এক্সপ্রেসওয়ের টোলে বাড়ল বাসের ভাড়া
jugantor
এক্সপ্রেসওয়ের টোলে বাড়ল বাসের ভাড়া

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০২ জুলাই ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহাসড়কে (ঢাকা-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে) টোল আদায়ের সঙ্গে বাড়ল বাসেরও ভাড়া। শুধু এ সড়কের টোলের কারণে রুটভেদে যাত্রীপ্রতি ১৭ থেকে ৭৪ টাকা পর্যন্ত বাড়িয়ে নতুন ভাড়ার তালিকা প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। গতকালই এ ভাড়া কার্যকর হয়েছে। পদ্মা সেতু ও এক্সপ্রেসওয়ে ব্যবহারের জন্য জনপ্রতি বাসযাত্রীকে ৮৯ থেকে ১৪৫ টাকা পর্যন্ত টোল দিতে হচ্ছে। তবে আগের চেয়ে এ পথে খরচ বাড়লেও যাতায়াত সময় কমে প্রায় অর্ধেকে এসেছে। বেড়েছে স্বস্তিও। বিআরটিএ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। জানা গেছে, ঢাকা-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়েতে শুক্রবার থেকে টোল আদায় শুরু হয়েছে। এতে প্রতিটি বাসে ৪৯৫ টাকা টোল দিতে হচ্ছে। একই সঙ্গে এ সড়কের তিনটি সেতুর টোল দেওয়া লাগছে না। এসব সেতুর টোলের সঙ্গে এক্সপ্রেসওয়ের টোল সমন্বয় করে নতুন ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিআরটিএ। নতুন ভাড়ার তালিকা অনুযায়ী, ৪০ আসনের একটি বাসে ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে বরিশালের ভাড়া ৪৫৪ টাকা। পদ্মা সেতুতে গাড়ি চলাচল শুরু থেকে এক্সপ্রেসওয়ের টোল আরোপের আগে তা ছিল ৪১২ টাকা। ঢাকা-শরীয়তপুরের বর্তমান ভাড়া ২৫৭ টাকা, যা আগে ছিল ২১৮ টাকা। ঢাকা-পিরোজপুর আগে ৫৩৪ টাকা থাকলেও নতুন ভাড়ায় তা দাঁড়িয়েছে ৫৮০ টাকায়। আর গোপালগঞ্জ হয়ে গেলে এ রুটের ভাড়া হবে ৬১৯ টাকা। ঢাকা থেকে পটুয়াখালী ভাড়া ৫৬১ টাকা। পদ্মা সেতুতে গাড়ি চলাচলের শুরু থেকে ছিল ৫০১ টাকা। একইভাবে নতুন ভাড়া অনুযায়ী ঢাকা থেকে মাদারীপুর ৩৪৪ টাকা, সাতক্ষীরা ৬৮৯ টাকা, ফরিদপুর ৩২৩ টাকা, শরীয়তপুর (দ্বিতীয় বুড়িগঙ্গা সেতু হয়ে) ২৫৭ টাকা ও কুয়াকাটা ৭৬৭ টাকা। কক্সবাজার থেকে বরিশাল এক হাজার ৩৮৮ টাকা, চট্টগ্রাম থেকে খুলনা এক হাজার ১৯২ টাকা ও চট্টগ্রাম থেকে বরগুনা এক হাজার ২৮২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

তবে ঢাকা-গোপালগঞ্জ ও ঢাকা-খুলনা রুটের ভাড়া কমেছে। ঢাকা-গোপালগঞ্জ এক্সপ্রেসওয়ের টোল আদায়ের আগে ৫০৪ টাকা থাকলেও এখন তা ৪২৩ টাকা এবং ঢাকা-খুলনা ৬৪৯ টাকা থেকে কমিয়ে ৫৭৫ টাকা করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিআরটিএর চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার যুগান্তরকে বলেন, দু-তিনটি রুটের দূরত্ব সংক্রান্ত তথ্যের সমস্যা ছিল। ওই সমস্যা সমাধান করায় দূরত্ব কমে যাওয়ায় ভাড়া কমেছে। এক্সপ্রেসওয়ের টোলের বিষয়ে তিনি বলেন, এ কারণে ভাড়া কিছুটা বেড়েছে। তবে তা খুব বেশি নয়।

এক্সপ্রেসওয়ের টোলে বাড়ল বাসের ভাড়া

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০২ জুলাই ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহাসড়কে (ঢাকা-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে) টোল আদায়ের সঙ্গে বাড়ল বাসেরও ভাড়া। শুধু এ সড়কের টোলের কারণে রুটভেদে যাত্রীপ্রতি ১৭ থেকে ৭৪ টাকা পর্যন্ত বাড়িয়ে নতুন ভাড়ার তালিকা প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। গতকালই এ ভাড়া কার্যকর হয়েছে। পদ্মা সেতু ও এক্সপ্রেসওয়ে ব্যবহারের জন্য জনপ্রতি বাসযাত্রীকে ৮৯ থেকে ১৪৫ টাকা পর্যন্ত টোল দিতে হচ্ছে। তবে আগের চেয়ে এ পথে খরচ বাড়লেও যাতায়াত সময় কমে প্রায় অর্ধেকে এসেছে। বেড়েছে স্বস্তিও। বিআরটিএ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। জানা গেছে, ঢাকা-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়েতে শুক্রবার থেকে টোল আদায় শুরু হয়েছে। এতে প্রতিটি বাসে ৪৯৫ টাকা টোল দিতে হচ্ছে। একই সঙ্গে এ সড়কের তিনটি সেতুর টোল দেওয়া লাগছে না। এসব সেতুর টোলের সঙ্গে এক্সপ্রেসওয়ের টোল সমন্বয় করে নতুন ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিআরটিএ। নতুন ভাড়ার তালিকা অনুযায়ী, ৪০ আসনের একটি বাসে ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে বরিশালের ভাড়া ৪৫৪ টাকা। পদ্মা সেতুতে গাড়ি চলাচল শুরু থেকে এক্সপ্রেসওয়ের টোল আরোপের আগে তা ছিল ৪১২ টাকা। ঢাকা-শরীয়তপুরের বর্তমান ভাড়া ২৫৭ টাকা, যা আগে ছিল ২১৮ টাকা। ঢাকা-পিরোজপুর আগে ৫৩৪ টাকা থাকলেও নতুন ভাড়ায় তা দাঁড়িয়েছে ৫৮০ টাকায়। আর গোপালগঞ্জ হয়ে গেলে এ রুটের ভাড়া হবে ৬১৯ টাকা। ঢাকা থেকে পটুয়াখালী ভাড়া ৫৬১ টাকা। পদ্মা সেতুতে গাড়ি চলাচলের শুরু থেকে ছিল ৫০১ টাকা। একইভাবে নতুন ভাড়া অনুযায়ী ঢাকা থেকে মাদারীপুর ৩৪৪ টাকা, সাতক্ষীরা ৬৮৯ টাকা, ফরিদপুর ৩২৩ টাকা, শরীয়তপুর (দ্বিতীয় বুড়িগঙ্গা সেতু হয়ে) ২৫৭ টাকা ও কুয়াকাটা ৭৬৭ টাকা। কক্সবাজার থেকে বরিশাল এক হাজার ৩৮৮ টাকা, চট্টগ্রাম থেকে খুলনা এক হাজার ১৯২ টাকা ও চট্টগ্রাম থেকে বরগুনা এক হাজার ২৮২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

তবে ঢাকা-গোপালগঞ্জ ও ঢাকা-খুলনা রুটের ভাড়া কমেছে। ঢাকা-গোপালগঞ্জ এক্সপ্রেসওয়ের টোল আদায়ের আগে ৫০৪ টাকা থাকলেও এখন তা ৪২৩ টাকা এবং ঢাকা-খুলনা ৬৪৯ টাকা থেকে কমিয়ে ৫৭৫ টাকা করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিআরটিএর চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার যুগান্তরকে বলেন, দু-তিনটি রুটের দূরত্ব সংক্রান্ত তথ্যের সমস্যা ছিল। ওই সমস্যা সমাধান করায় দূরত্ব কমে যাওয়ায় ভাড়া কমেছে। এক্সপ্রেসওয়ের টোলের বিষয়ে তিনি বলেন, এ কারণে ভাড়া কিছুটা বেড়েছে। তবে তা খুব বেশি নয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন