প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ

ওসমানীনগরে টিআর প্রকল্পের বিল থেকে টাকা আদায়

  ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি ২৭ জুন ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিলেটের ওসমানীনগরে সরকারি টিআর প্রকল্পের বিল থেকে জোরপূর্বক টাকা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিসের উপসহকারী প্রকৌশলী আলমগীর রেজার বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকের কাছে এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ করেছেন প্রকল্প কমিটির সদস্য আবদুল মতিন।

জেলা প্রশাসকের কাছে দেয়া লিখিত অভিযোগে (স্মারক নং-২৩) উল্লেখ করা হয় চলতি অর্থবছরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ময়নুল হক চৌধুরী টিআর সাধারণ ২য় পর্যায়ের বরাদ্দ থেকে উপজেলার ওছমানপুর ইউপির কমরপুর পাকা সড়কের মুখ হতে কিত্তে কমরপুর জামে মসজিদ পর্যন্ত রাস্তা মেরামত ও উন্নয়ন প্রকল্প (নং-২৭) জন্য ৪৪,৫০০ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়।

প্রকল্প কমিটি ও স্থানীয় জনসাধারণের সহযোগিতায় প্রকল্পের কাজ শতভাগ শেষ করা হয়। ১৫ জুন উপজেলা পিআইও অফিস থেকে প্রকল্পের সভাপতি স্থানীয় ইউপি সদস্যকে ৪৪,৫০০ টাকার বিল দেন। প্রকল্প সভাপতি ব্যাংক থেকে ৪৪,৫০০ টাকা তোলার পর পিআইও অফিসের উপসহকারী প্রকৌশলী আলমগীর রেজা সভাপতির কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা রেখে দেন। সে টাকার কোনো রসিদ দেননি উপসহকারী প্রকৌশলী।

অভিযুক্ত উপসহকারী প্রকৌশলী আলমগীর রেজা বলেন, অনেক দিন থেকে ওসমানীনগরে আছি। আমার বিরুদ্ধে এ রকম কোনো অভিযোগ নেই। আমার বিরুদ্ধে এটা ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। ৫ হাজার টাকা আদায় করার বিষয় তিনি বলেন, টাকাটা আমার কাছে আছে। এটা ভ্যাট টেক্সের জন্য রাখা ছিল। তারপরও আমি অভিযোগকারী আবদুল মতিন ও প্রকল্প সভাপতি ইউপি সদস্য ফারুককে বলেছি টাকাগুলো আপনারা নিয়ে গিয়ে নিজেরা ভ্যাট টেক্স দেন।

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম বলেন, প্রতিদিন আমার অফিসে দুই থেকে আড়াইশ’ বিভিন্ন রকমের চিঠি ও অভিযোগ আসে। এ বিষয়টি এখনও আমার নজরে আসেনি।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত