যুক্তরাষ্ট্রে পরিত্যক্ত লরিতে মিলল ৪৬ অভিবাসীর লাশ
jugantor
যুক্তরাষ্ট্রে পরিত্যক্ত লরিতে মিলল ৪৬ অভিবাসীর লাশ

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৯ জুন ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে একটি পরিত্যক্ত লরি থেকে ৪৬ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার টেক্সাসের সান অ্যান্টোনিও শহরের উপকণ্ঠে লরিটির সন্ধান পাওয়া যায়। সেটি থেকে জীবিত চারটি শিশুসহ ১৬ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহত ও অসুস্থরা অভিবাসী বলে ধারণা করা হচ্ছে। খবর বিবিসি ও সিএনএনের।

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্ত থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরে সান অ্যান্টোনিও শহরতলী অবস্থিত। এটি মানব পাচার ও মাদক চোরাচালানের রুট হিসাবে বেশ পরিচিত। শহরতলির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রেললাইনের পাশে লরিটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়েছিল। সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করা ছবিতে দেখা যায়-জরুরি সেবা বিভাগের কয়েকজন সদস্য লরিটি ঘিরে রেখেছেন। লরি চালকের হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। পুলিশ চালকের খোঁজে অভিযান চালাচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে এ ব্যাপারে স্থানীয় পুলিশ এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক কোনো বক্তব্য দেয়নি। কীভাবে ঘটনাটি ঘটেছে তা স্পষ্ট নয়।

ফায়ার সার্ভিসের একজন সদস্য জানান, অভিবাসীরা প্রচণ্ড গরমের শিকার হয়। হিট স্ট্রোকে অনেকের মৃত্যু হয়েছে। অনেকে আবার মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ে। অসুস্থদের উদ্ধারে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে সান অ্যান্টোনিও শহরে গ্রীষ্মকাল চলছে। স্থানীয় সময় সোমবার সেখানে তাপমাত্রা ৪৯ দশমিক ৪ ডিগ্রিতে গিয়ে ঠেকে।

এদিকে এ প্রাণহানির জন্য প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে দায়ী করেছেন টেক্সাসের গভর্নর গ্রেগ অ্যাবোট। এ প্রাণহানি বাইডেনের ‘প্রাণঘাতী উন্মুক্ত সীমান্ত নীতির’ ফলাফল বলেও তিনি মন্তব্য করেন। মেক্সিকোর পররাষ্ট্রমন্ত্রী মার্সেলো এবরার্দ বলেন, দেশটির কনস্যুলেট প্রধান ঘটনাস্থলের পথে রয়েছেন। তিনি জানান, ভুক্তভোগীরা কোন দেশের নাগরিক, তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রে পরিত্যক্ত লরিতে মিলল ৪৬ অভিবাসীর লাশ

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৯ জুন ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে একটি পরিত্যক্ত লরি থেকে ৪৬ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার টেক্সাসের সান অ্যান্টোনিও শহরের উপকণ্ঠে লরিটির সন্ধান পাওয়া যায়। সেটি থেকে জীবিত চারটি শিশুসহ ১৬ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহত ও অসুস্থরা অভিবাসী বলে ধারণা করা হচ্ছে। খবর বিবিসি ও সিএনএনের।

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্ত থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরে সান অ্যান্টোনিও শহরতলী অবস্থিত। এটি মানব পাচার ও মাদক চোরাচালানের রুট হিসাবে বেশ পরিচিত। শহরতলির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রেললাইনের পাশে লরিটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়েছিল। সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করা ছবিতে দেখা যায়-জরুরি সেবা বিভাগের কয়েকজন সদস্য লরিটি ঘিরে রেখেছেন। লরি চালকের হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। পুলিশ চালকের খোঁজে অভিযান চালাচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে এ ব্যাপারে স্থানীয় পুলিশ এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক কোনো বক্তব্য দেয়নি। কীভাবে ঘটনাটি ঘটেছে তা স্পষ্ট নয়।

ফায়ার সার্ভিসের একজন সদস্য জানান, অভিবাসীরা প্রচণ্ড গরমের শিকার হয়। হিট স্ট্রোকে অনেকের মৃত্যু হয়েছে। অনেকে আবার মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ে। অসুস্থদের উদ্ধারে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে সান অ্যান্টোনিও শহরে গ্রীষ্মকাল চলছে। স্থানীয় সময় সোমবার সেখানে তাপমাত্রা ৪৯ দশমিক ৪ ডিগ্রিতে গিয়ে ঠেকে।

এদিকে এ প্রাণহানির জন্য প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে দায়ী করেছেন টেক্সাসের গভর্নর গ্রেগ অ্যাবোট। এ প্রাণহানি বাইডেনের ‘প্রাণঘাতী উন্মুক্ত সীমান্ত নীতির’ ফলাফল বলেও তিনি মন্তব্য করেন। মেক্সিকোর পররাষ্ট্রমন্ত্রী মার্সেলো এবরার্দ বলেন, দেশটির কনস্যুলেট প্রধান ঘটনাস্থলের পথে রয়েছেন। তিনি জানান, ভুক্তভোগীরা কোন দেশের নাগরিক, তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন