বায়ুদূষণ ও স্বাস্থ্যঝুঁকি

  যুগান্তর ডেস্ক    ২১ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বায়ুদূষণের কারণে স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ে এটি প্রায় সবাই জানেন। কিন্তু এই ঝুঁকি কতটা ভয়াবহ হয়ে দেখা দিতে পারে তা সম্ভবত খুব কম মানুষ জানেন। সম্প্রতি পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্য থেকে জানতে পারি, বায়ুদূষণের কারণে নানা প্রাণঘাতী রোগের ঝুঁকি রয়েছে। এগুলোর মধ্যে হৃদরোগ, মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত সমস্যা বা স্ট্রোক, অ্যাজমা এবং ফুসফুসের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকির বিষয়টি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। স্বভাবতই এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে শিশুরা। গত ৫ বছরের ব্যবধানে অ্যাজমা আক্রান্তের হার বেড়েছে ২৪ গুণ। এই একটি তথ্য বিবেচনায় নিলেই স্পষ্ট হয় দেশে বায়ুদূষণ কী ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। জানা গেছে, বায়ুদূষণের কারণে আরও নানা ধরনের জটিল রোগ হতে পারে।

গত কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার গবেষণায় বাংলাদেশের বায়ু পরিস্থিতি নিয়ে যেসব তথ্য বেরিয়েছে তা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। দেশে বিভিন্ন দূষণ, বিশেষত বায়ুদূষণের কারণে মানুষের মধ্যে শ্বাসকষ্টজনিত রোগ বৃদ্ধির বিষয়টি গত একযুগ ধরে বিশেষভাবে আলোচিত হয়ে আসছে। এ সময়ে দূষণ কমিয়ে আনার জন্য নানারকম পদক্ষেপ নেয়া হলেও বাস্তবে লক্ষ করা যাচ্ছে, বায়ুদূষণ কমার পরিবর্তে তা বেড়েই চলেছে। জানা গেছে, বায়ুদূষণের কারণে পৃথিবীতে যে ১০টি দেশে মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি, তার মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম।

বায়ুদূষণের প্রধান উৎসগুলো চিহ্নিত। এর অন্যান্য উৎসও চিহ্নিত করে দূষণ রোধে নিতে হবে কার্যকর পদক্ষেপ। দেশের বিভিন্ন স্থানে গড়ে ওঠা ইটভাটার কারণে বায়ুদূষণ মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। এসব ইটভাটার কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি। রাস্তায় মেয়াদোত্তীর্ণ গাড়ি চালানো বন্ধ করতে হবে। আর উন্নয়ন কাজের নামে সারা বছর রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি না করে সমন্বিত পরিকল্পনার মাধ্যমে এটি নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। সব ধরনের দূষণ রোধ করতে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। শুষ্ক মৌসুমে বায়ুতে ধূলিকণা বৃদ্ধি পায়। তাই সব ধরনের ধূলিকণার উৎস রোধে নিতে হবে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ।

অনন্ত অনীক ধানমণ্ডি, ঢাকা

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

 
×