সেলফির নামে পাগলামি

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৮ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিপদের ঝুঁকি নিয়ে মোবাইল ফোনে সেলফি তুলতে গিয়ে অনেক দুর্ঘটনা ঘটলেও অনেকেই বিষয়টিকে একটা কঠিন পরীক্ষা হিসেবে বিবেচনা করে এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে চায়। এতে যে ওই ব্যক্তির বোকামি প্রকাশ পায়, এটা সংশ্লিষ্টরা বুঝতে পারে না। এমন ব্যক্তিদের বোঝানোর কাজটি সহজ নয়। এসব ব্যক্তিকে বোঝাতে সমাজের সবাইকে ভূমিকা রাখতে হবে। এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে শিক্ষকসমাজ। ওই নির্বোধ ব্যক্তিদের বোঝাতে হবে, মানুষের কল্যাণে অবদান রাখতে পারাটা বড় ভাগ্যের বিষয়। মানুষের জন্য, সমাজের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কোনো কাজ করতে পারলে, তবেই মানুষের মনে ঠাঁই করে নেয়া যায়। জীবন বাজি রেখে সেলফি তুলে মুহূর্তের জন্য চমক সৃষ্টির চেষ্টা করা হলেও এ সংক্রান্ত আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকে লোকটির বোকামি। একজন সচেতন মানুষ ভাবতেই পারে না এই আধুনিক যুগেও কোনো ব্যক্তি এতটা নির্বোধ হতে পারে। বস্তুত এসব আলোচনা স্থায়ী হয় কয়েক মুহূর্ত। অল্প সময় পরই মানুষ এসব ভুলে যায়। যারা জীবনের মূল্য সম্পর্কে পুরোপুরি অজ্ঞ, তারাই জীবন বাজি রেখে সেলফি খেলায় মেতে ওঠে।

জীবনের মূল্য সম্পর্কে যাদের ন্যূনতম ধারণা আছে, তারা কখনই এমন বোকার মতো কাজ করবেন না। জীবনের মূল্য সম্পর্কে শিশুদের ধারণা যাতে স্পষ্ট হয়, এ বিষয়ে পরিবারের জ্যেষ্ঠ সদস্যদের ভূমিকা রাখতে হবে। শৈশবে এ সম্পর্কে যাদের জানার সুযোগ সীমিত, তারা যাতে বিদ্যালয়ের প্রাথমিক শ্রেণীতেই এ সম্পর্কে জানতে পারে, এ বিষয়ে শিক্ষকদের যথাযথ ভূমিকা পালন করতে হবে। বাবা-মা-অভিভাবক-শিক্ষকসহ সবাই এ বিষয়ে ভূমিকা রাখলে সেলফির মতো গুরুত্বহীন বিষয়কে কেউ গুরুত্ব প্রদানের কথা ভাববে না, এটা আশা করা যায়। আসুন সবাই সেলফিকে নিছক খেলা হিসেবেই বিবেচনা করি।

আবুল কাশেম

বনানী, ঢাকা

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×