গ্রিসে রহস্যজনক মৃত্যু প্রবাসীর
jugantor
গ্রিসে রহস্যজনক মৃত্যু প্রবাসীর

  নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৪ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গ্রিসে নবীগঞ্জের নাজমুল হোসেন নামে এক প্রবাসীর মৃত্যু নিয়ে নানা রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। দেশটির রাজধানী এথেন্সের আত্তিকা এলাকায় বৃহস্পতিবার বিকালে তাকে হত্যা করা হয়। তিনি উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের লালাপুর গ্রামের মৃত আবুল কালামের পুত্র। তার পরিবারের দাবি টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যে তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। লাশ দেশে আনতে সরকারের সহযোগিতাও চেয়েছেন নিহতদের পরিবার।

জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার লালাপুর গ্রামের আবুল কালামের পুত্র নাজমুল হোসেন পরিবারে সচ্ছলতা ফেরাতে দীর্ঘদিন ধরে গ্রিসে বসবাস করছিলেন। সেখানে একটি চায়না কোম্পানিতে শ্রমিকের চাকরি করতেন। প্রায় ৮ বছর ধরে গ্রিসে বসবাস করছেন। নাজমুলের পরিবারের সদস্যরা জানান, অনেক দিন ধরে কোনো যোগাযোগ করছিল না নাজমুল। পরে তারা জানতে পারেন ১২ সেপ্টেম্বর পুলিশ তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার বিকালে সে মারা যায়।

সম্প্রতি তারা জানতে পারেন, নাজমুলকে রাতে ঘুমের মধ্যে মফিজুর রহমান নামের এক ব্যক্তি কোনো কিছু খাইয়ে অজ্ঞান করে মৃত ভেবে দূরে কোথাও ফেলে আসে। পরে তাকে সেখানের পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি করে। এমন একটি ভিডিওবার্তাও পাওয়া গেছে। নিহতের মা নাজমা বেগম জানান, আমার ছেলের স্বপ্ন ছিল সে দেশে এসে বিয়ে করবে। এজন্য আমরা পাত্রীও খুঁজছিলাম। কিন্তু তার স্বপ্ন পূরণ হতে দিল না ঘাতক। এসব বলেই বারবার মূর্ছা যান তিনি।

গ্রিসে রহস্যজনক মৃত্যু প্রবাসীর

 নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৪ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গ্রিসে নবীগঞ্জের নাজমুল হোসেন নামে এক প্রবাসীর মৃত্যু নিয়ে নানা রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। দেশটির রাজধানী এথেন্সের আত্তিকা এলাকায় বৃহস্পতিবার বিকালে তাকে হত্যা করা হয়। তিনি উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের লালাপুর গ্রামের মৃত আবুল কালামের পুত্র। তার পরিবারের দাবি টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যে তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। লাশ দেশে আনতে সরকারের সহযোগিতাও চেয়েছেন নিহতদের পরিবার।

জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার লালাপুর গ্রামের আবুল কালামের পুত্র নাজমুল হোসেন পরিবারে সচ্ছলতা ফেরাতে দীর্ঘদিন ধরে গ্রিসে বসবাস করছিলেন। সেখানে একটি চায়না কোম্পানিতে শ্রমিকের চাকরি করতেন। প্রায় ৮ বছর ধরে গ্রিসে বসবাস করছেন। নাজমুলের পরিবারের সদস্যরা জানান, অনেক দিন ধরে কোনো যোগাযোগ করছিল না নাজমুল। পরে তারা জানতে পারেন ১২ সেপ্টেম্বর পুলিশ তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার বিকালে সে মারা যায়।

সম্প্রতি তারা জানতে পারেন, নাজমুলকে রাতে ঘুমের মধ্যে মফিজুর রহমান নামের এক ব্যক্তি কোনো কিছু খাইয়ে অজ্ঞান করে মৃত ভেবে দূরে কোথাও ফেলে আসে। পরে তাকে সেখানের পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি করে। এমন একটি ভিডিওবার্তাও পাওয়া গেছে। নিহতের মা নাজমা বেগম জানান, আমার ছেলের স্বপ্ন ছিল সে দেশে এসে বিয়ে করবে। এজন্য আমরা পাত্রীও খুঁজছিলাম। কিন্তু তার স্বপ্ন পূরণ হতে দিল না ঘাতক। এসব বলেই বারবার মূর্ছা যান তিনি।