অনস্তিত্ব, অস্তিত্ব আর শূন্যতা

  হাইকেল হাশমী ১১ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এক সময় তো কিছুই ছিল না। ছিল শুধু শূন্যতা, মহাশূন্যতা, বিশাল শূন্যতা। এই শূন্যতার মাঝে বিরাজ করত অনস্তিত্ব। অনস্তিত্ব খুবই শক্তিশালী। এই অনস্তিত্ব থেকে সৃষ্টি সব অস্তিত্বের। এই শূন্যতা থেকে সৃষ্টি এই পৃথিবী, এই ভূমণ্ডল, এই মহাকাশ, এই অগণিত গ্রহ, তারা, সূর্য, আকাশ, বাতাস, মৃত্তিকা, পশু, পাখি, বৃক্ষ, এমনকি তুমি আর আমি আর সমস্ত ব্রহ্মাণ্ড।

শূন্যতা থেকে আমাদের সৃষ্টি তাই আমরা শূন্য হৃদয় নিয়ে এ পৃথিবীতে (এখন পর্যন্ত আমাদের জানা একমাত্র পৃথিবী যেখানে আবাস আমাদের মতো শূন্য মানবের) করি ছোটাছুটি। শূন্য দৃষ্টি, শূন্য ভাবনা, শূন্য কল্পনা, কেবলেই পরিপূর্ণতার জন্য চেষ্টা, কেবলেই বৃথা চেষ্টা। শূন্য থেকে সৃষ্টি মানুষ কীভাবে পায় পূর্ণতা?

আমাদের জানা, তবে দৃষ্টির আড়ালে প্রতিদিন হাজার হাজার তারা হচ্ছে বিলীন ওই মহাকাশের শূন্যতায়। আমাদের শরীরের কোটি কোটি কোষ নিমিষে মিশে যায় শূন্যতায়। এত প্রাচুর্য তাও মনে ঘর বাঁধে কেমন এক শূন্যতা। এত খ্যাতি, শক্তি, প্রভাব, ক্ষমতা, প্রতিপত্তি তাও মনে বিরাজ করে শূন্যতা।

শূন্য থেকে সৃষ্টি মানুষ, এই ব্রহ্মাণ্ড, সবার অন্তিম ঠিকানা সেই শূন্যতা। থাকবে না কোনো অস্তিত্ব সবার পরিণাম ফিরে যাওয়া তার উৎসে, মিশে যাওয়া আবার মহাশূন্যতায়।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×