বিবিএস’র প্রতিবেদন

প্রযুক্তি ব্যবহার না হওয়ায় ৭ হাজার কোটি টাকার ধান ক্ষতি

  যুগান্তর রিপোর্ট ০২ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আউশ, আমন আর বোরো মিলে তিন মৌসুমে দেশে ধানের উৎপাদন গত বছর দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ৭১ লাখ ৯৬ হাজার টনে। জমি চাষ ও সেচে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়লেও ধান মাড়াইয়ে যন্ত্রপাতির ব্যবহার নেই বললেই চলে। ফলে প্রতি বছর মাড়াইয়ের সময় ও মাড়াই পরবর্তী সংরক্ষণ, বাজারজাতে অব্যবস্থাপনায় নষ্ট হচ্ছে বিপুল পরিমাণের ধান। ২০১৮ সালে তিন মৌসুমে ২৮ লাখ ১২ হাজার ৩৮৮ টন ধান নষ্ট হয়েছে। খাদ্যের মজুদ বাড়াতে সরকার ২৬ টাকা কেজি দরে ধান কিনছে। এ হিসাবে গত বছর নষ্ট হওয়া ধানের মূল্য ৭ হাজার কোটি টাকার বেশি। সরকারি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। কৃষি ও পল্লী অর্থনীতি নিয়ে প্রতিবেদনটি সম্প্রতি প্রকাশ করেছে সংস্থাটি।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, গত বছর আউশ মৌসুমে ২ লাখ ১৫ হাজার ৪৮৩ টন ধান নষ্ট হয়েছে। আমন মৌসুমে নষ্ট হয়েছে ১১ লাখ ৩১ হাজার ৩৯৯ টন ধান। আর বোরো মৌসুমে সর্বোচ্চ ১৪ লাখ ৬৫ হাজার ৫০৬ টন ধান নষ্ট হয়েছে। তিন মৌসুমে মোট উৎপাদনের সাড়ে ৭ শতাংশ ধান নষ্ট হয়েছে বলে হিসাবে উঠে এসেছে। শতকরা হিসাবে সর্বোচ্চ ৮ দশমিক ৯৩ শতাংশ ধান নষ্ট হয়েছে আউশ মৌসুমে। মাড়াইকালীন সময়ে ৩ দশমিক ৪১ শতাংশ আউশ, ৩ দশমিক ১০ শতাংশ আমন ও ২ দশমিক ৯২ শতাংশ বোরো ধান নষ্ট হয়েছে। আর মাড়াই পরবর্তী সময়ে নষ্ট হয়েছে ৫ দশমিক ৫২ শতাংশ আউশ, ৪ দশমিক ৬০ শতাংশ আমন ও ৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ বোরো ধান।

ধান ছাড়াও আরও আটটি ফসলের উৎপাদনের তথ্য উঠে এসেছে প্রতিবেদনটিতে। এতে বলা হয়েছে গত বছর মাড়াই ও এর পরবর্তী সময়ে মোট ৫১ হাজার ২৯৯ টন গম নষ্ট হয়েছে। ভুট্টা নষ্ট হয়েছে ১ লাখ ৬৫ হাজার ৬৮৩ টন। একই সময়ে ৪ লাখ ৭১ হাজার ২৪০ টন পাট ও ৬ লাখ ১৮ হাজার টন আলু নষ্ট হয়েছে। মসুর ডাল নষ্ট হয়েছে ১৪ হাজার ৫৭ টন। এর বাইরে ২৪ হাজার ২৩৩ টন সরিষা, ৭ হাজার ৫৮৩ টন হলুদ ও ৩০ হাজার ৫২৪ টন মরিচ নষ্ট হয়েছে। এসব পণ্যের দাম হিসাব করলে গত বছর ফসলহানি হয়েছে ১১ হাজার ৬৫১ কোটি টাকার।

প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশে কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বরাবরই এগিয়ে আছে কৃষি খাত। এ খাতে ২ কোটি ৪৩ লাখ ৯২ হাজার ৮৭৮ মানুষ কাজ করেন। কর্মে নিয়োজিত ৪ কোটি ৭০ লাখ ১৯ হাজার মানুষের প্রায় ৫২ শতাংশের কর্মসংস্থান আসছে কৃষি থেকে। সেবা ও শিল্প খাতে কর্মসংস্থান হচ্ছে বাকি অর্ধেকের কম মানুষের।

কৃষি খাতের নিয়োজিতদের মধ্যে ৮১ লাখ ৭৭ হাজার জন আত্মকর্মসংস্থানে নিয়োজিত আছেন বলে উঠে এসেছে প্রতিবেদনে। পারিবারিক সহযোগী হিসেবে বিনা পারিশ্রমিকে কাজ করেন ৮৭ লাখ ৫৬ হাজার জন। কৃষিশ্রমিক হিসেবে কাজ করেন ৭২ লাখ ৯২ হাজার জন। অন্যান্যভাবে কৃষিতে আছেন ১ লাখ ৬৮ হাজার জন। এ খাতে শ্রমিকরা দৈনিক গড়ে ৩৮৬ টাকা পারিশ্রমিক পেয়ে আসছেন। পুরুষদের গড় মজুরি ৩৮৮ টাকা। আর নারীরা পেয়ে থাকেন ৩৪৬ টাকা করে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×