বাংলাদেশ ৫ বছরে ১৯ ধাপ এগিয়েছে
jugantor
জঙ্গিবাদসংক্রান্ত গ্লোবাল টেরোরিজম সূচক
বাংলাদেশ ৫ বছরে ১৯ ধাপ এগিয়েছে
হলি আর্টিজান হামলার ৬ বছর কাল

  সিরাজুল ইসলাম  

৩০ জুন ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে নানা কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ায় গ্লোবাল টেরোরিজম সূচকে বেশ উন্নতি করেছে বাংলাদেশ।

জঙ্গিবাদের ঝুঁকি বিবেচনায় এই সূচকে পাঁচ বছরে ১৯ ধাপ এগিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ছয় বছর পূর্তি হচ্ছে।

২০১৬ সালের ১ জুলাই এ ঘটনা ঘটে। ২০১৬ সালে যখন ভয়াবহ হলি আর্টিজান হামলার ঘটনা ঘটে তখন সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ২২তম। ওই হামলার পর দেশে জঙ্গি হামলার ঝুঁকি আরও বেড়ে যায়।

তাই পরের বছর ২০১৭ সালে ঝুঁকি বিবেচনায় বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ২১তম। এরপর প্রতিবছর গ্লোবাল টেরোরিজম সূচকে বাংলাদেশের অবস্থার উন্নতি হয়। ২০১৮ সালে ২৫, ২০১৯ সালে ৩১, ২০২০ সালে ৩৩ এবং ২০২১ সালে ৪০তম স্থানে উঠে আসে বাংলাদেশ।

২০২২ সালে বাংলাদেশ ৪০তম স্থান ধরে রেখেছে। বাংলাদেশের স্কোর চার দশকি ৪১১। টেরোরিজম ইনডেক্স র‌্যাংকিং পর্যালোচনা করে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানায়, এই মুহূর্তে জঙ্গিবাদ বিবেচনায় সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে আছে আফগানিস্তান। নয় দশমিক ১০৯ স্কোর নিয়ে বৈশ্বিক তালিকায় তাদের অবস্থান শীর্ষে। তালিকার দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে ইরাক এবং সোমালিয়া। এই দুটি দেশের স্কোর যথাক্রমে আট দশমিক ৫১১ এবং আট দশমিক ৩৯৮। জঙ্গি ঝুঁকি বিবেচনায় দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি নিরাপদ অবস্থানে ভুটান। তাদের পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। বৈশ্বিক তালিকায় তাদের অবস্থান ১৩৫। আফগানিস্তানের অবস্থান যথারীতি এক নম্বরে। এ তালিকায় পাকিস্তান ৭ এবং ভারত আট নম্বরে। আর শ্রীলংকার অবস্থানের ২০তম স্থানে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার এবং কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান আসাদুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, জঙ্গিবাদ দমনে শুধু অভিযানই যথেষ্ট ছিল না। তাই সারা দেশে জঙ্গিবাদ বিরোধী ব্যাপক প্রচারণা চালানো হয়। আলেমা, ওলামা, ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব, মাদ্রসার ছাত্র-শিক্ষকসহ সবাই জঙ্গিবাদবিরোধী প্রচারণায় নেমে পড়ে। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী ঘৃণা ও বিক্ষোভ তৈরি হয়। অভিযানে যেসব জঙ্গি মারা যায়, তাদের লাশ কোনো পরিবারের সদস্য গ্রহণ করেনি। একদিকে জঙ্গিদের প্রতি সব মহলের ঘৃণা, অন্যদিকে ইরাক-সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেট (আইএস) আস্তে আস্তে দুর্বল হয়ে পড়ে। তাই দেশীয় জঙ্গিদের অনুপ্রেরণার জায়গায় ধাক্কা খায়। তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সরকার এবং সব মহলের সমন্বিত কার্যক্রমের কারণেই দেশে এখন জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে। গত দুই বছরে তারা কোনো হামলা চালাতে পারেনি। আমরা জঙ্গিদের নেটওয়ার্ক ভেঙে দিয়েছি। তারা কিছুদিন আগেও অনলাইনে বেশ সক্রিয় ছিল। তাদের অনলাইন নেটওয়ার্কও নিয়ন্ত্রণে রেখেছি।

হলি আর্টিজান বেকারিতে ভয়াবহ জঙ্গি হামলায় দেশি-বিদেশি ২০ জনকে হত্যা করা হয়। নৃশংস এ হামলায় নয়জন ইতালীয়, সাতজন জাপানি, একজন ভারতীয়, একজন বাংলাদেশি-আমেরিকান দ্বৈত নাগরিক ও দুজন বাংলাদেশি নিহত হন। এছাড়া জঙ্গিদের প্রতিহত করতে গিয়ে পুলিশ কর্মকর্তাও নিহত হন। তারা হলেন, বনানী থানার ওই সময়ের ওসি সালাউদ্দিন আহমেদ ও ডিএমপির সহকারী পুলিশ কমিশনার রবিউল ইসলাম।

সম্প্রতি প্রকাশিত কাউন্টার টেরোরিজম জার্নালে পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, ২০১৬ সালে দেশে যখন হলি আর্টিজান হামলার ঘটনা ঘটে তখন ইউরোপ এবং আমেরিকার বিভিন্ন দেশেও সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। ওই সময়টায় আগ মুহূর্তে বিশ্বব্যাপী জঙ্গিবাদের একটি জাগরণ তৈরি হয়। এর উৎস খুঁজতে গেলে দেখা যায়, ইরাক-সিরিয়ায় কথিত ইসলামিক স্টেটের (আইএস) ঘোষণা। পৃথিবীর দেশে দেশে তরুণ-তরুণী, ইঞ্জিনিয়ার, ডাক্তার, আইটি বিশেষজ্ঞদের সিরিয়ায় যেতে আহ্বান জানানো হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে অনেকে সেখানে যান। কেউ কেউ পরিবার-পরিজনসহ যান। একপর্যায়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ইরাক ও সিরিয়ায় গমনে কড়াকড়ি আরোপ করে। তখন হুকুম আসে যারা ইসলামিক স্টেট বা শরিয়া আইন কায়েম করতে চায় তারা সিরিয়া-ইরাকে আসতে পারলে ভালো। না আসতে পারলে নিজ নিজ দেশে এটা কায়েম করতে পারে। এতে অনুপ্রাণিত হয়েই পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অনেক ঘটনা ঘটে। বাংলাদেশেও এর প্রভাব পড়ে। একই সময়ে আল কায়দা ইন্ডিয়ান সাব কন্টিনেন্ট (একিউআইএস) ঘোষণা করা হয়। তখন আল কায়দার আদর্শে বিশ্বাসী তরুণ-তরুণীরা অনুপ্রাণিত হয়ে কিলিং মিশনে যোগ দেয়। ২০১৫ সালে অভিজিৎ হত্যাসহ বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটায়। ২০১৬ সালে জুলহাস মান্নানসহ কয়েকটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এগুলো হলো ধারাবাহিকতা।

পুলিশ জানায়, ২০১৬ সালের এপ্রিলে রাজধানীর কলাবাগানে জুলহাস মান্নান এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যধাপক রেজাউল করিম হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। জুলহাস মান্নানের চেয়ে রেজাউল করিম অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হলেও জুলহাস মান্নানের ঘটনাটি দেশ-বিদেশে বেশি আলোচনা হয়। তখন জঙ্গিরা ঢাকায় বড় ঘটনা ঘটানোর চিন্তা করে। কোথায় ঘটনা ঘটালে বেশি কভারেজ পাওয়া যাবে সেটি রেকি করতে থাকে। এ কারণেই তারা হলি আর্টিজানে হামলা চালায়। এরপর তারা এ ধরনের হামলা অব্যাহত রাখার পরিকল্পনা করে। সে অনুযায়ী পরবর্তী হামলার জন্য দু-একটি উন্নয়ন প্রকল্প রেকি করে। কয়েকটি স্লিপার সেল প্রস্তুত করে। সেলের সদস্যরা কল্যাণপুরের জাহাজ বাড়িতে আস্তানা তৈরি করে। সেখানে অভিযান চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

মিরপুর, লালবাগ, গাজীপুর, আশুলিয়া এবং নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তামিম চৌধুরীসহ ধরা পড়ে শীর্ষ জঙ্গি নেতারা। নিহত হয় সারোয়ার জাহানসহ কয়েকজন। এসব অভিযানের মাধ্যমে জঙ্গিদের নেতৃত্ব গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। তখন জঙ্গিদের তৎপরতা কিছুটা থেমে যায়।

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট সূত্র জানায়, ২০১৭ সালে মুসার নেতৃত্বে জঙ্গিরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় এক্সপ্লোসিভ সংগ্রহ করতে থাকে।

প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ঝিনাইদহ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, মৌলভীবাজার, সিলেট, সীতাকুণ্ড, কুমিল্লাসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে মুসার নেতৃত্বাধীন জঙ্গি সদস্যদের আইনের আওতায় আনা হয়।

জঙ্গিবাদসংক্রান্ত গ্লোবাল টেরোরিজম সূচক

বাংলাদেশ ৫ বছরে ১৯ ধাপ এগিয়েছে

হলি আর্টিজান হামলার ৬ বছর কাল
 সিরাজুল ইসলাম 
৩০ জুন ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে নানা কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ায় গ্লোবাল টেরোরিজম সূচকে বেশ উন্নতি করেছে বাংলাদেশ।

জঙ্গিবাদের ঝুঁকি বিবেচনায় এই সূচকে পাঁচ বছরে ১৯ ধাপ এগিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ছয় বছর পূর্তি হচ্ছে।

২০১৬ সালের ১ জুলাই এ ঘটনা ঘটে। ২০১৬ সালে যখন ভয়াবহ হলি আর্টিজান হামলার ঘটনা ঘটে তখন সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ২২তম। ওই হামলার পর দেশে জঙ্গি হামলার ঝুঁকি আরও বেড়ে যায়।

তাই পরের বছর ২০১৭ সালে ঝুঁকি বিবেচনায় বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ২১তম। এরপর প্রতিবছর গ্লোবাল টেরোরিজম সূচকে বাংলাদেশের অবস্থার উন্নতি হয়। ২০১৮ সালে ২৫, ২০১৯ সালে ৩১, ২০২০ সালে ৩৩ এবং ২০২১ সালে ৪০তম স্থানে উঠে আসে বাংলাদেশ।

২০২২ সালে বাংলাদেশ ৪০তম স্থান ধরে রেখেছে। বাংলাদেশের স্কোর চার দশকি ৪১১। টেরোরিজম ইনডেক্স র‌্যাংকিং পর্যালোচনা করে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানায়, এই মুহূর্তে জঙ্গিবাদ বিবেচনায় সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে আছে আফগানিস্তান। নয় দশমিক ১০৯ স্কোর নিয়ে বৈশ্বিক তালিকায় তাদের অবস্থান শীর্ষে। তালিকার দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে ইরাক এবং সোমালিয়া। এই দুটি দেশের স্কোর যথাক্রমে আট দশমিক ৫১১ এবং আট দশমিক ৩৯৮। জঙ্গি ঝুঁকি বিবেচনায় দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি নিরাপদ অবস্থানে ভুটান। তাদের পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। বৈশ্বিক তালিকায় তাদের অবস্থান ১৩৫। আফগানিস্তানের অবস্থান যথারীতি এক নম্বরে। এ তালিকায় পাকিস্তান ৭ এবং ভারত আট নম্বরে। আর শ্রীলংকার অবস্থানের ২০তম স্থানে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার এবং কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান আসাদুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, জঙ্গিবাদ দমনে শুধু অভিযানই যথেষ্ট ছিল না। তাই সারা দেশে জঙ্গিবাদ বিরোধী ব্যাপক প্রচারণা চালানো হয়। আলেমা, ওলামা, ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব, মাদ্রসার ছাত্র-শিক্ষকসহ সবাই জঙ্গিবাদবিরোধী প্রচারণায় নেমে পড়ে। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী ঘৃণা ও বিক্ষোভ তৈরি হয়। অভিযানে যেসব জঙ্গি মারা যায়, তাদের লাশ কোনো পরিবারের সদস্য গ্রহণ করেনি। একদিকে জঙ্গিদের প্রতি সব মহলের ঘৃণা, অন্যদিকে ইরাক-সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেট (আইএস) আস্তে আস্তে দুর্বল হয়ে পড়ে। তাই দেশীয় জঙ্গিদের অনুপ্রেরণার জায়গায় ধাক্কা খায়। তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সরকার এবং সব মহলের সমন্বিত কার্যক্রমের কারণেই দেশে এখন জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে। গত দুই বছরে তারা কোনো হামলা চালাতে পারেনি। আমরা জঙ্গিদের নেটওয়ার্ক ভেঙে দিয়েছি। তারা কিছুদিন আগেও অনলাইনে বেশ সক্রিয় ছিল। তাদের অনলাইন নেটওয়ার্কও নিয়ন্ত্রণে রেখেছি।

হলি আর্টিজান বেকারিতে ভয়াবহ জঙ্গি হামলায় দেশি-বিদেশি ২০ জনকে হত্যা করা হয়। নৃশংস এ হামলায় নয়জন ইতালীয়, সাতজন জাপানি, একজন ভারতীয়, একজন বাংলাদেশি-আমেরিকান দ্বৈত নাগরিক ও দুজন বাংলাদেশি নিহত হন। এছাড়া জঙ্গিদের প্রতিহত করতে গিয়ে পুলিশ কর্মকর্তাও নিহত হন। তারা হলেন, বনানী থানার ওই সময়ের ওসি সালাউদ্দিন আহমেদ ও ডিএমপির সহকারী পুলিশ কমিশনার রবিউল ইসলাম।

সম্প্রতি প্রকাশিত কাউন্টার টেরোরিজম জার্নালে পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, ২০১৬ সালে দেশে যখন হলি আর্টিজান হামলার ঘটনা ঘটে তখন ইউরোপ এবং আমেরিকার বিভিন্ন দেশেও সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। ওই সময়টায় আগ মুহূর্তে বিশ্বব্যাপী জঙ্গিবাদের একটি জাগরণ তৈরি হয়। এর উৎস খুঁজতে গেলে দেখা যায়, ইরাক-সিরিয়ায় কথিত ইসলামিক স্টেটের (আইএস) ঘোষণা। পৃথিবীর দেশে দেশে তরুণ-তরুণী, ইঞ্জিনিয়ার, ডাক্তার, আইটি বিশেষজ্ঞদের সিরিয়ায় যেতে আহ্বান জানানো হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে অনেকে সেখানে যান। কেউ কেউ পরিবার-পরিজনসহ যান। একপর্যায়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ইরাক ও সিরিয়ায় গমনে কড়াকড়ি আরোপ করে। তখন হুকুম আসে যারা ইসলামিক স্টেট বা শরিয়া আইন কায়েম করতে চায় তারা সিরিয়া-ইরাকে আসতে পারলে ভালো। না আসতে পারলে নিজ নিজ দেশে এটা কায়েম করতে পারে। এতে অনুপ্রাণিত হয়েই পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অনেক ঘটনা ঘটে। বাংলাদেশেও এর প্রভাব পড়ে। একই সময়ে আল কায়দা ইন্ডিয়ান সাব কন্টিনেন্ট (একিউআইএস) ঘোষণা করা হয়। তখন আল কায়দার আদর্শে বিশ্বাসী তরুণ-তরুণীরা অনুপ্রাণিত হয়ে কিলিং মিশনে যোগ দেয়। ২০১৫ সালে অভিজিৎ হত্যাসহ বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটায়। ২০১৬ সালে জুলহাস মান্নানসহ কয়েকটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এগুলো হলো ধারাবাহিকতা।

পুলিশ জানায়, ২০১৬ সালের এপ্রিলে রাজধানীর কলাবাগানে জুলহাস মান্নান এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যধাপক রেজাউল করিম হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। জুলহাস মান্নানের চেয়ে রেজাউল করিম অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হলেও জুলহাস মান্নানের ঘটনাটি দেশ-বিদেশে বেশি আলোচনা হয়। তখন জঙ্গিরা ঢাকায় বড় ঘটনা ঘটানোর চিন্তা করে। কোথায় ঘটনা ঘটালে বেশি কভারেজ পাওয়া যাবে সেটি রেকি করতে থাকে। এ কারণেই তারা হলি আর্টিজানে হামলা চালায়। এরপর তারা এ ধরনের হামলা অব্যাহত রাখার পরিকল্পনা করে। সে অনুযায়ী পরবর্তী হামলার জন্য দু-একটি উন্নয়ন প্রকল্প রেকি করে। কয়েকটি স্লিপার সেল প্রস্তুত করে। সেলের সদস্যরা কল্যাণপুরের জাহাজ বাড়িতে আস্তানা তৈরি করে। সেখানে অভিযান চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

মিরপুর, লালবাগ, গাজীপুর, আশুলিয়া এবং নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তামিম চৌধুরীসহ ধরা পড়ে শীর্ষ জঙ্গি নেতারা। নিহত হয় সারোয়ার জাহানসহ কয়েকজন। এসব অভিযানের মাধ্যমে জঙ্গিদের নেতৃত্ব গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। তখন জঙ্গিদের তৎপরতা কিছুটা থেমে যায়।

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট সূত্র জানায়, ২০১৭ সালে মুসার নেতৃত্বে জঙ্গিরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় এক্সপ্লোসিভ সংগ্রহ করতে থাকে।

প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ঝিনাইদহ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, মৌলভীবাজার, সিলেট, সীতাকুণ্ড, কুমিল্লাসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে মুসার নেতৃত্বাধীন জঙ্গি সদস্যদের আইনের আওতায় আনা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন