চাঁদপুরে ডিমওয়ালা ইলিশ নিয়ে ধূম্রজাল

  চাঁদপুর প্রতিনিধি ০৬ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ইলিশ

নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পরদিন থেকে ডিমওয়ালা ইলিশের বিপুল পরিমাণ আমদানি নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। চাঁদপুর মাছঘাটের আড়তে আসা বেশির ভাগ ইলিশে ডিম পাওয়া গেছে। এতে মা ইলিশ রক্ষায় সরকারের অভিযানের সফলতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

চাঁদপুর মৎস্য বণিক সমবায় সমিতি লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদের সাধারণ সম্পাদক হাজী মো. শবেবরাত সরকার ও ইলিশ আড়তদার রোটারিয়ান আবদুল বারি মানিক জমাদার জানান, মা ইলিশ রক্ষা অভিযানের মেয়াদ শেষে ইলিশ ঘাটে আসা অধিকাংশ ইলিশের পেটে ডিম রয়েছে। ২২ দিনের অভিযান আরও ১০ দিন বাড়িয়ে দিলে ভালো হতো। তবে অভিযান সফল হয়েছে বলে দাবি করেছেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আসাদুল বাকি।

তিনি বলেন, অভিযান সফল হওয়ায় নদী ও সাগরে এখন প্রচুরসংখ্যক ইলিশ ধরা পড়ছে। তিনি বলেন, এখন ধরা পড়া ইলিশের ২০ ভাগের পেটে ডিম দেখা যাচ্ছে। ইলিশ গবেষকদের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে ৮০ ভাগ ইলিশ ডিম ছেড়েছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে চাঁদপুর মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউটের ইলিশ গবেষক ড. আনিসুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, এ বিষয়ে আমরা আরও সাত দিন গবেষণা করব। এরপর বলতে পারব কত ভাগ ইলিশ ডিম ছেড়েছে। পর্যবেক্ষক মহল মনে করেন, ইলিশের প্রজনন রক্ষা করা না গেলে এর উৎপাদন ব্যাহত হবে।

ধারণা করা হচ্ছে- এবার নির্ধারিত সময়ে মা ইলিশ নদীতে ডিমছাড়া শেষ করতে পারেনি। ফলে নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পরও পদ্মা-মেঘনায় জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ডিমওয়ালা মা ইলিশ ধরা পড়ে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×