চুয়াডাঙ্গায় রান্নার কথা বলে ডেকে নিয়ে দুই বোনকে গণধর্ষণ
jugantor
চুয়াডাঙ্গায় রান্নার কথা বলে ডেকে নিয়ে দুই বোনকে গণধর্ষণ

  চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি  

২৭ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চুয়াডাঙ্গার বোয়ালিয়া গ্রামে রান্নার কাজের কথা বলে ডেকে দুই বোনকে গণধর্ষণ করেছে লম্পটরা। গণধর্ষণের শিকার দুই বোনের ডাক্তারি পরীক্ষা বুধবার চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে সম্পন্ন হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত একজনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতার সুমন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামের রইচ উদ্দিনের ছেলে। অন্য চার ধর্ষককে গ্রেফতারের চেষ্টা করছে পুলিশ।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেগমপুর ইউনিয়নের বোয়ালিয়া গ্রামের পাঁচ বন্ধু সোমবার রাতে মোবাইল ফোনে আলমডাঙ্গা উপজেলার দুই বোনকে রান্নার কাজ আছে বলে ডেকে নেয়। তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে দুই বোন বোয়ালিয়া গ্রামের আলতাফ মণ্ডলের ছেলে মিলনের বাড়িতে যায়। রাতে মিলনসহ তার পাঁচ বন্ধু দুই বোনকে গণধর্ষণ করে।

অন্য চার ধর্ষক একই গ্রামের রইচ উদ্দিনের ছেলে সুমন, ইছার উদ্দিনের ছেলে সাগর, সিরাজুল ইসলামের ছেলে আরিফুল ইসলাম ও অজ্ঞাত একজন। মঙ্গলবার রাতে ধর্ষণের শিকার দুই বোন দর্শনা থানায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করেন। রাতেই দর্শনা থানার ওসি মাহবুবুর রহমান কাজল ও তদন্ত ওসি শেখ মাহাবুবুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে ধর্ষক সুমনকে গ্রেফতার করেন। চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম বলেন, অভিযুক্ত একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

চুয়াডাঙ্গায় রান্নার কথা বলে ডেকে নিয়ে দুই বোনকে গণধর্ষণ

 চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি 
২৭ আগস্ট ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চুয়াডাঙ্গার বোয়ালিয়া গ্রামে রান্নার কাজের কথা বলে ডেকে দুই বোনকে গণধর্ষণ করেছে লম্পটরা। গণধর্ষণের শিকার দুই বোনের ডাক্তারি পরীক্ষা বুধবার চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে সম্পন্ন হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত একজনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতার সুমন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামের রইচ উদ্দিনের ছেলে। অন্য চার ধর্ষককে গ্রেফতারের চেষ্টা করছে পুলিশ।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেগমপুর ইউনিয়নের বোয়ালিয়া গ্রামের পাঁচ বন্ধু সোমবার রাতে মোবাইল ফোনে আলমডাঙ্গা উপজেলার দুই বোনকে রান্নার কাজ আছে বলে ডেকে নেয়। তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে দুই বোন বোয়ালিয়া গ্রামের আলতাফ মণ্ডলের ছেলে মিলনের বাড়িতে যায়। রাতে মিলনসহ তার পাঁচ বন্ধু দুই বোনকে গণধর্ষণ করে।

অন্য চার ধর্ষক একই গ্রামের রইচ উদ্দিনের ছেলে সুমন, ইছার উদ্দিনের ছেলে সাগর, সিরাজুল ইসলামের ছেলে আরিফুল ইসলাম ও অজ্ঞাত একজন। মঙ্গলবার রাতে ধর্ষণের শিকার দুই বোন দর্শনা থানায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করেন। রাতেই দর্শনা থানার ওসি মাহবুবুর রহমান কাজল ও তদন্ত ওসি শেখ মাহাবুবুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে ধর্ষক সুমনকে গ্রেফতার করেন। চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম বলেন, অভিযুক্ত একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।