শহিদুল আলমের জামিন নাকচ

  যুগান্তর রিপোর্ট ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমের জামিন আবেদন নাকচ করেছেন আদালত। মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশ জামিন নাকচের এ আদেশ দেন। এদিন শহিদুল আলমের স্ত্রী রেহনুমা আহমেদসহ তার স্বজনেরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

শহিদুলের পক্ষে সারা হোসেন, এহসানুল হক সমাজি, জ্যোতির্ময় বড়ুয়া প্রমুখ আইনজীবী আদালতে শুনানি করেন।

শুনানিতে এহসানুল হক সমাজি বলেন, শহিদুল আলমের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন মামলা দেয়া হয়েছে। বরেণ্য এ ব্যক্তি জামিন দিলে পলাতক হবেন না, কিংবা সাক্ষীদের কোনোভাবে প্রভাবিত করবেন না।

আইনজীবী সারা হোসেন বলেন, শহিদুল আলম একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আলোকচিত্রী। তিনি এমন ছবি তুলেছেন, যার জন্য বাংলাদেশ অনেক সুনাম অর্জন করেছে। এক মাসের বেশি সময় তাকে আটকে রাখা হয়েছে। তিনি সমাজের একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তি। তাকে জামিন দিলে মামলার কোনো ব্যাঘাত ঘটবে না। কারণ সব আলামত ও ডকুমেন্ট-অ্যাভিডেন্স পুলিশের কাছেই রয়েছে। সেগুলো নষ্ট করার সুযোগ আসামির নেই। শুনানিতে তিনি বলেন, এ মামলাটি দায়ের করা হয়েছে শহিদুল আলমকে গ্রেফতারের পর। আর তাকে ৫৪ ধারায়ও গ্রেফতার করা হয়নি। তাহলে পুলিশ কোন ক্ষমতাবলে মামলা করার আগের দিন তাকে গ্রেফতার করল? এজাহারের সঙ্গে জব্দ তালিকার আলামতের বিবরণ মেলে না। এক জায়গায় দুই মোবাইল ও এক ল্যাপটপ জব্দের কথা বলা হলেও অন্য জায়গায় বলা হয়েছে একটি মোবাইল ফোন উদ্ধারের কথা।

আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে যে কেউ সমালোচনা করতে পারেন।

এটা তার সাংবিধানিক অধিকার। তিনি একজন সুপরিচিত ব্যক্তি। যে কোনো শর্তে তার জামিন প্রার্থনা করছি।

অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু বলেন, শহিদুল আলম যে বক্তব্য দিয়েছেন, তাতে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হওয়া উচিত। নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়েছেন তিনি। জঘন্য অপরাধ করেছেন তিনি।

আদালত সূত্র জানায়, এর আগে ১২ আগস্ট সাত দিনের রিমান্ড শেষে শহিদুল আলমকে আদালতে হাজির করে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। ওই দিন আসামিপক্ষে কোনো জামিন আবেদন করা হয়নি। শুনানি শেষে আদালত ওই দিনই তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এরপর ১৪ আগস্ট তার জামিন আবেদন করলে জামিন শুনানির জন্য মঙ্গলবার দিন ধার্য করেন। আর এরই মধ্যে আসামিপক্ষ হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন। কিন্তু হাইকোর্ট জামিন না দিয়ে তা জজ আদালতকেই নিষ্পত্তির নির্দেশ দেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter