দায় স্বীকার করে গ্রেফতার আরমানের জবানবন্দি
jugantor
রংপুরে অডিট কর্মকর্তা খুন
দায় স্বীকার করে গ্রেফতার আরমানের জবানবন্দি

  রংপুর ব্যুরো  

২৩ মে ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রংপুরে জেলা প্রশাসকের দফতরের সাবেক অডিট কর্মকর্তা আরজুমান বানু মিনু (৬৫) খুনের ঘটনায় রংপুর মহানগর পুলিশের অপরাধ শাখার হাতে গ্রেফতার আরমান হোসেন ১৬৪ ধারায় জবানবিন্দতে দায় স্বীকার করেছে। এটি নিশ্চিত করেছেন মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (অপরাধ) শহিদুল্লাহ কাওছার।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার বিকালে মেট্রোপলিটন চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে সে দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। জবানবন্দিতে সে খুনের পরিকল্পনা, কারা জড়িত এবং তাকে কে ভাড়াটিয়া খুনি হিসেবে কাজে লাগিয়েছে তার বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছে। সে তার অপরাধ জগতের নানা কাহিনী জবানবন্দিতে জানিয়েছে বলে জানা গেছে। এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত আরমান হোসেনকে হত্যাকাণ্ডের একদিন পর মহানগর পুলিশের অপরাধ শাখা বুধবার গ্রেফতার করে। সে ভাড়াটিয়া খুনি হিসেবে দুই লাখ টাকার বিনিময়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটায়। হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারীকে পুলিশ এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি। পারিবারিক বিরোধের জেরে এ হত্যাকাণ্ড হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে নগরীর মুলাটোল হকের গলি এলাকার নিজ বাড়ি থেকে আরজুমান বানু মিনুর লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত মিনু জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের অডিট অফিসার হিসেবে চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন। ওই বাড়িতে তিনি একাই থাকতেন।

পুলিশ গ্রেফতার আরমানের দেয়া তথ্য মতে, হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত চাকু, শ্বাসরোধে ব্যবহৃত ওড়না, মিনুর ব্যবহৃত ২টি মোবাইল ফোনসহ গুরুত্বপূর্ণ আলামত উদ্ধার করে।

রংপুরে অডিট কর্মকর্তা খুন

দায় স্বীকার করে গ্রেফতার আরমানের জবানবন্দি

 রংপুর ব্যুরো 
২৩ মে ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রংপুরে জেলা প্রশাসকের দফতরের সাবেক অডিট কর্মকর্তা আরজুমান বানু মিনু (৬৫) খুনের ঘটনায় রংপুর মহানগর পুলিশের অপরাধ শাখার হাতে গ্রেফতার আরমান হোসেন ১৬৪ ধারায় জবানবিন্দতে দায় স্বীকার করেছে। এটি নিশ্চিত করেছেন মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (অপরাধ) শহিদুল্লাহ কাওছার।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার বিকালে মেট্রোপলিটন চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে সে দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। জবানবন্দিতে সে খুনের পরিকল্পনা, কারা জড়িত এবং তাকে কে ভাড়াটিয়া খুনি হিসেবে কাজে লাগিয়েছে তার বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছে। সে তার অপরাধ জগতের নানা কাহিনী জবানবন্দিতে জানিয়েছে বলে জানা গেছে। এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত আরমান হোসেনকে হত্যাকাণ্ডের একদিন পর মহানগর পুলিশের অপরাধ শাখা বুধবার গ্রেফতার করে। সে ভাড়াটিয়া খুনি হিসেবে দুই লাখ টাকার বিনিময়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটায়। হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারীকে পুলিশ এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি। পারিবারিক বিরোধের জেরে এ হত্যাকাণ্ড হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে নগরীর মুলাটোল হকের গলি এলাকার নিজ বাড়ি থেকে আরজুমান বানু মিনুর লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত মিনু জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের অডিট অফিসার হিসেবে চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন। ওই বাড়িতে তিনি একাই থাকতেন।

পুলিশ গ্রেফতার আরমানের দেয়া তথ্য মতে, হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত চাকু, শ্বাসরোধে ব্যবহৃত ওড়না, মিনুর ব্যবহৃত ২টি মোবাইল ফোনসহ গুরুত্বপূর্ণ আলামত উদ্ধার করে।