বরিশালে বন্ধুকে জবাই করে হত্যা অটোরিকশা ছিনতাই

  বরিশাল ব্যুরো ১৩ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বরিশালে বন্ধুকে জবাই করে হত্যার পর সেই লাশ নদীতে ফেলে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরে ছিনতাই করা বন্ধুর অটোরিকশা দিয়ে রোজগার শুরু করলেও শেষ রক্ষা হয়নি ঘাতক আসলামের। পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছে সেই ঘাতক বন্ধু। পুরো হত্যাকাণ্ডটি সংঘটিত হয় স্ত্রী ও শাশুড়ির সামনে। তারপর ঠাণ্ডা মাথায় শ্বশুরবাড়িতে ফিরে স্বাভাবিক জীবনযাপন করছিল। কিন্তু বন্ধু রুমানের অটোগাড়িটি শনাক্ত হওয়ায় ফাঁস হয়ে যায় নৃশংস এ ঘটনা। নিহতের স্বজনদের চেষ্টায় অটোগাড়িটি উদ্ধার ও সন্দেহভাজন দু’জনকে আটকের পর রিমান্ডে নিলে বেরিয়ে আসতে শুরু করে চাঞ্চল্য সৃষ্টিকারী হত্যাকাণ্ডের কারণ।

জানা গেছে, বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের ২৪নং ওয়ার্ড সাগরদী এলাকার ধান গবেষণা সড়কে ঘাতক আসলামের বসবাস। সংসারে অভাব ঘোচাতে তিন মাস আগে একই এলাকার বন্ধু রুমানকে হত্যার পরিকল্পনা করে ঘাতক ও তার স্ত্রী।

বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই আল আমিন জানান, নিহত রুমানের খালা সুমি বেগমের দাখিল করা একটি সাধারণ ডায়েরির সূত্র ধরে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচনের কাজ শুরু করেন। পরে অটোমালিক রিফাতের দায়ের করা মামলায় ঘাতক আসলাম ও তার স্ত্রীকে গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ডের আবেদন করলে আদালত দু’দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ডে আটককৃতরা স্বীকার করে তারা কীভাবে ঠাণ্ডা মাথায় হত্যাকাণ্ডটি ঘটিয়েছে।

রিমান্ডে আসলাম স্বীকার করে, অভাবের তাড়নায় তিন মাস আগেই পরিকল্পনা করে প্রয়োজনে মার্ডার করে হলেও দরিদ্রতা ঘোচাতে হবে। পরিকল্পনা অনুযায়ী রুমানকে নিয়ে ঘটনার দিন ২৯ জুন রাতে বাকেরগঞ্জ শ্বশুরবাড়ির উদ্দেশে রওনা হয়। রাত আনুমানিক ৩টার পরে দুধল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম মোর্শেদ খান উজ্জ্বলের বাড়ির পাশে অটোটি থামাতে বলে। অটোতে তার স্ত্রী খাদিজা বেগম, শাশুড়ি সাহিদা বেগম ছিলেন। অটোগাড়িটি রুমান থামালে ‘পান খাওয়ার’ জন্য নিকটস্থ রাঙ্গামাটি নদীর পাড়ে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী রুমানকে ল্যাং মেরে ফেলে দিয়ে কোমরে গুঁজে রাখা ধারালো চাকু দিয়ে চেপে ধরে একাই জবাই করে আসলাম। তারপর লাশটি নদীতে ফেলে দেয়। কিন্তু লাশটি ভেসে ওঠায় আসলাম নদীতে নেমে পেট কেটে লাশটি ভাসিয়ে দেয় নদীতে। তারপর অটোটি নিয়ে আসলাম শ্বশুরবাড়িতে চলে যায়।

বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি নুরুল ইসলাম জানিয়েছেন, এ ঘটনায় নতুন করে হত্যা মামলা দায়ের করা হবে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আল আমিন জানিয়েছেন, নিহত রুমানের লাশ এখনও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। লাশ উদ্ধারে অভিযান চলছে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত