পিইসি পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি প্রত্যাহার
jugantor
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের শর্ত
পিইসি পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি প্রত্যাহার

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০৯ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গ্রেড পরিবর্তনের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষকরা নিজেদের অবস্থান পরিবর্তন করেছেন। তারা প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা নেবেন। শুক্রবার প্রতিনিধি ও সাধারণ সভা শেষে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে আন্দোলনকারী শিক্ষকদের সংগঠন বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ। সংগঠনের সমন্বয়ক শামসুদ্দীন মাসুদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

প্রধান শিক্ষকদের দশম ও সহকারী শিক্ষকদের একাদশ গ্রেডের দাবিতে আন্দোলনে আছেন শিক্ষকরা। এর অংশ হিসেবে দাবি আদায়ে তারা আগামী ১৭ নভেম্বর থেকে অনুষ্ঠেয় সমাপনী পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দেন। এরপর প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী, সচিব এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) মহাপরিচালক শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। তারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শিক্ষক নেতাদের সাক্ষাৎ করিয়ে দেয়ার দাবি পূরণ এবং বাকি দাবিগুলো বাস্তবায়নে সময় চান। কিন্তু তাদের মন নরম করতে পারেননি। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে গত সপ্তাহে বিকল্প পন্থায় পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পাশাপাশি পরীক্ষার হলে দায়িত্ব পালনের লক্ষ্যে সারা দেশে বিকল্প পরিদর্শক তালিকাও প্রস্তুত হয়। এমন পরিস্থিতিতে চাপে পড়ে শুক্রবার পরীক্ষা বর্জনের কর্মসূচি প্রত্যাহারে বাধ্য হন শিক্ষক নেতারা।

জানতে চাইলে পরিষদের প্রধান মুখপাত্র বদরুল আলম যুগান্তরকে বলেন, কোমলমতি শিশুদের কথা বিবেচনা এবং প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করিয়ে দেয়ার শর্তে আমরা কর্মসূচি স্থগিত করেছি। আমাদের বিশ্বাস, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করা সম্ভব হলে আমরা আমাদের দাবি আদায় করতে পারব। শুক্রবার সভায় পরিষদের ১৪টি সংগঠনের ৬৪ জেলার শিক্ষক প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের শর্ত

পিইসি পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি প্রত্যাহার

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০৯ নভেম্বর ২০১৯, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গ্রেড পরিবর্তনের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষকরা নিজেদের অবস্থান পরিবর্তন করেছেন। তারা প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা নেবেন। শুক্রবার প্রতিনিধি ও সাধারণ সভা শেষে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে আন্দোলনকারী শিক্ষকদের সংগঠন বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ। সংগঠনের সমন্বয়ক শামসুদ্দীন মাসুদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

প্রধান শিক্ষকদের দশম ও সহকারী শিক্ষকদের একাদশ গ্রেডের দাবিতে আন্দোলনে আছেন শিক্ষকরা। এর অংশ হিসেবে দাবি আদায়ে তারা আগামী ১৭ নভেম্বর থেকে অনুষ্ঠেয় সমাপনী পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দেন। এরপর প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী, সচিব এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) মহাপরিচালক শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। তারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শিক্ষক নেতাদের সাক্ষাৎ করিয়ে দেয়ার দাবি পূরণ এবং বাকি দাবিগুলো বাস্তবায়নে সময় চান। কিন্তু তাদের মন নরম করতে পারেননি। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে গত সপ্তাহে বিকল্প পন্থায় পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পাশাপাশি পরীক্ষার হলে দায়িত্ব পালনের লক্ষ্যে সারা দেশে বিকল্প পরিদর্শক তালিকাও প্রস্তুত হয়। এমন পরিস্থিতিতে চাপে পড়ে শুক্রবার পরীক্ষা বর্জনের কর্মসূচি প্রত্যাহারে বাধ্য হন শিক্ষক নেতারা।

জানতে চাইলে পরিষদের প্রধান মুখপাত্র বদরুল আলম যুগান্তরকে বলেন, কোমলমতি শিশুদের কথা বিবেচনা এবং প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করিয়ে দেয়ার শর্তে আমরা কর্মসূচি স্থগিত করেছি। আমাদের বিশ্বাস, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করা সম্ভব হলে আমরা আমাদের দাবি আদায় করতে পারব। শুক্রবার সভায় পরিষদের ১৪টি সংগঠনের ৬৪ জেলার শিক্ষক প্রতিনিধিরা অংশ নেন।