উপজেলা চেয়ারম্যানের শ্লীলতাহানি

যশোরে পাঁচজনের নামে মামলা

  যশোর ব্যুরো ২৮ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

যশোরের মনিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান নাজমা খানমের শ্লীলতাহানি, কুরুচিপূর্ণ অঙ্গভঙ্গি, গালিগালাজ ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগে পাঁচজনের নামে আদালতে মামলা হয়েছে। সোমবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মনিরামপুর আমলি আদালতের বিচারক মঞ্জুরুল ইসলাম ভুক্তভোগীর অভিযোগ গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার পবরর্তী তারিখ ২০ অক্টোবর ধার্য করা হয়েছে।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবদুল লতিফ। আসামিরা হলেন: মনিরামপুরের ঝাঁপা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শামছুল হক মন্টু, ভোজগাতি ইউপি চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক, মনিরামপুর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জলি আক্তার, মনিরামপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু ও মনিরামপুরের মৃত ইব্রাহিম খানের ছেলে কবীর খান। উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু যশোর-৫ আসনের এমপি ও স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যের ভাগনে। আর কবির খান প্রতিমন্ত্রীর এপিএস।

এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, ২২ জুলাই মনিরামপুর উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সভাপতিত্বে মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। কমিটির প্রধান উপদেষ্টা স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য ও বাদী উপদেষ্টা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। সভায় প্রথমে পৌর এলাকায় চারটি প্রতিষ্ঠানে চুরি সংঘটিত হওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়। প্রশাসন এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ না নেয়ায় প্রতিমন্ত্রীসহ সবাই উদ্বেগ প্রকাশ করেন। হঠাৎ এজেন্ডাবহির্ভূত বিষয়ে এক নম্বর আসামি বাদী উপজেলা চেয়ারম্যান নাজমা খানমের ছেলে ফেসবুকে জনপ্রতিনিধিদের কটাক্ষ করে স্ট্যাটাস দিয়েছে বলে বিচার দাবি করেন। এজেন্ডাবহির্ভূত বিষয় হলেও বাদী যুক্তিসঙ্গত জবাব দেন। এরপর আসামিরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে হট্টগোল, হইচই করে বাদীকে গালিগালাজ ও মারধর করতে যান। বাদী দ্রুত মিলনায়তন ত্যাগ করে জিপ গাড়িতে ওঠার সময় আসামিরা পেছনে পেছনে গিয়ে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন। আসামিদের কুরুচিপূর্ণ অঙ্গভঙ্গি, এমনকি বাদীর পরনের কাপড় টানাটানি করে শ্লীলতাহানি ঘটান। আসামিদের এমন কর্মকাণ্ডে বাদী অপমানিত ও লজ্জা পেয়েছেন। টানা-হ্যাঁচড়ার একপর্যায়ে বাদীর ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে মূল্যবান কাগজপত্র ও একটি শাওমি মোবাইল ফোন পড়ে যায়। তিন নম্বর আসামি মোবাইল ফোন ও মূল্যবান কাগজপত্র নিয়ে যান। আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে থাকা সদস্যরা উপস্থিত হলে আসামিরা দ্রুত মিলনায়তনে প্রবেশ করেন। দুর্নীতির বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানে থাকায় দুর্নীতিবাজ আসামিরা বাদীকে হেনস্তা করেছেন।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত