বঙ্গবন্ধু ইতিহাসের অমর কীর্তি, খুনিরা ঘৃণিত
jugantor
পাবনায় বঙ্গবন্ধু ১০০ জন্মোৎসব শুরু
বঙ্গবন্ধু ইতিহাসের অমর কীর্তি, খুনিরা ঘৃণিত
-নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

  পাবনা ও ঈশ্বরদী প্রতিনিধি  

২৮ নভেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজনীতিক, কবি সাহিত্যিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে শুক্রবার থেকে পাবনায় দু’দিনব্যাপী বঙ্গবন্ধু ১০০ জন্মোৎসব শুরু হয়েছে। জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার নিভৃত চরগড়গড়িতে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ওসাকা কার্যালয় চত্বরে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে স্থানীয় মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি পাঠাগার ও চর নিকেতন কাব্য মঞ্চ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি। ওসাকার নির্বাহী পরিচালক কবি মজিদ মাহমুদের সভাপতিত্বে জাতিসত্তার কবি মুহম্মদ নুরুল হুদা এ অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন করেন।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা মহান ভাষা আন্দোলনসহ স্বাধীকার আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়ে স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। তাই যতদূর বাংলা ভাষা, ততোদূর বাংলাদেশ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অনন্তকাল ইতিহাসের অমর কীর্তি। অন্যদিকে খুনি জিয়া-মোস্তাকসহ যেসব কুলাঙ্গারেরা জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করেছে ইতিহাসে তারা অনন্তকালই নিন্দিত ও ঘৃণিত।

জাতির পিতার হত্যাকারীদের ফাঁসি এবং এদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ে বিরোধিতাকারী রাজাকার আলবদর আলশামসদের বিচার করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় দায় মুক্তি দিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের নাম স্বর্ণাক্ষরে নিয়ে গেছেন বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা, আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সবাইকে উদ্বুদ্ধ হতে হবে।

বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আখতারুজ্জামান আখতারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথির বক্তব্য দেন পাবনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল রহিম লাল, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জাহিদ নেওয়াজ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবির। স্বাগত বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু জন্মশতবর্ষ আন্তর্জাতিক পর্ষদের প্রধান সমন্বয়ক কবি আসলাম সানী, নজরুল ইন্সটিটিউটের সাবেক নির্বাহী পরিচালক জাতিসত্তার কবি মুহম্মদ নুরুল হুদা। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নায়েব আলী বিশ্বাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা চান্না মণ্ডল, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালেক বিশ্বাস, পাবনা সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হাসান শাহীন, ঈশ্বরদী পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু, আটঘরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান তানভীর ইসলাম, পাবনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সৈকত আফরোজ আসাদ, ঈশ্বরদী প্রেস ক্লাবের সভাপতি স্বপন কুমার কুণ্ডু, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আলী মর্তুজা বিশ্বাস সনি, যুগ্ম আহ্বায়ক শিবলী সাদিক প্রমুখ। এর আগে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয় এবং অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতীয় সঙ্গীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, শান্তির প্রতীক পায়রা অবমুক্ত করে অনুষ্ঠানের সুচনা করা হয়। পরে বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় সব গণতান্ত্রিক আন্দোলনে জীবন উৎসর্গকারীদের স্মরণে এক মিনিট দাঁড়িয়ে শ্রদ্ধা জানানো শেষে অনুষ্ঠান ঘিরে প্রকাশনা স্মারক গ্রন্থ শুভনীড় মুজিববর্ষে উন্নয়ন স্পর্শে’র মোড়ক উন্মোচন করা হয়। দু’দিন অন্য অনুষ্ঠানমালার মধ্যে রয়েছে শ্রদ্ধার্ঘ্য, আলোচনা সভা, সেমিনার, ছড়া ও কবিতা আবৃত্তি এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

পাবনায় বঙ্গবন্ধু ১০০ জন্মোৎসব শুরু

বঙ্গবন্ধু ইতিহাসের অমর কীর্তি, খুনিরা ঘৃণিত

-নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী
 পাবনা ও ঈশ্বরদী প্রতিনিধি 
২৮ নভেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজনীতিক, কবি সাহিত্যিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে শুক্রবার থেকে পাবনায় দু’দিনব্যাপী বঙ্গবন্ধু ১০০ জন্মোৎসব শুরু হয়েছে। জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার নিভৃত চরগড়গড়িতে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ওসাকা কার্যালয় চত্বরে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে স্থানীয় মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি পাঠাগার ও চর নিকেতন কাব্য মঞ্চ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি। ওসাকার নির্বাহী পরিচালক কবি মজিদ মাহমুদের সভাপতিত্বে জাতিসত্তার কবি মুহম্মদ নুরুল হুদা এ অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন করেন।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা মহান ভাষা আন্দোলনসহ স্বাধীকার আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়ে স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। তাই যতদূর বাংলা ভাষা, ততোদূর বাংলাদেশ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অনন্তকাল ইতিহাসের অমর কীর্তি। অন্যদিকে খুনি জিয়া-মোস্তাকসহ যেসব কুলাঙ্গারেরা জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করেছে ইতিহাসে তারা অনন্তকালই নিন্দিত ও ঘৃণিত।

জাতির পিতার হত্যাকারীদের ফাঁসি এবং এদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ে বিরোধিতাকারী রাজাকার আলবদর আলশামসদের বিচার করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় দায় মুক্তি দিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের নাম স্বর্ণাক্ষরে নিয়ে গেছেন বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা, আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সবাইকে উদ্বুদ্ধ হতে হবে।

বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আখতারুজ্জামান আখতারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথির বক্তব্য দেন পাবনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল রহিম লাল, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জাহিদ নেওয়াজ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবির। স্বাগত বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু জন্মশতবর্ষ আন্তর্জাতিক পর্ষদের প্রধান সমন্বয়ক কবি আসলাম সানী, নজরুল ইন্সটিটিউটের সাবেক নির্বাহী পরিচালক জাতিসত্তার কবি মুহম্মদ নুরুল হুদা। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নায়েব আলী বিশ্বাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা চান্না মণ্ডল, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালেক বিশ্বাস, পাবনা সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হাসান শাহীন, ঈশ্বরদী পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু, আটঘরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান তানভীর ইসলাম, পাবনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সৈকত আফরোজ আসাদ, ঈশ্বরদী প্রেস ক্লাবের সভাপতি স্বপন কুমার কুণ্ডু, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আলী মর্তুজা বিশ্বাস সনি, যুগ্ম আহ্বায়ক শিবলী সাদিক প্রমুখ। এর আগে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয় এবং অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতীয় সঙ্গীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, শান্তির প্রতীক পায়রা অবমুক্ত করে অনুষ্ঠানের সুচনা করা হয়। পরে বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় সব গণতান্ত্রিক আন্দোলনে জীবন উৎসর্গকারীদের স্মরণে এক মিনিট দাঁড়িয়ে শ্রদ্ধা জানানো শেষে অনুষ্ঠান ঘিরে প্রকাশনা স্মারক গ্রন্থ শুভনীড় মুজিববর্ষে উন্নয়ন স্পর্শে’র মোড়ক উন্মোচন করা হয়। দু’দিন অন্য অনুষ্ঠানমালার মধ্যে রয়েছে শ্রদ্ধার্ঘ্য, আলোচনা সভা, সেমিনার, ছড়া ও কবিতা আবৃত্তি এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।