নৌকাডুবিতে সিরাজগঞ্জ ও হবিগঞ্জে ৩ জনের মৃত্যু

জামালপুরে আরও দু’জনের মৃত্যু ও মুন্সীগঞ্জে নিখোঁজ শিশু

  যুগান্তর ডেস্ক ১৫ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিরাজগঞ্জের কাজীপুরে ও হবিগঞ্জের মাধবপুরে বুধবার নৌকাডুবিতে নারী ও শিশুসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া মঙ্গলবার জামালপুরের মাদারগঞ্জে নৌকাডুবিতে দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে এবং মুন্সীগঞ্জে স্পিডবোট ডুবির ঘটনায় এক শিশু নিখোঁজ রয়েছে। কাজীপুরে যমুনা নদীতে বরযাত্রীবাহী নৌকাডুবিতে এক বৃদ্ধা এবং মাধবপুরের হাওরে নৌকাডুবিতে দুই নারীর মৃত্যু হয়। এ সম্পর্কে প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

সিরাজগঞ্জ : কাজীপুর উপজেলার মনসুরনগর ইউনিয়নের সিন্নারচর এলাকার যমুনা নদীতে বুধবার দুপুরে নৌকাডুবির ঘটনায় রেনু বেগম (৬০) মারা যান। রেনু জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ি উপজেলার জামুরিয়া গ্রামের জাভেদ আলী তরফদারের স্ত্রী। এ ঘটনায় নিখোঁজরা হলেন- জাভেদ আলী ও একই এলাকার পুলিশ সদস্য বেলাল হোসেন। মনসুরনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক জানান, সরিষাবাড়ি থেকে বরযাত্রীবাহী একটি নৌকা কাজিপুর উপজেলার চর খাসরাজবাড়ি ইউনিয়নের বিশুড়িগাছা যাচ্ছিল। নৌকাটি কাজিপুরের সিন্নারচর এলাকায় পৌঁছে যমুনার প্রবল স্রোতে ডুবে যায়। এ সময় স্থানীয়রা উদ্ধার অভিযান শুরু করেন। পরে রেনু বেগমকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। ছয়জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে সরিষাবাড়ি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত পুলিশ এবং ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সদস্যরা নিখোঁজদের উদ্ধারে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছেন।

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) : সন্ধ্যা ৬টার দিকে উপজেলার বুল্লা ইউনিয়নের ধনকুড়া হাওরে নৌকা ডুবে দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার চিতনা গ্রামের ফজল হকের স্ত্রী সায়েরা খাতুন (৬০) এবং একই গ্রামের মনসুর আলীর স্ত্রী সৈয়দ বানু (৬২)। এ সময় আনু বেগম (৩৫), মাহমুদা বেগম (৫০) ও সাফিয়া বেগমকে (৬০) আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তাদের মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। সায়েরার ছেলে আক্কাছ মিয়া জানান, চিতনা গ্রাম থেকে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় ৩০ জন আখাউড়া খড়মপুর মাজারে ওরসে যাওয়ার সময় দুর্ঘটনার শিকার হন। মাধবপুর উপজেলার ধনকুড়া হাওরে পৌঁছালে যাত্রীদের চাপে নৌকার মাচাং ভেঙে ডুবে যায়। যাত্রীদের চিৎকার শুনে ধনকুড়া গ্রামের লোকজন আহতদের উদ্ধার করে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। চিকিৎসকরা সায়েরা ও সৈয়দ বানুকে মৃত ঘোষণা করেন।

মাদারগঞ্জ (জামালপুর) : মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে সারিয়াকান্দির চরপাকুরিয়া এলাকায় নৌকাডুবিতে জহুরা ও আমেনা বেগম (৭৫) নামে দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আরও তিনজন নিখোঁজ হন। মাদারগঞ্জ উপজেলার চরপাকেরদহ মধ্যপাড়া গ্রামের ইফসুফ আলীর স্ত্রী জহুরা ছেলের বউ আনতে সারিয়াকান্দি যাওয়ার পথে দুর্ঘটনার শিকার হন। অপরদিকে আমেনার মেয়ে ফুলেরা বেগম, মেয়ে জামাই মগর আলী ও দুই নাতিসহ আত্মীয়ের বাড়ি বেড়াতে যাচ্ছিলেন। এ সময় ফুলেরা ও তার স্বামী-সন্তানসহ বিপরীত দিক থেকে আসা একটি নৌকায় উঠতে পারলেও মা আমেনা পানিতে ডুবে যান। ডুবে যাওয়া নৌকার বেশিরভাগ যাত্রীই মাদারগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা। তারা জানান, সারিয়াকান্দি উপজেলার চালুয়াবাড়ি ইউনিয়নের মানিকদাইড় ঘাট থেকে ৭০ যাত্রী নিয়ে নৌকাটি সারিয়াকান্দি ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। কিন্তু প্রচণ্ড ঢেউয়ে নৌকাটি ডুবে যায়। এ ঘটনায় মাদারগঞ্জের পাকরুল গ্রামের আফিল উদ্দিনের ছেলে জহর আলী ও তার ৭ বছরের মেয়ে সুরমা এবং একই গ্রামের রেজাউল করিমের স্ত্রী কাজলী নিখোঁজ রয়েছেন।

মুন্সীগঞ্জ : বৈরী আবহাওয়া ও তীব্র স্রোতে কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে স্পিডবোটডুবির ঘটনায় এক শিশু নিখোঁজ রয়েছে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টায় মুন্সীগঞ্জের কাছে মাঝ পদ্মায় লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে ১৯ যাত্রী নিয়ে স্পিডবোটটি ডুবে যায়। এতে দীন ইসলাম হোসেন রনি (৮) নামে এক শিশু নিখোঁজ হয়। রনি মিরপুর-১২ এর চার নম্বর রোডের সি-ব্লকের বাসিন্দা সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে। মাওয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম জানান, সকালে শিমুলিয়া ঘাট থেকে ১৯ যাত্রী নিয়ে একটি স্পিডবোট কাঁঠালবাড়ী ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসে। স্পিডবোটটি মাঝ পদ্মায় এলে ইঞ্জিন নষ্ট হয়ে গেলে পদ্মার প্রচণ্ড ঢেউয়ে উল্টে যায়। এ সময় স্পিডবোটের ১৯ জন যাত্রী পানিতে ডুবে যান। ঘাট থেকে অন্য স্পিডবোট গিয়ে উদ্ধার কার্যক্রম চালায়। তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র রনি তার বাবা ও বোনের সঙ্গে দাদাবাড়ি বরিশালে বেড়াতে যাচ্ছিল। ১০ ঘণ্টা খোঁজাখুঁজি করেও রনিকে পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×