দৌলতদিয়ায় ঘরমুখো মানুষের ঢল
jugantor
দৌলতদিয়ায় ঘরমুখো মানুষের ঢল
নেই সামাজিক দূরত্ব

  রাজবাড়ী ও গোয়ালন্দ প্রতিনিধি  

৩১ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে মানুষ। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ঘাট এলাকায় ঘরমুখো মানুষের ঢল নামে। পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে আসা প্রতিটি লঞ্চ-ফেরিতেও ছিল উপচেপড়া ভিড়। কোথাও মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব। শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটেও যাত্রী চাপ বেড়েছে। যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া নেয়ার অভিযোগও পাওয়া গেছে। অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ায় তিনটি পরিবহনকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সরেজমিনে দেখা যায়, দৌলতদিয়া ঘাটে এসে বিপুলসংখ্যক মানুষ নানা দুর্ভোগে পড়েছেন। দুপুর ১টা থেকে প্রায় বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা বর্ষণে হাজার হাজার মানুষ ভিজে একাকার হয়ে যান। তাদের জন্য নেই পর্যাপ্ত ছাউনির ব্যবস্থা। জেলা প্রশাসনের অনুমতি সাপেক্ষে ঘাট এলাকায় দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন রুটের জন্য অতিরিক্ত ৭টি অস্থায়ী টিকিট কাউন্টার বসানো হলেও সেখানে যাত্রীসেবার বিশেষ কোনো ব্যবস্থা নেই। উপরন্তু প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে কাউন্টারগুলো থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করেন অনেক যাত্রী।

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট : শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি জানান, ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের চাপ কিছুটা বেড়েছে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে। কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে দূরপাল্লার যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ায় তিনটি পরিবহনকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

পাটুরিয়া ঘাটে ঘরমুখো মানুষের চাপ কম : মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, ঈদের আগে প্রতিবছর যাত্রী ও যানবাহনের বাড়তি চাপ থাকলেও এবার পাটুরিয়া ফেরিঘাটে যানবাহন ও যাত্রীর চাপ কম। অন্যান্য ঈদের আগে এ ঘাটে যেখানে আড়াই শতাধিক যাত্রীবাহী বাস নদী পারাপারের জন্য অপেক্ষায় থাকত, সেখানে এবার অর্ধেকেরও কম সংখ্যক দূরপাল্লার গাড়ি দেখা গেছে।

দৌলতদিয়ায় ঘরমুখো মানুষের ঢল

নেই সামাজিক দূরত্ব
 রাজবাড়ী ও গোয়ালন্দ প্রতিনিধি 
৩১ জুলাই ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে মানুষ। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ঘাট এলাকায় ঘরমুখো মানুষের ঢল নামে। পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে আসা প্রতিটি লঞ্চ-ফেরিতেও ছিল উপচেপড়া ভিড়। কোথাও মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব। শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটেও যাত্রী চাপ বেড়েছে। যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া নেয়ার অভিযোগও পাওয়া গেছে। অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ায় তিনটি পরিবহনকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সরেজমিনে দেখা যায়, দৌলতদিয়া ঘাটে এসে বিপুলসংখ্যক মানুষ নানা দুর্ভোগে পড়েছেন। দুপুর ১টা থেকে প্রায় বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা বর্ষণে হাজার হাজার মানুষ ভিজে একাকার হয়ে যান। তাদের জন্য নেই পর্যাপ্ত ছাউনির ব্যবস্থা। জেলা প্রশাসনের অনুমতি সাপেক্ষে ঘাট এলাকায় দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন রুটের জন্য অতিরিক্ত ৭টি অস্থায়ী টিকিট কাউন্টার বসানো হলেও সেখানে যাত্রীসেবার বিশেষ কোনো ব্যবস্থা নেই। উপরন্তু প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে কাউন্টারগুলো থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করেন অনেক যাত্রী।

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট : শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি জানান, ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের চাপ কিছুটা বেড়েছে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে। কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে দূরপাল্লার যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ায় তিনটি পরিবহনকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

পাটুরিয়া ঘাটে ঘরমুখো মানুষের চাপ কম : মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, ঈদের আগে প্রতিবছর যাত্রী ও যানবাহনের বাড়তি চাপ থাকলেও এবার পাটুরিয়া ফেরিঘাটে যানবাহন ও যাত্রীর চাপ কম। অন্যান্য ঈদের আগে এ ঘাটে যেখানে আড়াই শতাধিক যাত্রীবাহী বাস নদী পারাপারের জন্য অপেক্ষায় থাকত, সেখানে এবার অর্ধেকেরও কম সংখ্যক দূরপাল্লার গাড়ি দেখা গেছে।