বাঞ্ছারামপুরে টেঁটাযুদ্ধে আহত ১৪, আটক ৮
jugantor
বাঞ্ছারামপুরে টেঁটাযুদ্ধে আহত ১৪, আটক ৮

  বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি  

২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাঞ্ছারামপুর উপজেলার পাহাড়িয়াকান্দি ও জয়কালীপুর দুই গ্রামের লোকজনের মধ্যে টেঁটাযুদ্ধ হয়েছে। শনিবার সকাল ১০টায় সংঘর্ষ শুরু হয়ে চলে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। সংঘর্ষে ১৪ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে গুরুতর আহত দু’জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে ও আটজনকে আটক করে। এ সময় উদ্ধার করা হয়েছে দেশীয় অস্ত্র।

শুক্রবার রাত ১০টার দিকে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার জয়কালীপুর গ্রামে আবু কালামের বাড়িতে বিরিয়ানি পার্টিতে মোবাইল চুরি হয়। পরে এই অনুষ্ঠানের অতিথি নবীনগর উপজেলার সলিমগঞ্জ বাজারের খানকাপাড়ার টাইলস মিস্ত্রি সাগর মিয়ার বাসায় গিয়ে জয়কালীপুরের সাদ্দামের নেতৃত্বে কিছু ছেলে তাকে ধরে নিয়ে আসতে চায়। এ সময় পাহাড়িয়াকান্দির শুক্কুর আলী বাধা দেন। তখন সাদ্দাম গ্রুপের লোকজন শুক্কুর আলীর সলিমগঞ্জের বসতবাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর করে। পরে এই ঘটনার জের ধরে শনিবার সকালে দুই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার ওসি সালাউদ্দিন চৌধুরী জানান, পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে আছে। এছাড়াও নবীনগর থানার সলিমগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান।

বাঞ্ছারামপুরে টেঁটাযুদ্ধে আহত ১৪, আটক ৮

 বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি 
২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাঞ্ছারামপুর উপজেলার পাহাড়িয়াকান্দি ও জয়কালীপুর দুই গ্রামের লোকজনের মধ্যে টেঁটাযুদ্ধ হয়েছে। শনিবার সকাল ১০টায় সংঘর্ষ শুরু হয়ে চলে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। সংঘর্ষে ১৪ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে গুরুতর আহত দু’জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে ও আটজনকে আটক করে। এ সময় উদ্ধার করা হয়েছে দেশীয় অস্ত্র।

শুক্রবার রাত ১০টার দিকে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার জয়কালীপুর গ্রামে আবু কালামের বাড়িতে বিরিয়ানি পার্টিতে মোবাইল চুরি হয়। পরে এই অনুষ্ঠানের অতিথি নবীনগর উপজেলার সলিমগঞ্জ বাজারের খানকাপাড়ার টাইলস মিস্ত্রি সাগর মিয়ার বাসায় গিয়ে জয়কালীপুরের সাদ্দামের নেতৃত্বে কিছু ছেলে তাকে ধরে নিয়ে আসতে চায়। এ সময় পাহাড়িয়াকান্দির শুক্কুর আলী বাধা দেন। তখন সাদ্দাম গ্রুপের লোকজন শুক্কুর আলীর সলিমগঞ্জের বসতবাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর করে। পরে এই ঘটনার জের ধরে শনিবার সকালে দুই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার ওসি সালাউদ্দিন চৌধুরী জানান, পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে আছে। এছাড়াও নবীনগর থানার সলিমগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান।