১৯০ টন ভারতীয় পচা গম ফেরত নেয়নি রফতানিকারক

ছড়াতে পারে ক্ষতিকর জীবানু

  পঞ্চগড় প্রতিনিধি ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

খাওয়ার অনুপযোগী ১৯০ টন পচা গম রফতানিকারক ভারতীয় প্রতিষ্ঠান ফেরত না নেয়ায় বিপাকে পড়েছে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। ৫টি ক্ষতিকারক জীবানুতে আক্রান্ত ওই গম ওয়্যার হাউসে রাখা হয়েছে। ফলে সেখানে ছড়িয়ে পড়ছে নানা রোগ-জীবাণু। পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর দিয়ে ২৭ জানুয়ারি গমগুলো ভারত থেকে আমদানির পর তা আটক করে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। পরে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের কেন্দ্রীয় পরীক্ষাগারে পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় তা খাওয়ার অনুপযুক্ত এবং বিভিন্ন ক্ষতিকারক জীবাণুতে আক্রান্ত বলে প্রমাণিত হয়েছে। বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র জানায়, নীলফামারী জেলার মেসার্স ইমতিয়াজ ট্রেডার্স ভারত থেকে ১৯০.১০ টন গম আমদানি করে। এ সময় উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র গমগুলোতে নানা রকম ক্ষতিকারক জীবাণু রয়েছে বলে আশঙ্কা করে। কয়েকদিনের মধ্যে তা পরীক্ষা করার জন্য গমের স্যাম্পল ঢাকায় কৃষি সম্পসারণ অধিদফতরে পাঠানো হয়। সেখানে পরীক্ষায় ৫টি ক্ষতিকারক জীবাণু আক্রান্ত থাকার বিষয়টি ধরা পড়ে। বিষয়টি জানার পর বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র গমগুলো ফেরত দিয়ে আমদানিকারক ও সংশ্লিষ্ট সিএন্ডএফ এজেন্টকে চিঠি দেয়। এরপর কাস্টমস কর্তৃপক্ষ গমগুলোকে আটক দেখালেও আমদানিকারক বা সংশ্লিষ্ট সিএন্ডএফ এজেন্টের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি। গমগুলো ফেরত দেয়ারও উদ্যোগ নেয়া হয়নি। আটক গম এখনও ওয়্যার হাউসে থাকার কারণে জীবাণু ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন অনেকে। এতে ওই স্থলবন্দরের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আমদানি ও রফতানিকারকদের মধ্যে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। অন্যদিকে আমদানিকারক মেসার্স ইমতিয়াজ ট্রেডার্সের পক্ষে সিএন্ডএফ এজেন্ট নাহিরুল ইসলাম গমগুলো ছাড়িয়ে নেয়ার জন্য জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter