বাংলাদেশিদের ভুটান ভ্রমণে গুনতে হবে ১২শ’ গুলট্রাম
jugantor
বাংলাদেশিদের ভুটান ভ্রমণে গুনতে হবে ১২শ’ গুলট্রাম

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ভুটানের ভ্রমণে এবার থেকে দেশটির সরকারকে দিতে হবে অর্থ। বাংলাদেশ, ভারত ও মালদ্বীপের পর্যটকদের জন্য নতুন ভ্রমণ কর জারি করেছে দেশটি। ভুটানের পর্যটন মন্ত্রণালয়ে নতুন নিয়ম অনুযায়ী, প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য প্রতিদিন ১ হাজার ২০০ গুলট্রাম (বাংলাদেশি ১ হাজার ৪৩৬ টাকার মতো)। আর ৬ থেকে ১২ বছরের শিশুদের জন্য ৬০০ গুলট্রাম দিতে হবে। খবর ইন্ডিয়া টুডে। রাজকীয় ভুটানের আইনসভার এই সিদ্ধান্ত চলতি বছরের জুলাই থেকে কার্যকর হবে। তবে এই সিদ্ধান্তে ভুটানের পর্যটক কমে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন অনেকে। নতুন ফির নাম সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট ফি (এসডিএফ)?

ভুটান সরকারের নতুন নিয়মে বলা হয়েছে, ৫ বছর বয়সী বিদেশি কাউকেই এন্ট্রি ফি দিতে হবে না। ৬-১২ বছর পর্যন্ত বয়সীদের দিতে হবে অর্থ। বাংলাদেশ, ভারত ও মালদ্বীপের নাগরিকদের জন্য এ নিয়ম চালু হচ্ছে। প্রতিবছর অনেক বিদেশি পর্যটক (বিশেষ করে ভারত, মালদ্বীপ ও বাংলাদেশ) ভুটান বেড়াতে যান। পর্যটকদের ভিড়ের চাপ সামলাতেই এই ফি চালু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে ইউরোপ, আমেরিকা, জাপানসহ বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের দিতে হতো জনপ্রতি ২৫০ ডলার, যা একই রকম থাকছে। আগে বাংলাদেশ, ভারত ও মালদ্বীপের পর্যটকদের ভুটানে বেড়াতে যেতে ভ্যালিড ট্র্যাভেল ডকুমেন্ট থাকলেই হতো। কোনো এন্ট্রি ফি লাগত না। পাসপোর্ট হলেই হতো। তবে এবার অর্থ গুনেই ভুটানে যেতে হবে। ভারত ও বাংলাদেশ থেকে সড়কপথে ভুটান গেলে দেশটির অভিবাসন দফতর ফুন্টশেলিং থেকে এন্ট্রি পারমিট নিতে হয়। আর যারা বিমানে ভুটান যান, তাদের পারো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে পারমিট নিতে হয়। সেই এন্ট্রি পারমিট শুধু থিম্পু ও পারোর জন্যই।

ভুটান পর্যটন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পর্যটকদের উচ্চমানের পরিষেবা দেয়াই এই নীতি পরিবর্তনের অন্যতম কারণ। ১০ বছরে পর্যটকদের সংখ্যা প্রায় ১০ গুণ বেড়ে যাওয়ায় পরিষেবার মান রক্ষা করা যাচ্ছিল না দাবি করেছে তারা। ২০১৮ সালে মোট ২ লাখ ৭৪ হাজার পর্যটক ভুটানে যান। তাদের মধ্যে অন্তত ২ লাখই ছিলেন ভারত, বাংলাদেশ এবং মালদ্বীপের। তার মধ্যে আবার ভারতীয়দের সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। কমপক্ষে ১ লাখ ৮০ হাজার। পর্যটন শুল্ক ছাড়াই ভ্রমণ এর মূল কারণ বলে দাবি করেছে দেশটির পর্যটন মন্ত্রণালয়।

বাংলাদেশিদের ভুটান ভ্রমণে গুনতে হবে ১২শ’ গুলট্রাম

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ভুটানের ভ্রমণে এবার থেকে দেশটির সরকারকে দিতে হবে অর্থ। বাংলাদেশ, ভারত ও মালদ্বীপের পর্যটকদের জন্য নতুন ভ্রমণ কর জারি করেছে দেশটি। ভুটানের পর্যটন মন্ত্রণালয়ে নতুন নিয়ম অনুযায়ী, প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য প্রতিদিন ১ হাজার ২০০ গুলট্রাম (বাংলাদেশি ১ হাজার ৪৩৬ টাকার মতো)। আর ৬ থেকে ১২ বছরের শিশুদের জন্য ৬০০ গুলট্রাম দিতে হবে। খবর ইন্ডিয়া টুডে। রাজকীয় ভুটানের আইনসভার এই সিদ্ধান্ত চলতি বছরের জুলাই থেকে কার্যকর হবে। তবে এই সিদ্ধান্তে ভুটানের পর্যটক কমে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন অনেকে। নতুন ফির নাম সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট ফি (এসডিএফ)?

ভুটান সরকারের নতুন নিয়মে বলা হয়েছে, ৫ বছর বয়সী বিদেশি কাউকেই এন্ট্রি ফি দিতে হবে না। ৬-১২ বছর পর্যন্ত বয়সীদের দিতে হবে অর্থ। বাংলাদেশ, ভারত ও মালদ্বীপের নাগরিকদের জন্য এ নিয়ম চালু হচ্ছে। প্রতিবছর অনেক বিদেশি পর্যটক (বিশেষ করে ভারত, মালদ্বীপ ও বাংলাদেশ) ভুটান বেড়াতে যান। পর্যটকদের ভিড়ের চাপ সামলাতেই এই ফি চালু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে ইউরোপ, আমেরিকা, জাপানসহ বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের দিতে হতো জনপ্রতি ২৫০ ডলার, যা একই রকম থাকছে। আগে বাংলাদেশ, ভারত ও মালদ্বীপের পর্যটকদের ভুটানে বেড়াতে যেতে ভ্যালিড ট্র্যাভেল ডকুমেন্ট থাকলেই হতো। কোনো এন্ট্রি ফি লাগত না। পাসপোর্ট হলেই হতো। তবে এবার অর্থ গুনেই ভুটানে যেতে হবে। ভারত ও বাংলাদেশ থেকে সড়কপথে ভুটান গেলে দেশটির অভিবাসন দফতর ফুন্টশেলিং থেকে এন্ট্রি পারমিট নিতে হয়। আর যারা বিমানে ভুটান যান, তাদের পারো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে পারমিট নিতে হয়। সেই এন্ট্রি পারমিট শুধু থিম্পু ও পারোর জন্যই।

ভুটান পর্যটন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পর্যটকদের উচ্চমানের পরিষেবা দেয়াই এই নীতি পরিবর্তনের অন্যতম কারণ। ১০ বছরে পর্যটকদের সংখ্যা প্রায় ১০ গুণ বেড়ে যাওয়ায় পরিষেবার মান রক্ষা করা যাচ্ছিল না দাবি করেছে তারা। ২০১৮ সালে মোট ২ লাখ ৭৪ হাজার পর্যটক ভুটানে যান। তাদের মধ্যে অন্তত ২ লাখই ছিলেন ভারত, বাংলাদেশ এবং মালদ্বীপের। তার মধ্যে আবার ভারতীয়দের সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। কমপক্ষে ১ লাখ ৮০ হাজার। পর্যটন শুল্ক ছাড়াই ভ্রমণ এর মূল কারণ বলে দাবি করেছে দেশটির পর্যটন মন্ত্রণালয়।