সুস্থ থাকুন

এই গরমে ত্বকের যত্ন

  যুগান্তর ডেস্ক    ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এখন সময়টা গরমের। এই গরমে ত্বকের বেশি ক্ষতি করে সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি। এ কারণে যে কারও ত্বক বুড়িয়ে যাওয়া, বিবর্ণ হওয়া, এমনকি ত্বকের ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। এর প্রভাবে ত্বকের কোষগুলো মরে গিয়ে ত্বক হারিয়ে ফেলে তার স্বাভাবিক ঔজ্জ্বল্য। তাই ত্বকের যৌবন ধরে রাখতে এই উত্তপ্ত দিনগুলোয় একটু সতর্ক থাকতে হবে।

এড়িয়ে চলুন অতিবেগুনি রশ্মি : ত্বককে সুন্দর, তরতাজা আর উজ্জ্বল রাখতে অতিবেগুনি রশ্মি এড়িয়ে চলতে হবে। তা না হলে ত্বক বুড়িয়ে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে একটি ছাতা বা টোকাজাতীয় টুপি ব্যবহার করা যেতে পারে। ত্বকের রং বিবেচনায় একটি উৎকৃষ্ট সানস্ক্রিন লোশন বা ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন। বাজারে অনেক রকমের সানস্ক্রিন আছে এবং তাতে সান প্রটেকশন ফ্যাক্টর যেমন সান ১৫, ৩০, ৪৫, ৬০ ইত্যাদি আছে। তবে তা ১৫-এর নিচে এবং ৩০-এর বেশি ব্যবহার না করাই ভালো। কালো ত্বকের জন্য এসপিএফ ৮ থেকে ১২ হলেই যথেষ্ট। কারণ এই ত্বকের গায়ে যে মেলানিন নামক পদার্থ থাকে, যা প্রাকৃতিক সানস্ক্রিন হিসেবে কাজ করে।

ঘাম ও ঘামাচি থেকে বাঁচুন : ঘর্মগ্রন্থির রোগ ঘামাচি, যা অতিরিক্ত আর্দ্রতা ও গরমে লোমকূপ বন্ধ হয়ে ঘাম সৃষ্টি করে। গরমকালে দেহ থেকে প্রচুর ঘাম নিঃসরণ হয়, যা ঘর্মগ্রন্থির ছিদ্রপথে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হয়। ফলে ওই নিঃসরণ ঘর্মগ্রন্থিকে ফুটো করে ত্বকের নিচে এসে জমা হতে থাকে এবং সেই স্থান ফুলে ওঠে। সেই সঙ্গে প্রচণ্ড চুলকানি ও সামান্য জ্বালাপোড়া ভাব থাকে। এ জন্য গরম আবহাওয়া এড়িয়ে ঠাণ্ডা পরিবেশে অবস্থান নিশ্চিত করতে হবে, যাতে ত্বকের সংস্পর্শে বাতাস খেলতে পারে।

নয় অতিরিক্ত ঘাম : হাত ও পায়ের তালুসহ শরীর থেকে অল্প পরিমাণ ঘাম হওয়া একটি স্বাভাবিক দৈহিক ক্রিয়া। কিন্তু তা যদি বেশি পরিমাণে হয় বা তা থেকে যদি দুর্গন্ধ নির্গত হয়, যাকে বলে হাইপারহাইড্রোসিস। এটা রোগ-শোক, দুশ্চিন্তাগ্রস্ত ও আবেগচালিত ব্যক্তিদেরই বেশি হয়। এ সমস্যা থাকলে ২০ শতাংশ অ্যালুমিনিয়াম ক্লোরাইড তিন-চার সপ্তাহে তিনবার প্লাস্টিক হ্যান্ড গ্লাভসের মাধ্যমে ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

আরও কিছু পরামর্শ

** গরমকালে দিনে দু’বার কম ক্ষারযুক্ত সাবান ব্যবহার করা উচিত। সে ক্ষেত্রে ভালো কোনো বেবি সোপ বা গ্লিসারিন সাবান ব্যবহার করা যেতে পারে। একেবারেই সাবান ব্যবহার না করা আবার ঠিক নয়, এতে ত্বকে ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাকের সংক্রমণ হতে পারে।

** ত্বক শুষ্ক হলে কার্যক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। তাই ত্বকের আর্দ্রতা রক্ষা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। এ জন্য প্রতিদিন অন্তত ৮ থেকে ১০ গ্লাস পানি পান করা উচিত।

** অতিরিক্ত অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম বা লোশন ব্যবহার করা ঠিক নয়। এতে ত্বক মোটা ও খসখসে হয়ে যায়।

** গরমে ঘামে পোশাক ভিজে গেলেই তা বদলে শুষ্ক ও পাতলা কাপড় পরে নিতে হবে।

** গোসলের পর দেহের ভাঁজগুলোতে যেন পানি জমে না থাকে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। কেননা দেহের ভাঁজের স্যাঁতসেঁতে স্থানগুলোই ছত্রাক জন্মানোর উর্বর ক্ষেত্র।

** গরমকালে তেল ব্যবহার না করা ভালো।

** পাউডারের সঙ্গে ঘাম মিশে স্যাঁতসেঁতে অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে বলে দেহের ভাঁজযুক্ত স্থানগুলোতে পাউডার ব্যবহার না করা ভালো।

** ত্বক ভালো রাখতে ভিটামিন ‘এ’ যুক্ত খাবার সব সময়ই খাওয়া উচিত।

** ঝাল খাবার, টমেটো, সচ, চকোলেট, চা-কফি এবং গরম স্যুপ এড়িয়ে চলুন। কেননা এসব খাবার অতিরিক্ত ঘাম সৃষ্টি করতে পারে।

ডা. দিদারুল আহসান

চর্ম, অ্যালার্জি ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ

আল-রাজি হাসপাতাল, ফার্মগেট, ঢাকা।

মোবাইল-০১৭১৫৬১৬২০০

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×