সিলেটে ওবায়দুল কাদের

আ’লীগের দুর্গে দলের অবস্থা তলানিতে কেন?

রুদ্ধদ্বার বৈঠকে অর্থমন্ত্রীর বিরুদ্ধে স্থানীয় নেতাদের ক্ষোভ

  সিলেট ব্যুরো ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের (ফাইল ছবি)

সিলেট এক সময় আওয়ামী লীগের দুর্গ ছিল। কিন্তু দলের অবস্থা এখন কেন তলানিতে? স্থানীয় নেতাদের কাছে জানতে চেয়েছিলেন দলের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী লীগ নেতাদের কেউ-ই এর সদুত্তর দিতে পারেননি।

বৃহস্পতিবার রাতে জেলা সার্কিট হাউসে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে ওবায়দুল কাদের জেলার সাংগঠনিক দৈন্যদশার চিত্র তুলে ধরে তাদের তুলাধোনা করেন। ক্ষোভ প্রকাশ করেন সিলেটের মতো জায়গায় দলীয় কার্যালয় না থাকার কারণে।

ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে গত সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয়ের বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। সিলেটের নেতারা বৈঠকে সিটি নির্বাচনে পরাজয়ের নেপথ্য কারণও তুলে ধরেন। সিলেট আওয়ামী লীগ নেতারা এ সময় একে অপরকে দায়ী করে বক্তব্য দেন। বৈঠকে উপস্থিত কয়েকজন নেতা গত নির্বাচনে অর্থমন্ত্রীর ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

জবাবে সভায় ওবায়দুল কাদের বলেন, বিগত দিনে সারা দেশের সিটিগুলোতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা জয়লাভ করেছেন। কেবল সিলেটে হেরেছেন। অথচ এক সময় সিলেট আওয়ামী লীগের দুর্গ হিসেবে পরিচিত ছিল। আগে আমরা সিলেটে আওয়ামী লীগের অবস্থান নিয়ে গর্ব করতাম, কিন্তু এখন সে অবস্থা আর নেই। তিনি আরও বলেন, এই সিটি নির্বাচনে কে কী করেছেন, সব তথ্যই আমাদের কাছে আছে। আরও তথ্য আমরা সংগ্রহ করছি। তিনি জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে সিলেটের বিভিন্ন উপজেলা আওয়ামী লীগকে আরও চাঙ্গা করার জন্য নেতাদের নির্দেশ দেন।

সভায় কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, এনামুল হক শামীম ও খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

সভায় সিলেট-১ আসনের এমপি ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ওপর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা। এ সময় মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাংশু দাস মিঠু বলেন, নির্বাচনের দিন ভোট দিতে এসে অর্থমন্ত্রী ‘কামরান ভালো, আরিফও ভালো’ এমন বক্তব্য দেয়ায় দলের প্রার্থীর ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া ওই সময় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এক নারী কাউন্সিলর প্রার্থীকে ‘গুন্ডি’ বলে সম্বোধন করেন তিনি। ফলে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ে বিরূপ প্রভাব পড়ে, যা আমাদের দলের প্রার্থীর জন্য ক্ষতিকর হয়ে দাঁড়ায়।

বৈঠকে আরেক আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, সিলেটে আমাদের দলীয় কোনো কার্যালয় নেই। কার্যালয়ের জন্য আমাদের কোনো জায়গা বরাদ্দ দেয়া হয়নি। কিন্তু, মন্ত্রীর এক ঘনিষ্ঠ আত্মীয় নগরীর প্রাণকেন্দ্রে বিশাল জায়গা নিয়ে ব্যবসায়িক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। ক্ষুব্ধ আরেক নেতা বলেন, অর্থমন্ত্রী সিলেট-১ আসনের এমপি কিন্তু আমরা তার কাছে যেতে পারি না। তার কাছ থেকে কোনো সহযোগিতাও পাই না। নিজ বলয়ের নেতাদের নিয়েই তিনি ব্যস্ত থাকেন।

সিলেটে আওয়ামী লীগের অফিস নেই শুনে ভীষণ ক্ষুব্ধ হন ওবায়দুল কাদের। তিনি আগামী এক মাসের মধ্যে সিলেটে আওয়ামী লীগের অফিস করার জন স্থানীয় নেতাদের নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, এ জন্য প্রয়োজনীয় যা লাগবে সেগুলো কেন্দ্র থেকে দেয়া হবে। এ সময় দলের স্থায়ী অফিস নির্মাণে ভূমি বরাদ্দের বিষয়টি দেখার জন্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতিকে দায়িত্ব দেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter