মাদারীপুরে পারিবারিক বিরোধে ঘরে আগুন, শিশু দগ্ধ
jugantor
মাদারীপুরে পারিবারিক বিরোধে ঘরে আগুন, শিশু দগ্ধ

  টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি  

২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাদারীপুর সদর উপজেলার রাস্তি ইউনিয়নের পূর্ব হাজরাপুর গ্রামে পারিবারিক কলহের জের ধরে বসতঘরে আগুন দেয়ার অভিযোগ উঠেছে শ্বশুর রাজ্জাক শেখের বিরুদ্ধে। শনিবার শেষ রাতের এই আগুনে শিশু মিম আক্তারের (৬) শরীর ঝলসে গেছে। তাকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে রাজ্জাক শেখ গা-ঢাকা দিয়েছে। পুত্রবধূ সম্পা আক্তার বলেন, ‘অনেক দিন ধরেই আমার শ্বশুর আমাদের বাড়ি থেকে চলে যেতে বলছিলেন। আগুন দিয়ে ঘর পুড়িয়ে ফেলার হুমকিও দিয়ে আসছিলেন। শনিবার বিকালে আমার ননদ মিস্ত্রি নিয়ে আসেন বাড়িতে ঘর তোলার জন্য।

এ নিয়ে শ্বশুর আমাকে ও আমার ননদকে গালিগালাজ করে। রাত ৩টার দিকে আমার দরজা বন্ধ করে ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। আমার চিৎকারে আশপাশের মানুষ এসে আমাদের ছেলেমেয়েকে উদ্ধার করে। আমার মেয়েটার পিঠ আগুনে সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে।’

রাস্তি ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার গোলাম মাওলা বলেন, পারিবারিক দ্বন্দ্ব চলে আসছিল শ্বশুর ও পুত্রবধূর মধ্যে। এ ঘটনায় শ্বশুর, শাশুড়ি ও পুত্রবধূকে নিয়ে আমরা শতাধিকবার বসে সালিশ করেছি। শ্বশুরকে বহুবার বলেছি। এক পর্যায়ে আমি এসে ঘর তুলে দেয়ার ব্যবস্থা করি। আগুন দেয়ার ঘটনাটি খুব দুঃখজনক।

মাদারীপুর সদর থানার ওসি মো. কামরুল ইসলাম মিঞা বলেন, আগুনের ঘটনা শুনে আমি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। যার ঘরে আগুন দেয়া হয়েছে সেই লোক বিদেশে থাকে। বিদেশ থেকে ফোনে আমাদের জানিয়েছে এটা পারিবারিক বিষয়। এ ব্যাপারে আমাদের কোনো অভিযোগ নেই।

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ড. নুরুল ইসলাম বলেন, যে শিশুটি আগুনে পুড়ে গেছে তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এখন পর্যন্ত শিশুটি আমাদের নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আছে।

মাদারীপুরে পারিবারিক বিরোধে ঘরে আগুন, শিশু দগ্ধ

 টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি 
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মাদারীপুর সদর উপজেলার রাস্তি ইউনিয়নের পূর্ব হাজরাপুর গ্রামে পারিবারিক কলহের জের ধরে বসতঘরে আগুন দেয়ার অভিযোগ উঠেছে শ্বশুর রাজ্জাক শেখের বিরুদ্ধে। শনিবার শেষ রাতের এই আগুনে শিশু মিম আক্তারের (৬) শরীর ঝলসে গেছে। তাকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে রাজ্জাক শেখ গা-ঢাকা দিয়েছে। পুত্রবধূ সম্পা আক্তার বলেন, ‘অনেক দিন ধরেই আমার শ্বশুর আমাদের বাড়ি থেকে চলে যেতে বলছিলেন। আগুন দিয়ে ঘর পুড়িয়ে ফেলার হুমকিও দিয়ে আসছিলেন। শনিবার বিকালে আমার ননদ মিস্ত্রি নিয়ে আসেন বাড়িতে ঘর তোলার জন্য।

এ নিয়ে শ্বশুর আমাকে ও আমার ননদকে গালিগালাজ করে। রাত ৩টার দিকে আমার দরজা বন্ধ করে ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। আমার চিৎকারে আশপাশের মানুষ এসে আমাদের ছেলেমেয়েকে উদ্ধার করে। আমার মেয়েটার পিঠ আগুনে সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে।’

রাস্তি ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার গোলাম মাওলা বলেন, পারিবারিক দ্বন্দ্ব চলে আসছিল শ্বশুর ও পুত্রবধূর মধ্যে। এ ঘটনায় শ্বশুর, শাশুড়ি ও পুত্রবধূকে নিয়ে আমরা শতাধিকবার বসে সালিশ করেছি। শ্বশুরকে বহুবার বলেছি। এক পর্যায়ে আমি এসে ঘর তুলে দেয়ার ব্যবস্থা করি। আগুন দেয়ার ঘটনাটি খুব দুঃখজনক।

মাদারীপুর সদর থানার ওসি মো. কামরুল ইসলাম মিঞা বলেন, আগুনের ঘটনা শুনে আমি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। যার ঘরে আগুন দেয়া হয়েছে সেই লোক বিদেশে থাকে। বিদেশ থেকে ফোনে আমাদের জানিয়েছে এটা পারিবারিক বিষয়। এ ব্যাপারে আমাদের কোনো অভিযোগ নেই।

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ড. নুরুল ইসলাম বলেন, যে শিশুটি আগুনে পুড়ে গেছে তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এখন পর্যন্ত শিশুটি আমাদের নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আছে।