মিসরে কপ-২৭ জলবায়ু সম্মেলন শুরু
jugantor
মিসরে কপ-২৭ জলবায়ু সম্মেলন শুরু

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৭ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মিসরে ২৭তম জলবায়ু সম্মেলন (কপ-২৭ বা কনফারেন্স অব পার্টিজ-২৭) শুরু হয়েছে। রোববার শুরু হওয়া সম্মেলন ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে। এতে যোগ দিতে দেশটির শারম-আল-শেখ নগরীর রেড সি রিসোর্টে ১২০টিরও বেশি দেশের নেতারা সমবেত হয়েছেন। এ সম্মেলনে ৩০ হাজার মানুষ অংশ নিচ্ছেন। খবর বিবিসির।

সম্মেলনে জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক নতুন প্রধান সায়মন স্টিল এবং কপ-২৭ সভাপতি ও মিসরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সামেহ শুকরি উদ্বোধনী বক্তব্য দেন। সায়মন স্টিল তার বক্তব্যে গত বছরের নেওয়া প্রতিশ্রুতিগুলো বাস্তবায়নের আহ্বান জানান। পাশাপাশি ব্যাপক রূপান্তর, যা অবশ্যই ঘটাতে হবে-সেপথে এগিয়ে যাওয়ারও তাগাদা দেন তিনি। সম্মেলনে সোম ও মঙ্গলবার বিশ্বনেতারা বক্তব্য রাখবেন। এরপর তাদের প্রতিনিধিরা আলোচনায় বসবেন।

জাতিসংঘের জলবায়ুবিষয়ক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ মুহূর্তে তাপমাত্রা ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে বজায় রাখার মতো অবস্থায় বিশ্ব নেই। গত মাসে এমন সতর্ক বাণী উচ্চারণ করা হয়। জলবায়ু পরিবর্তনের কুপ্রভাবে গত বছর নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঘনঘনই ঘটতে দেখা গেছে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, গত বছরের কপ-২৬ জলবায়ু সম্মেলনের পর থেকে বিশ্বের দেশগুলোর সরকারের কার্বন নিঃসরণ কমানোর পরিকল্পনায় দুঃখজনকভাবে পর্যাপ্ত অগ্রগতি হয়নি। এ পরিস্থিতিতে জরুরি ভিত্তিতে সমাজে রূপান্তর ঘটানো গেলেই কেবল বিপর্যয় এড়ানো সম্ভব।

গত বছর গ্লাসগোর কপ-২৬ সম্মেলনে বেশকিছু প্রতিশ্রুতি নেওয়া হয়েছিল। এগুলো হলো : ১. ধাপে ধাপে কয়লার ব্যবহার কমানো, ২. বন উজাড় ২০৩০ সালের মধ্যে বন্ধ করা, ৩. মিথেন গ্যাস নিঃসরণ ২০৩০ সালের মধ্যে ৩০ শতাংশ কমানো, ৪. জাতিসংঘে নতুন জলবায়ু কর্মসূচি পরিকল্পনা জমা দেওয়া। প্রতিশ্রুতি বাস্তবে রূপ দিতে গেলে প্রয়োজন অর্থের। উন্নয়নশীল দেশগুলো চাইছে তাদের আর্থিক সহায়তা এবং সমর্থন দেওয়ার যে প্রতিশ্রুতি উন্নত দেশগুলো গতবার দিয়েছিল তা বহাল রাখা হোক। কিন্তু উন্নয়নশীল দেশগুলো চায়- জলবায়ু পরিবর্তনের ভবিষ্যৎ প্রভাব মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত হওয়াই কেবল নয়, বরং জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে তারা এরই মধ্যে যে ক্ষতির শিকার হয়েছে তা কাটিয়ে উঠতে আর্থিক সহায়তা এবং আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির বিষয়টি নিয়েও আলোচনা হোক। কপ-২৭ সম্মেলনে প্রথম বিষয়টি আনুষ্ঠানিক আলোচ্যসূচিতে থাকছে। সম্মেলনে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা ছাড়াও দুসপ্তাহ ধরে ওয়ার্কশপ, প্রদর্শনী, সাংস্কৃতিক পরিবেশনার মতো আরও নানা অনুষ্ঠান রয়েছে।

মিসরে কপ-২৭ জলবায়ু সম্মেলন শুরু

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৭ নভেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মিসরে ২৭তম জলবায়ু সম্মেলন (কপ-২৭ বা কনফারেন্স অব পার্টিজ-২৭) শুরু হয়েছে। রোববার শুরু হওয়া সম্মেলন ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে। এতে যোগ দিতে দেশটির শারম-আল-শেখ নগরীর রেড সি রিসোর্টে ১২০টিরও বেশি দেশের নেতারা সমবেত হয়েছেন। এ সম্মেলনে ৩০ হাজার মানুষ অংশ নিচ্ছেন। খবর বিবিসির।

সম্মেলনে জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক নতুন প্রধান সায়মন স্টিল এবং কপ-২৭ সভাপতি ও মিসরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সামেহ শুকরি উদ্বোধনী বক্তব্য দেন। সায়মন স্টিল তার বক্তব্যে গত বছরের নেওয়া প্রতিশ্রুতিগুলো বাস্তবায়নের আহ্বান জানান। পাশাপাশি ব্যাপক রূপান্তর, যা অবশ্যই ঘটাতে হবে-সেপথে এগিয়ে যাওয়ারও তাগাদা দেন তিনি। সম্মেলনে সোম ও মঙ্গলবার বিশ্বনেতারা বক্তব্য রাখবেন। এরপর তাদের প্রতিনিধিরা আলোচনায় বসবেন।

জাতিসংঘের জলবায়ুবিষয়ক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ মুহূর্তে তাপমাত্রা ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে বজায় রাখার মতো অবস্থায় বিশ্ব নেই। গত মাসে এমন সতর্ক বাণী উচ্চারণ করা হয়। জলবায়ু পরিবর্তনের কুপ্রভাবে গত বছর নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঘনঘনই ঘটতে দেখা গেছে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, গত বছরের কপ-২৬ জলবায়ু সম্মেলনের পর থেকে বিশ্বের দেশগুলোর সরকারের কার্বন নিঃসরণ কমানোর পরিকল্পনায় দুঃখজনকভাবে পর্যাপ্ত অগ্রগতি হয়নি। এ পরিস্থিতিতে জরুরি ভিত্তিতে সমাজে রূপান্তর ঘটানো গেলেই কেবল বিপর্যয় এড়ানো সম্ভব।

গত বছর গ্লাসগোর কপ-২৬ সম্মেলনে বেশকিছু প্রতিশ্রুতি নেওয়া হয়েছিল। এগুলো হলো : ১. ধাপে ধাপে কয়লার ব্যবহার কমানো, ২. বন উজাড় ২০৩০ সালের মধ্যে বন্ধ করা, ৩. মিথেন গ্যাস নিঃসরণ ২০৩০ সালের মধ্যে ৩০ শতাংশ কমানো, ৪. জাতিসংঘে নতুন জলবায়ু কর্মসূচি পরিকল্পনা জমা দেওয়া। প্রতিশ্রুতি বাস্তবে রূপ দিতে গেলে প্রয়োজন অর্থের। উন্নয়নশীল দেশগুলো চাইছে তাদের আর্থিক সহায়তা এবং সমর্থন দেওয়ার যে প্রতিশ্রুতি উন্নত দেশগুলো গতবার দিয়েছিল তা বহাল রাখা হোক। কিন্তু উন্নয়নশীল দেশগুলো চায়- জলবায়ু পরিবর্তনের ভবিষ্যৎ প্রভাব মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত হওয়াই কেবল নয়, বরং জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে তারা এরই মধ্যে যে ক্ষতির শিকার হয়েছে তা কাটিয়ে উঠতে আর্থিক সহায়তা এবং আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির বিষয়টি নিয়েও আলোচনা হোক। কপ-২৭ সম্মেলনে প্রথম বিষয়টি আনুষ্ঠানিক আলোচ্যসূচিতে থাকছে। সম্মেলনে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা ছাড়াও দুসপ্তাহ ধরে ওয়ার্কশপ, প্রদর্শনী, সাংস্কৃতিক পরিবেশনার মতো আরও নানা অনুষ্ঠান রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন