খুলনায় বিবিএ’র ছাত্রী ধর্ষণের তথ্য ফাঁস

থানায় মামলা * এলএলবি ছাত্রী ধর্ষণের মামলায় কর কমিশনারের ছেলে রিমান্ডে

  খুলনা ব্যুরো ১৯ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এবার খুলনার নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির আরেক ছাত্রী (২৮) ধর্ষণের ঘটনা ফাঁস হয়েছে। বিবিএর ওই ছাত্রী বর্তমানে অন্তঃসত্ত্বা। এ ঘটনায় নগরীর সদর থানায় মামলা হয়েছে। তবে আইনি জটিলতার কারণে পুলিশ আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি। কয়েকদিন আগে একই বিশ্ববিদ্যালয়ের এলএলবির (২০) ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হন।

ওই ঘটনায় দায়ের করা মামলায় কর কমিশনার প্রশান্ত কুমার রায়ের ছেলে শিঞ্জন রায়কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ১৫ আগস্ট দিবাগত রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। রোববার আদালতের মাধ্যমে তাকে এক দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

জানা যায়, বরগুনার পূর্ব কেওড়া বুনিয়া গ্রামের গোলাম কবির ও তহমিনা কবিরের ছেলে তানজিল ইসলাম (২৫) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তাকে (বিবিএর ছাত্রী) একাধিকবার ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ছাত্রী বাদী হয়ে চলতি বছরের ১৯ জুন খুলনা সদর থানায় তানজিলসহ তার বাবা-মাকে আসামি করে মামলা করলেও বিষয়টি প্রকাশ্যে আসেনি। সম্প্রতি কর কমিশনারের ছেলের এলএলবির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনা মিডিয়ায় প্রকাশ হওয়ার পর বিবিএর ছাত্রী মিডিয়ার শরণাপন্ন হন।

মামলার এজাহারে বিবিএর ছাত্রী উল্লেখ করেন, ফেসবুকের মাধ্যমে ২০১৭ সালে তানজিলের সঙ্গে তার (ছাত্রী) পরিচয় হয়। বছর খানেক প্রেম করার পর ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তানজিল বিয়ের প্রলোভন দিয়ে খুলনার সাতরাস্তা মোড়ের টাইটান আবাসিক হোটেলে নিয়ে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। সর্বশেষ চলতি বছরের ২২ এপ্রিল একই হোটেলের চতুর্থ তলার ৪০৯ নম্বর কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করার পর ওই ছাত্রী গর্ভবতী হয়ে পড়েন। বিষয়টি তানজিলকে জানানো হলে সে বিয়ে করতে পারবে না বলে জানায়। পরবর্তী সময়ে তানজিলের বাবা ও মাকে বিষয়টি জানানো হলে ওই ছাত্রীর সঙ্গে খারাপ ব্যবহারের পাশাপাশি হুমকিও দেয়া হয়।

বিবিএর ছাত্রী যুগান্তরকে বলেন, তানজিল বিবাহিত এবং কন্যাসন্তানের জনক। বিষয়টি গোপন রেখে আমার সঙ্গে মিথ্যা প্রেমের অভিনয় এবং বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে। আমি এখন ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। আমার সন্তানের পিতার পরিচয় দরকার। বিষয়টি তার বাবা ও মাকে জানানোর পর তারা আমার সঙ্গে খুবই খারাপ ব্যবহার করেছে। আমাকে হুমকিও দিয়েছে। এমনকি টাকার বিনিময়ে বিষয়টি সমাধান করার প্রস্তাব দিয়েছে। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের পাশাপাশি সন্তান যেন পিতার পরিচয়ে বড় হতে পারে তার জন্য আইনের আশ্রয় নিয়েছি। জানতে চাইলে খুলনা সদর থানার এসআই শাহনেওয়াজ বলেন, ওই ছাত্রী তিনজনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×