বাগেরহাটে দু’পক্ষের সংঘর্ষে গৃহবধূ নিহত
jugantor
বাগেরহাটে দু’পক্ষের সংঘর্ষে গৃহবধূ নিহত

  বাগেরহাট প্রতিনিধি  

০৮ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাগেরহাটের রামপালে লাউ চুরির ঘটনা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে রাধিকা পাল (৪৮) নামে এক গহবধূ নিহত হয়েছেন। রামপাল উপজেলার সগুনা-পিত্তে গ্রামে বুধবার দুপুরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে রাধিকার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। রাধিকা পাল সগুনা-পিত্তে গ্রামের দীলিপ কুমার পালের মেয়ে।

রাধিকার প্রতিবেশী গৃহবধূ লাকি রানী পাল ও তাপসী পাল বলেন, দুপুরের দিকে দীলিপ কুমার পাল ও তার চাচাতো ভাই সুদীপ কুমার পালের মধ্যে লাউ চুরির ঘটনা নিয়ে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে সুদীপ ও তার ঘেরের কর্মচারী রবিন দীলিপের ঘরের সামনে যায়। দুই পক্ষের মারামারি শুরু হয়। একপর্যায়ে রাধিকা রানী পাল অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায় তার স্বামী। দীলিপ পাল জানান, লাউ চুরির মিথ্যা অভিযোগ নিয়ে কথা-কাটাকাটির এক পর্যায়ে সুদীপ পাল আমার স্ত্রীকে লাথি মারে।

এতেই সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অভিযুক্ত সুদীপ পাল বলেন, দীলিপ পাল তার স্ত্রীকে মারধর করে মেরে ফেলে প্রকৃত ঘটনা আড়াল করতে চাইছে। রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সুদীপ্ত বাগচি বলেন, রাধিকার মুখে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে মৃত্যুর কারণ নির্ণয়ের চেষ্টা চলছে। বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায় বলেন, রাধিকার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পর মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাবে।

বাগেরহাটে দু’পক্ষের সংঘর্ষে গৃহবধূ নিহত

 বাগেরহাট প্রতিনিধি 
০৮ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাগেরহাটের রামপালে লাউ চুরির ঘটনা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে রাধিকা পাল (৪৮) নামে এক গহবধূ নিহত হয়েছেন। রামপাল উপজেলার সগুনা-পিত্তে গ্রামে বুধবার দুপুরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে রাধিকার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। রাধিকা পাল সগুনা-পিত্তে গ্রামের দীলিপ কুমার পালের মেয়ে।

রাধিকার প্রতিবেশী গৃহবধূ লাকি রানী পাল ও তাপসী পাল বলেন, দুপুরের দিকে দীলিপ কুমার পাল ও তার চাচাতো ভাই সুদীপ কুমার পালের মধ্যে লাউ চুরির ঘটনা নিয়ে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে সুদীপ ও তার ঘেরের কর্মচারী রবিন দীলিপের ঘরের সামনে যায়। দুই পক্ষের মারামারি শুরু হয়। একপর্যায়ে রাধিকা রানী পাল অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায় তার স্বামী। দীলিপ পাল জানান, লাউ চুরির মিথ্যা অভিযোগ নিয়ে কথা-কাটাকাটির এক পর্যায়ে সুদীপ পাল আমার স্ত্রীকে লাথি মারে।

এতেই সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অভিযুক্ত সুদীপ পাল বলেন, দীলিপ পাল তার স্ত্রীকে মারধর করে মেরে ফেলে প্রকৃত ঘটনা আড়াল করতে চাইছে। রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সুদীপ্ত বাগচি বলেন, রাধিকার মুখে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে মৃত্যুর কারণ নির্ণয়ের চেষ্টা চলছে। বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায় বলেন, রাধিকার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পর মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাবে।