মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আনোয়ার খান জুনো আর নেই
jugantor
মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আনোয়ার খান জুনো আর নেই

  যুগান্তর রিপোর্ট  

৩০ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কমিউনিস্ট নেতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আনোয়ার খান জুনো (৭৫) আর নেই। রাজধানীর গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা ২৫ মিনিটে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ... রাজিউন)।

হায়দার আনোয়ার খান জুনোর মেয়ে অনন্যা লাবণী জানান, দেড় মাস ধরে অসুস্থ ছিলেন তিনি। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হলে ১৫ সেপ্টেম্বর তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুইবার জুনোর হার্ট অ্যাটাক হয়। পরে তিনি ডিপ কোমায় চলে যান। এরপর ২২ অক্টোবর তাকে স্কয়ার হাসপাতাল থেকে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

জানা গেছে, স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তির তিন থেকে চারদিন পর জুনোর করোনা শনাক্ত হয়। এরপর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। এর মধ্যেই ২২ অক্টোবর তাকে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থাতেই লাইফ সাপোর্ট খুলে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। ১৯৪৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর কলকাতায় হায়দার আনোয়ার খান জুনোর জন্ম। তিনি বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য হায়দার আকবর খান রনোর ছোট ভাই।

হায়দার আনোয়ার খান জুনোর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন ও সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা। এক শোক বার্তায় তারা বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ১১ দফার অন্যতম রচয়িতা উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের সংগঠক, বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি, কমিউনিস্ট বিপ্লবীদের সমন্বয় কমিটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও মুক্তিযুদ্ধে শিবপুরের কমান্ডার ছিলেন হায়দার আনোয়ার খান জুনো। রাজনীতি পরবর্তীকালে তিনি সাংস্কৃতিক আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন এবং সৃজনের সভাপতি ছিলেন।

এ ছাড়াও তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু ও সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা ও মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈসা, জাতীয় কৃষক-শ্রমিক মুক্তি আন্দোলনের আহ্বায়ক এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া ও সমন্বয়ক কৃষক মহসিন ভুইয়া, জাতীয় নারী আন্দোলনের যুগ্ম সমন্বয়কারী মতিয়ারা চৌধুরী ও মির্জা শেলী এবং জাতীয় যুব আন্দোলনের সমন্বয়কারী শামিম আহমেদ।

মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আনোয়ার খান জুনো আর নেই

 যুগান্তর রিপোর্ট 
৩০ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কমিউনিস্ট নেতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আনোয়ার খান জুনো (৭৫) আর নেই। রাজধানীর গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা ২৫ মিনিটে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ... রাজিউন)।

হায়দার আনোয়ার খান জুনোর মেয়ে অনন্যা লাবণী জানান, দেড় মাস ধরে অসুস্থ ছিলেন তিনি। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হলে ১৫ সেপ্টেম্বর তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুইবার জুনোর হার্ট অ্যাটাক হয়। পরে তিনি ডিপ কোমায় চলে যান। এরপর ২২ অক্টোবর তাকে স্কয়ার হাসপাতাল থেকে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

জানা গেছে, স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তির তিন থেকে চারদিন পর জুনোর করোনা শনাক্ত হয়। এরপর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। এর মধ্যেই ২২ অক্টোবর তাকে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থাতেই লাইফ সাপোর্ট খুলে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। ১৯৪৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর কলকাতায় হায়দার আনোয়ার খান জুনোর জন্ম। তিনি বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য হায়দার আকবর খান রনোর ছোট ভাই।

হায়দার আনোয়ার খান জুনোর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন ও সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা। এক শোক বার্তায় তারা বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ১১ দফার অন্যতম রচয়িতা উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের সংগঠক, বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি, কমিউনিস্ট বিপ্লবীদের সমন্বয় কমিটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও মুক্তিযুদ্ধে শিবপুরের কমান্ডার ছিলেন হায়দার আনোয়ার খান জুনো। রাজনীতি পরবর্তীকালে তিনি সাংস্কৃতিক আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন এবং সৃজনের সভাপতি ছিলেন।

এ ছাড়াও তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু ও সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা ও মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈসা, জাতীয় কৃষক-শ্রমিক মুক্তি আন্দোলনের আহ্বায়ক এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া ও সমন্বয়ক কৃষক মহসিন ভুইয়া, জাতীয় নারী আন্দোলনের যুগ্ম সমন্বয়কারী মতিয়ারা চৌধুরী ও মির্জা শেলী এবং জাতীয় যুব আন্দোলনের সমন্বয়কারী শামিম আহমেদ।