কুড়িগ্রামে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড
jugantor
কুড়িগ্রামে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড

  কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি  

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে কুড়িগ্রামের রৌমারীতে এক গৃহবধূকে হত্যার দায়ে আবদুস ছাত্তার নামে একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। গৃহবধূর নাম লাইলী বেগম। মঙ্গলবার জেলা ও দায়রা জজ মো. আবদুল মান্নান এ রায় দেন। এ মামলায় অপর ৬ আসামিকে বেকসুর খালাস (অব্যাহতি) দেয়া হয়।

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের বাইমমারী গ্রামে ক্রয় সূত্রে ৫৮ শতক জমি ১৮ বছর ভোগ করে আসছিলেন ওই গ্রামের মৃত বন্দে আলী দেওয়ানীর ছেলে সামছুল হক। ২০১০ সালের ৮ নভেম্বর প্রতিবেশী মৃত বাহেজ হাজীর ছেলে আবদুস ছালাম জমির মালিকানা দাবি করে লোকজন নিয়ে এসে পাকা ধান কেটে নিয়ে যায়। এ সময় শ্যালো মেশিন নিতে গেলে সামছুল হকের স্ত্রী লাইলী বেগম বাধা দেন।

এ সময় আবদুস ছাত্তার শাবল দিয়ে তার মাথায় আঘাত করলে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন লাইলী। তাকে রৌমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার ১০ মিনিট পরেই তার মৃত্যু হয়।

কুড়িগ্রামে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড

 কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি 
৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে কুড়িগ্রামের রৌমারীতে এক গৃহবধূকে হত্যার দায়ে আবদুস ছাত্তার নামে একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। গৃহবধূর নাম লাইলী বেগম। মঙ্গলবার জেলা ও দায়রা জজ মো. আবদুল মান্নান এ রায় দেন। এ মামলায় অপর ৬ আসামিকে বেকসুর খালাস (অব্যাহতি) দেয়া হয়।

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের বাইমমারী গ্রামে ক্রয় সূত্রে ৫৮ শতক জমি ১৮ বছর ভোগ করে আসছিলেন ওই গ্রামের মৃত বন্দে আলী দেওয়ানীর ছেলে সামছুল হক। ২০১০ সালের ৮ নভেম্বর প্রতিবেশী মৃত বাহেজ হাজীর ছেলে আবদুস ছালাম জমির মালিকানা দাবি করে লোকজন নিয়ে এসে পাকা ধান কেটে নিয়ে যায়। এ সময় শ্যালো মেশিন নিতে গেলে সামছুল হকের স্ত্রী লাইলী বেগম বাধা দেন।

এ সময় আবদুস ছাত্তার শাবল দিয়ে তার মাথায় আঘাত করলে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন লাইলী। তাকে রৌমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার ১০ মিনিট পরেই তার মৃত্যু হয়।