ঠাকুরপুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত
jugantor
ঠাকুরপুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

  দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি  

১৯ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার ঠাকুরপুর সীমান্তে রোববার ভোরে ওমেদুল ইসলাম নামে এক বাংলাদেশি যুবককে গুলি করে হত্যা করেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বিএসএফ। তিনি ঠাকুরপুরের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

রোববার ভোরে ওমেদুলসহ চার-পাঁচ গরু ব্যবসায়ী সীমান্তে যান গরু আনতে। ভোর ৪টার দিকে তারা দামুড়হুদা উপজেলার ঠাকুরপুর সীমান্তের ৮৮/৮৯ মেইন পিলারের কাছে জিরো পয়েন্টের কাছাকাছি গেলে ভারতের নদীয়া জেলার রেঙ্গেরপোতা ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা তাদের ধাওয়া করে। এ সময় অন্য সহযোগীরা পালিয়ে এলেও বিএসএফের গুলিতে মারা যান ওমেদুল। হত্যার পর লাশ ভারতের অভ্যন্তরে ফেলে রাখে।

রোববার বেলা ১১টার দিকে তার লাশ ঘটনাস্থল থেকে বিএসএফ নিয়ে যায়। চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবির পরিচালক মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ওমিদুলকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় প্রতিবাদ ও তার লাশ ফেরত চেয়ে বিএসএফকে পত্র পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

ঠাকুরপুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

 দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি 
১৯ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার ঠাকুরপুর সীমান্তে রোববার ভোরে ওমেদুল ইসলাম নামে এক বাংলাদেশি যুবককে গুলি করে হত্যা করেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বিএসএফ। তিনি ঠাকুরপুরের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

রোববার ভোরে ওমেদুলসহ চার-পাঁচ গরু ব্যবসায়ী সীমান্তে যান গরু আনতে। ভোর ৪টার দিকে তারা দামুড়হুদা উপজেলার ঠাকুরপুর সীমান্তের ৮৮/৮৯ মেইন পিলারের কাছে জিরো পয়েন্টের কাছাকাছি গেলে ভারতের নদীয়া জেলার রেঙ্গেরপোতা ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা তাদের ধাওয়া করে। এ সময় অন্য সহযোগীরা পালিয়ে এলেও বিএসএফের গুলিতে মারা যান ওমেদুল। হত্যার পর লাশ ভারতের অভ্যন্তরে ফেলে রাখে।

রোববার বেলা ১১টার দিকে তার লাশ ঘটনাস্থল থেকে বিএসএফ নিয়ে যায়। চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবির পরিচালক মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ওমিদুলকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় প্রতিবাদ ও তার লাশ ফেরত চেয়ে বিএসএফকে পত্র পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।