বাজেট কার্যকরের আগেই বাজারে প্রভাব

বেড়েছে গুঁড়ো দুধ পেঁয়াজ আদা ও সিগারেটের দাম

কোনো অজুহাতে বাজার অস্থিতিশীল করা যাবে না -গোলাম রহমান * অযৌক্তিকভাবে পণ্যের দাম বাড়ালে কঠোর শাস্তি -মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার

  ইয়াসিন রহমান ১৬ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দাম

প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট কার্যকর হওয়ার কথা আগামী ১ জুলাই থেকে। কিন্তু বাজেট ঘোষণার পরদিন থেকেই এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে বাজারে।

ইতিমধ্যেই বেড়েছে গুঁড়ো দুধ ও সব ধরনের সিগারেটের দাম। আমদানিতে শুল্ক না বাড়লেও বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ ও চীনা আদার দাম বেড়েছে। তাছাড়া পণ্য পরিবহনে ভ্যাট ১ শতাংশ বৃদ্ধির অজুহাতে সব ধরনের সবজির দাম বাড়বে বলে মনে করছেন বিক্রেতারা। রাজধানীর একাধিক বাজার ঘুরে শনিবার এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাজেট ঘোষণার আগে থেকেই বাজারে প্যাকেটজাত গুঁড়ো দুধ কেজিতে ৫-১০ টাকা বাড়তি দরে বিক্রি হচ্ছে। ‘মার্কস’র এক কেজির প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে ৪৬০ টাকা, যা আগে ছিল ৪৫৫ টাকা। ‘ফ্রেশ’ প্যাকেটজাত গুঁড়ো দুধ বিক্রি হচ্ছে ৪৫০ টাকা, যা আগে ছিল ৪৪০ টাকা। ‘ডিপ্লোমা’ এক কেজির প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে ৫৯০ টাকা, যা আগে ছিল ৫৮৫ টাকা।

তবে চিনি ও ভোজ্যতেলের দাম স্থিতিশীল দেখা গেছে। খোলা চিনি ৫৫ টাকা কেজি এবং প্যাকেটজাত চিনি ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর বোতলজাত সয়াবিন তেল প্রতি লিটার বিক্রি হচ্ছে ৯৫ টাকা।

নয়াবাজারের তুহিন স্টোরের মালিক মো. তুহিন যুগান্তরকে বলেন, বাজেট ঘোষণার আগেই গুঁড়ো দুধের দাম বেড়েছে। তবে বাজেটে চিনি ও ভোজ্যতেলের দাম বাড়ার কথা থাকলেও এ দুটি পণ্যের দাম এখনও ঠিক আছে। মনে হচ্ছে পাইকারদের কাছে আগের আনা চিনি ও তেল শেষ হলেই দাম বাড়বে। তখন খুচরাতেও এ দুটি পণ্যের দামে বেড়ে যাবে।

এদিকে বাজেট কার্যকর হওয়ার আগেই সব ধরনের সিগারেট বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। শনিবার রাজধানীর একাধিক স্থানে ঘুরে দেখা যায়, বেনসন সিগারেট প্রতি শলাকা বিক্রি হচ্ছে ১৫ টাকায়, যা বৃহস্পতিবার ছিল ১২ টাকা। মার্লবোরো প্রতি শলাকার মূল্য ৩ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১৫ টাকায়। গোল্ডলিফ প্রতি শলাকার মূল্য ১ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১০ টাকায়। প্রতি শলাকায় ১ টাকা করে বেড়ে স্টার সিগারেট বিক্রি হচ্ছে ৭ টাকায়, নেভি ৭ টাকা, পাইলট সিগারেট ৫ টাকা, হলিউড ৫ টাকা, ডারবি ৫ টাকা, শেখ সিগারেট ৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

রাজধানীর বসুন্ধরা এলাকার একটি সিগারেটের দোকানের মালিক মো. রাসেল বলেন, বাজেট পেশের এক-দুই দিন আগে থেকে কোম্পানি সিগারেট দেয়া বন্ধ করে দেয়। পরে সিগারেটের চাহিদা দিলে তারা বেশি দামে বিক্রির কথা বলে। কারণ জানতে চাইলে কোম্পানি বলে, বাজেটে সিগারেটের দাম বাড়বে। তাই বেশি দামে কিনতে হবে।

আর আমরা খুচরা বিক্রেতারা বেশি দামে এনে বেশি দামে বিক্রি করছি।

অন্যদিকে বাজেটে শুল্ক না বাড়লেও বেশি মূল্যে বিক্রি হচ্ছে আমদানি করা পেঁয়াজ ও আদা। শনিবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রতি কেজি আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩০-৩৫ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ২৫-৩০ টাকা। চীনা আদা মানভেদে বিক্রি হয়েছে ১৪০-১৪৫ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৩৫-১৪০ টাকা। আর ঈদের আগে এই আদা বিক্রি হয়েছে ৯০-১০০ টাকা কেজি।

কারওয়ান বাজারের বিক্রেতা মকবুল হোসেন যুগান্তরকে বলেন, আমদানি করা ভারতের পেঁয়াজ আগে ১২০ টাকা করে পাল্লা (৫ কেজি) কিনে আনতাম। কিন্তু এখন ১৫০ টাকা দরে কিনতে হচ্ছে। যে কারণে বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করতে হচ্ছে। এ ছাড়া আদা ও রসুনের দামও পাইকাররা বাড়িয়ে দিয়েছে।

এদিকে কারওয়ান বাজারের সবজি আড়তদাররা বলেন, বাজেটে পণ্য পরিবহনে ৪ শতাংশের জায়গায় ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে। এ জন্য সবজিসহ অন্যান্য নিত্যপণ্যের দাম বাড়তে পারে।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান যুগান্তরকে বলেন, বাজেটসহ যে কোনো অজুহাতে বাজার অস্থিতিশীল করা যাবে না। কারণ বাজেট মাত্র পেশ করা হয়েছে। এই বাজেট চূড়ান্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত কোনো ধরনের পণ্যের দাম বাড়ানোর কথা নয়। আর অহেতুক যদি দাম বাড়ে, তাহলে যারা বাজার মনিটরিংয়ের দায়িত্বে আছে তাদের দেখভাল করতে হবে। প্রয়োজনে অসাধুদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে।

গুঁড়ো দুধে শুল্ক আরোপের বিষয়ে তিনি বলেন, সরকারের গুঁড়ো দুধে শুল্ক আরোপ করার কথা আরেকবার ভাবা উচিত। কারণ এটা শিশুখাদ্য। তাই এর দাম যাতে না বাড়ে সেদিকে সরকারকে খেয়াল রাখতে হবে।

বাজেট কার্যকরের আগেই কয়েকটি পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক (উপ-সচিব) মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার যুগান্তরকে বলেন, আমরা বাজার সবসময় মনিটরিংয়ে রাখছি। বিশেষ করে বাজেটের পর অযৌক্তিকভাবে পণ্যের দাম বাড়ালে অবশ্যই অসাধুদের ভোক্তা আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দেয়া হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×