতিকৃতি অনন্য মাত্রা যোগ করেছে। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

বরিশাল, বানারীপাড়া : দক্ষিণাঞ্চল থেকে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের উদ্দেশে শুক্রবার ৪৮টি বিলাসবহুল যাত্রীবাহী লঞ্চ রওয়ানা করে। এসব লঞ্চের নোঙর করার ব্যবস্থা করা হয়েছে পদ্মা সেতুসংলগ্ন বাংলাবাজার ঘাটে। এরমধ্যে বরিশাল থেকে ১৪টি লঞ্চ, ভোলা থেকে ৯টি, পিরোজপুর থেকে ৪টি, পটুয়াখালী থেকে ৬টি, ঝালকাঠি থেকে ২টি, বরগুনা থেকে ১টি, শরীয়তপুর থেকে ৮টি, ঢাকার মুন্সীগঞ্জ এবং আরও বিভিন্ন স্থান থেকে ৪টি লঞ্চ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানস্থলে মানুষ নিয়ে যাবে। এর মধ্যে বরিশাল ১ আসনের সংসদ-সদস্য আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে বরিশাল থেকে এমভি সুন্দরবন-৮, এমভি পারাবত-১০, এমভি পারাবত-১২, এমভি সুরভী-৮। বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর নেতৃত্বে এমভি কুয়াকাটা-২, এমভি কীর্তনখোলা-১০, এমভি অ্যাডভেঞ্চার-১। বরিশাল সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টুর নেতৃত্বে এমভি সুন্দরবন-১০, এমভি সুন্দরবন-৯ ও আমতলী থেকে এমভি সুন্দরবন-৭। গৌরনদী পৌরসভার মেয়র হারিসুর রহমান হারিসের নেতৃত্বে সিকারপুর থেকে এমভি মানামী। পিরোজপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন মহারাজের নেতৃত্বে পিরোজপুর থেকে এমভি সুরভী-৯ ও কাউখালী থেকে এমভি পারাবত-৮। পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আলমগীরের নেতৃত্বে পটুয়াখালী থেকে এমভি পূবৈ-১২। ঝালকাঠি ১ আসনের সংসদ-সদস্য আমির হোসেন আমুর নেতৃত্বে ঝালকাঠি ও কাঁঠালিয়া থেকে এমভি সুন্দরবন-১২, এমভি ফারহান-৭। পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়া থেকে মন্ত্রী স ম রেজাউল করিমের নেতৃত্বে এমভি ঈগল-৮। শরীয়তপুর ৩ আসনের সংসদ-সদস্য নাঈম রাজ্জাকের নেতৃত্বে কোদালপুর ঘোষের হাট থানা এমভি ঈগল-৪, ডামুড্যা থেকে এমভি স্বর্ণদ্বীপ-৮, ঢাকা থেকে এমভি রাজধানী-১, এমভি জামাল-৭। পটুয়াখালীর বাউফল পৌরসভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলের নেতৃত্বে নুরাইনপুর লঞ্চ ঘাট থেকে এমভি ঈগল-৫। পটুয়াখালী ২ আসনের সংসদ-সদস্য আ স ম ফিরোজের নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে এমভি স্বর্ণদ্বীপ প্লাস।

ভোলা-২ আসনের সংসদ-সদস্য আলী আজম মুকুলের নেতৃত্বে দৌলতখান থেকে এমভি ফারহান-৩। কলাপাড়া পৌরসভার মেয়র বিপুল হাওলাদার ও পটুয়াখালী ৪ আসনের সংসদ-সদস্য মহিব্বুর রহমান মহিবের নেতৃত্বে খেপুপাড়া থেকে এমভি পূবালী-৬। মুলাদী উপজেলা চেয়ারম্যান মিঠু খার নেতৃত্বে মুলাদী থেকে এমভি মানিক-৯। ভোলার সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের নেতৃত্বে ভোলা থেকে এমভি কর্ণফুলী-১০।

ভোলা ৪ আসনের সংসদ-সদস্য আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকবের নেতৃত্বে ঘোষেরহাট থেকে এমভি কর্ণফুলী-৯ ও বেতুয়া থেকে এমভি কর্ণফুলী-১২, এমভি কর্ণফুলী-১৩, এমভি তাসরিফ-৪। ভোলা ৩ আসনের সংসদ-সদস্য নূরুন্নবী চৌধুরী শাওনের নেতৃত্বে মঙ্গল সিকদার ঘাট থেকে এমভি তাসরিফ-৩ ও লালমোহন থেকে এমভি গ্লোরী অব শ্রীনগর-৭, এমভি শ্রীনগর-৮।

শরীয়তপুর ২ আসনের সংসদ-সদস্য এনামুল হক শামীমের নেতৃত্বে মুন্সীগঞ্জ ও সুরেশ্বর থেকে এমভি নাগরিক, এমভি মিরাজ-১, এমভি মিরাজ-৬, এমভি মিরাজ-৭, এমভি পূবালী, এমভি জামাল-৯, এমভি গাজী এক্সপ্রেস-৪। মঠবাড়িয়ার তুষখালী উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মিরাজের নেতৃত্বে এমভি মর্নিংসান-৯। বরিশাল ৪ আসনের সংসদ-সদস্য পংকজ দেবনাথের নেতৃত্বে ভাসানচর থেকে এমভি রাজহংস-১০, এমভি সম্রাট-৭, বরিশাল ২ আসনের সংসদ-সদস্য শাহে আলম তালুকদারের নেতৃত্বে উজিরপুর থেকে এমভি প্রিন্স আওলাদ-৪ ও পটুয়াখালী ৩ আসনের সংসদ-সদস্য এসএম শাহাজাদার নেতৃত্বে দশমিনা ও গলাচিপা থেকে এম.ভি জামাল-৫ ও এম.ভি জামাল-৬।

বরিশালের অতিরিক্ত রেঞ্জ ডিআইজি এহছান উল্লাহ বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে যে কোনো ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড প্রতিরোধে মহানগরীর ৪ থানা ও জেলার ১০ থানায় পুলিশ কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

শরীয়তপুর : শরীয়তপুর জেলা শহরসহ ৬টি উপজেলা থেকে আওয়ামী লীগের ১ লাখ নেতাকর্মী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন বলে জানিয়েছেন শরীয়তপুর-১ আসনের সংসদ-সদস্য ইকবাল হোসেন অপু। পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ও মাদারীপুরের শিবচরের কাঁঠালবাড়ী ফেরিঘাট এলাকায় জনসভা ঘিরে শরীয়তপুরেও রং-বেরঙের ব্যানার-ফেস্টুন, বড় বড় তোরণ তৈরিসহ উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। পদ্মা পাড়ের মোসলেম মাদবর বলেন, বাপ-দাদার ভিটেমাটি পদ্মা সেতুর জন্য দিয়ে আজ আমরা ধন্য। নাওডোবা এলাকার খবির ফরাজি বলেন, ঈদের চেয়েও বেশি খুশি আমরা। পদ্মা সেতু চালু হলে দ্রুত ঢাকা যেতে পারব। এলাকার উন্নতি হবে।

টাঙ্গাইল : দিনটি স্মরণীয় করে রাখতে উৎসবে মেতেছে টাঙ্গাইলও। জেলা প্রশাসন ও দলীয়ভাবে নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। সারা দেশের ন্যায় টাঙ্গাইলেও চলছে উৎসবের আমেজ। জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গনি জানান, আজ জেলার সব মসজিদে বাদ ফজর দোয়া ও সুবিধাজনক সময়ে মন্দির, গির্জা, প্যাগোডা ও অন্যান্য উপাসনালয়ে প্রার্থনা করা হবে। সকালে শহরের শহীদ স্মৃতি পৌর উদ্যানে বড় পর্দায় উদ্বোধন অনুষ্ঠান উপভোগ করবে সবাই। পরে বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং জয় বাংলা আশ্রয়ণ সাংস্কৃতিক সংসদের পরিবেশনায় বাউশা আশ্রয়ণ প্রকল্পে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আনন্দভোজের আয়োজন করা হয়েছে। টাঙ্গাইলে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ‘পদ্মা সেতু ফুটবল প্রতিযোগিতা’র আয়োজন করা হয়েছে।

পদ্মা সেতু নিয়ে গান বাঁধলেন ভোলার দৃষ্টিহারা শিল্পী মনজু : পদ্মা সেতু নিয়ে গান বেঁধেছেন ভোলার সেরা শিল্পী (সম্প্রতি দৃষ্টিশক্তি হারানো) মনজুর আহমেদ। শুক্রবার শিল্পী মনজুর আহমেদকে দেখতে যান জেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব। এ সময় স্থানীয় ৩০ জন শিল্পীকে সঙ্গে নিয়ে মনজুর আহমেদ নিজের লেখা ও সুরে গানটি পরিবেশন করেন। দৃষ্টিশক্তি ফেরাতে প্রতিভাবান শিল্পী মনজুর আহমেদের উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ভারতের চেন্নাইয়ে শংকর নেত্রালয় হাসপাতালে পাঠানোর উদ্যোগ নেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

লালমোহন (ভোলা) : লালমোহন ও তজুমদ্দিন থেকে ৬টি লঞ্চে ১০ হাজার মানুষ পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাত্রা করেছেন। ভোলা-৩ আসনের সংসদ-সদস্য নূরুন্নবী চৌধুরী শাওনের নেতৃত্বে শুক্রবার বিকালে লালমোহন থেকে ৫টি ও তজুমদ্দিন থেকে ১টি লঞ্চে এসব মানুষ রওয়ানা দেন।

কাউখালী (পিরোজপুর) : কাউখালীর সন্ধ্যা নদীর মোহনায় মিলিত হয়ে জেলার ১৫ হাজার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী আতশবাজি ফুটিয়ে যাত্রা করেন পদ্মা সেতুর উদ্দেশে। তাদের বহনকারী ৬টি বহুতল লঞ্চে আলোকসজ্জা করা হয়েছে। লঞ্চগুলো হলো-কীর্তনখোলা-১০, যুবরাজ-৭, সুরভী-৯, পারাবত-৮, মর্নিংসান-৯ ও ঈগল-৮।

ভাঙ্গা (ফরিদপুর) : পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে তিন চাকার গাড়ির ওপর বানানো হয়েছে কাঠের তৈরি বাহারি রঙের এক নৌকা। সেই নৌকাটিতে গান গেয়ে ও নাচের মাধ্যমে মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাটের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনস্থলের আশপাশে মাতিয়ে রাখছেন ৩০ জন মাঝিমাল্লা।

কাঁঠালিয়া (ঝালকাঠি) : কাঁঠালিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা শুক্রবার বিকাল ৫টায় কাঁঠালিয়া লঞ্চঘাট থেকে ফারহান-৭ নামের একটি লঞ্চে মাওয়ার উদ্দেশে রওয়ানা হন। এর আগে বিকালে উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের শত শত নেতাকর্মী উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে বর্ণাঢ্য একটি শোভাযাত্রা নিয়ে লঞ্চঘাটে পৌঁছান।

পটুয়াখালী : জেলা আওয়ামী লীগের ১৫-২০ হাজার নেতাকর্মী পদ্মা সেতুর অনুষ্ঠানে যাবেন। জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি কাজী আলমগীর বলেন, শুক্রবার বিকাল ৫টা থেকে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে তারা রওয়ানা হন। এর মধ্যে পটুয়াখালী সদর ও দুমকী মিলিয়ে দুটি লঞ্চ, গলাচিপা ও দশমিনা উপজেলা মিলিয়ে দুটি লঞ্চ, কলাপাড়া রাঙ্গাবালী মিলিয়ে একটি লঞ্চ, বাউফল থেকে ৩টি লঞ্চ ও মির্জাগঞ্জ থেকে ১টি লঞ্চে রওয়ানা করেন। এদিকে পদ্মা সেতু উদ্বোধন ঘিরে জেলা শহর বর্ণিল সাজে সজ্জিত করা হয়েছে। শহরের ঝাউতলা মোড়ে ৩ দিনব্যাপী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন