কালিয়াকৈর থানা

নিরীহ পরিবারের সদস্যদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগ

  কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি ১৮ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কালিয়াকৈরের আটাবহ ইউনিয়নের জালশুকা এলাকায় বাড়িতে ঢুকে নিরীহ এক পরিবারের সদস্যদের পাশবিক নির্যাতন চালিয়েছে পুলিশ। গ্রেফতার করে থানায় নিয়েও তাদের ওপর নির্যাতন চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার পৃথক মামলা দিয়ে তাদের গাজীপুর কোর্টহাজতে পাঠানো হয়। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থী রয়েছে। এ ছাড়া তাদের সঙ্গে রয়েছে পাঁচ বছরের এক শিশু।

নির্যাতিত পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বুধবার দুপুরে কালিয়াকৈর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই জাফর আলী ও এসআই কামাল হোসেনসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য সাদা পোশাকে জালশুকা এলাকায় শাহীন আলমের বাড়িতে যান। কোনো মামলা বা গ্রেফতারি পরোয়ানা না থাকলেও শাহীন আলমকে আটক করে পুলিশ। এ সময় শাহীনের মা সুফিয়া আক্তার, দুই বোন হাসিনা আক্তার ও বকুল আক্তার বলেন, ‘আপনারা কারা? কেন শাহীনকে মারধর করছেন?’ এর উত্তর না দিয়ে পুলিশ সদস্যরা অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন। একপর্যায়ে শাহীনের মা ও বোনেরা আটকে বাধা দিলে তাদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি হয়। এ খবর থানায় পৌঁছলে পুলিশের আরও সদস্য ওই বাড়িতে যান। তারা শাহীন, তার মা ও বোনদের বেধড়ক মারধর করেন। পরে পুলিশ ওই পরিবারের সবাইকে থানায় নিয়ে যায়। তাদের সঙ্গে রয়েছে এক শিশুও। ওইদিন রাতেই শিশুকে পাশের কক্ষে রেখে শাহীন, তার মা ও বোনদের ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়। গ্রেফতরাকৃতরা প্রতিবেদককে নির্যাতনের চিহ্নও দেখিয়েছেন। বুধবার বিকাল থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত পাঁচ বছরের শিশু হাসিবুল কালিয়াকৈর থানার ভেতরে তার মায়ের সঙ্গেই ছিল। বৃহস্পতিবার দুপুরে শাহীন আলমকে গরু চুরির একটি মামলায় ও আলমের মা, দুই বোনকে ৫৪ ধারায় মামলা দিয়ে গাজীপুর কোর্টহাজতে পাঠানো হয়।

শাহীনের মা সুফিয়া আক্তার, দুই বোন হাসিনা আক্তার ও বকুল আক্তার বলেন, পুলিশ পোশাক পরা ছিল না, তাই ওনাদের চিনতে পারিনি। তারা আমাদের অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ ও এলোপাতাড়ি মারধর করেছে। থানার ভেতরেও পাশবিক নির্যাতন চালিয়েছে। পুলিশের গাড়িতে ওঠার সময় বকুল আক্তার কাঁদতে কাঁদতে বলতে থাকেন, আমি এইচএসসি পরিক্ষার্থী। আমাকে ছেড়ে দিন। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে কালিয়াকৈর থানার ওসি আলমগীর হোসেন মজুমদার বলেন, গ্রেফতারকৃতদের থানায় মারধর করা হয়নি। বাড়িতে তারা পুলিশের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেছে। পুলিশের কাজে বাধা দিয়েছে। এ জন্য তাদের থানায় আনা হয়েছিল। ৫৪ ধারায় মামলা দিয়ে আসামিদের কোর্টে পাঠানো হয়েছে। থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই জাফর আলী ও এসআই কামাল হোসেন বলেন, পরিবারটি খারাপ প্রকৃতির। শাহীন মাদক ব্যবসা, গরু চুরি, ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×