চিকিৎসার নামে শিশুর চোখ নষ্ট করলেন স্টুডিও মালিক

প্রকাশ : ১৭ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  রাজবাড়ী প্রতিনিধি

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে সাড়ে ৩ বছর বয়সী ছানি পড়া শিশুর একটি চোখ চিরতরে নষ্ট করে ফেলেছে রাজবাড়ী শহরের পাবলিক হেলথ এলাকার মাসুদ মাহবুব নামের এক স্টুডিও মালিক। এ ঘটনায় ওই শিশুর দাদা বাদী হয়ে রাজবাড়ী থানায় মামলা করলে পুলিশ অভিযুক্ত মাসুদ মাহবুবকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠিয়েছে। চোখ হারানো শিশুটির নাম সোনিয়া। সে রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুর তালুকদারপাড়া গ্রামের কৃষি শ্রমিক রফিক সরদারের মেয়ে।

সোনিয়ার দাদা রিকশাচালক খোরশেদ সরদার জানান, তার নাতনি সোনিয়ার ডান চোখে ছানি পড়লে তিনি ছানি রোগের চিকিৎসকের খোঁজ করতে থাকেন। লোক মারফত মাসুদ মাহবুবের কথা জানতে পেরে ১০ এপ্রিল সোনিয়াকে নিয়ে ‘সিঙ্গাপুর স্টুডিও’ নামক দোকানে আসেন। মাসুদ নিজেকে হোমিও চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে বলেন কোনো সমস্যা নাই। ১৮ মাসের চিকিৎসায় সোনিয়ার চোখ পুরোপুরি ভালো হয়ে যাবে।’ এরপর মাসুদ তার কাছ থেকে ১ হাজার টাকা নেন এবং প্রতি সপ্তাহে ১শ’ টাকা করে নিয়ে সোনিয়ার চিকিৎসা করার অঙ্গীকার করে। সে অনুযায়ী মাসুদ মাহবুব সোনিয়ার চোখের চিকিৎসা করে। কিন্তু তার দেয়া ওষুধ ব্যবহার করতে থাকলে সোনিয়ার চোখের অবস্থা আরো খারাপ হতে থাকে। বিষয়টি মাসুদকে জানালে তিনি কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে তাকে ঢাকায় নিতে বলেন। কোনো চিকিৎসক না হয়েও ভুল ওষুধ দিয়ে তার নাতনির চোখের অপচিকিৎসা করে চোখটি চিরতরে নষ্ট করে দিয়েছে। বর্তমানে তার নাতনিকে ঢাকার একটি হাসপাতালের ডাক্তারদের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা করানো হচ্ছে। কিছুদিনের মধ্যেই অপারেশন করে চোখটি ফেলে দিতে হবে বলে তারা জানিয়েছেন।

রাজবাড়ী থানার ওসি স্বজন কুমার মজুমদার যুগান্তরকে জানান, শিশুটির দাদার করা এজাহারটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করে মাসুদকে গ্রেফতার করে সোমবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।