প্রকৌশলীকে মারধর বদির বাধায় নির্মাণ কাজ বন্ধ এক সপ্তাহ
jugantor
টেকনাফ প্রেস ক্লাব ভবন
প্রকৌশলীকে মারধর বদির বাধায় নির্মাণ কাজ বন্ধ এক সপ্তাহ

  টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি  

৩০ নভেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

উখিয়া-টেকনাফ আসনের সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদির বাধায় এক সপ্তাহ ধরে বন্ধ হয়ে আছে টেকনাফ প্রেস ক্লাব ভবন নির্মাণের কাজ। এ নিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের মাঝে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। পাশাপাশি আতঙ্ক বিরাজ করছে অনেকের মাঝে। ২৩ নভেম্বর হঠাৎ নির্মাণাধীন টেকনাফ প্রেস ক্লাব ভবনে চড়াও হন বদি। মারধর করেন নির্মাণ কাজে নিয়োজিত প্রকৌশলীকে। পরে ক্লাবের বাইরে টানানো ব্যানার ছিঁড়ে ফেলেন এবং নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ভবনটি ভেঙে ফেলতেও নির্দেশ দেন তার চাচা পৌরসভার মেয়রকে। বদির স্ত্রী শাহীন আক্তার এমপি ও ভাই কাউন্সিলর মুজিবুর রহমান এ সময় সঙ্গে ছিলেন। এদিকে প্রকৌশলীকে মারধর ও প্রেস ক্লাবে হামলার বিষয়টি অস্বীকার করে বদি বলেন, পৌরসভার একটি নির্মাণ কাজ উদ্বোধন শেষে ফেরার পথে প্রেস ক্লাব ভবন নির্মাণ হচ্ছে দেখে তিনি সেখানে নামেন। ভবন নির্মাণের কোনো অনুমতি আছে কিনা জানতে চান। অপরদিকে প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছৈয়দ হোসাইন রোববার জানান, ওইদিন বদি দুই দফা চড়াও হন প্রেস ক্লাবে। সকাল ১০টায় নির্মাণ কাজের সহযোগী এনজিও ফোরামের প্রকৌশলী নাঈমকে মারধর করেন। ঘণ্টাখানেক পর আবারও ক্লাবে গিয়ে নির্মাণ কাজের ব্যানার ছিঁড়ে ফেলেন। ছৈয়দ হোসাইন জানান, উপজেলা প্রশাসনের সভার সিদ্ধান্তক্রমে অনুমতি নিয়ে দীর্ঘ দুই যুগ খাস জমির ওপর পরিত্যক্ত ভবনটিই ছিল সাংবাদিকদের ঠিকানা। সর্বশেষ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অনুমতি নিয়ে দাতা সংস্থার সহায়তায় ভবন নির্মাণ করা হচ্ছিল। ভবন নির্মাণে বদির বাধা দেয়া বেআইনী বলে দাবি করে সরকারের সংশ্লিষ্টদের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

টেকনাফ প্রেস ক্লাব ভবন

প্রকৌশলীকে মারধর বদির বাধায় নির্মাণ কাজ বন্ধ এক সপ্তাহ

 টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি 
৩০ নভেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

উখিয়া-টেকনাফ আসনের সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদির বাধায় এক সপ্তাহ ধরে বন্ধ হয়ে আছে টেকনাফ প্রেস ক্লাব ভবন নির্মাণের কাজ। এ নিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের মাঝে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। পাশাপাশি আতঙ্ক বিরাজ করছে অনেকের মাঝে। ২৩ নভেম্বর হঠাৎ নির্মাণাধীন টেকনাফ প্রেস ক্লাব ভবনে চড়াও হন বদি। মারধর করেন নির্মাণ কাজে নিয়োজিত প্রকৌশলীকে। পরে ক্লাবের বাইরে টানানো ব্যানার ছিঁড়ে ফেলেন এবং নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ভবনটি ভেঙে ফেলতেও নির্দেশ দেন তার চাচা পৌরসভার মেয়রকে। বদির স্ত্রী শাহীন আক্তার এমপি ও ভাই কাউন্সিলর মুজিবুর রহমান এ সময় সঙ্গে ছিলেন। এদিকে প্রকৌশলীকে মারধর ও প্রেস ক্লাবে হামলার বিষয়টি অস্বীকার করে বদি বলেন, পৌরসভার একটি নির্মাণ কাজ উদ্বোধন শেষে ফেরার পথে প্রেস ক্লাব ভবন নির্মাণ হচ্ছে দেখে তিনি সেখানে নামেন। ভবন নির্মাণের কোনো অনুমতি আছে কিনা জানতে চান। অপরদিকে প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছৈয়দ হোসাইন রোববার জানান, ওইদিন বদি দুই দফা চড়াও হন প্রেস ক্লাবে। সকাল ১০টায় নির্মাণ কাজের সহযোগী এনজিও ফোরামের প্রকৌশলী নাঈমকে মারধর করেন। ঘণ্টাখানেক পর আবারও ক্লাবে গিয়ে নির্মাণ কাজের ব্যানার ছিঁড়ে ফেলেন। ছৈয়দ হোসাইন জানান, উপজেলা প্রশাসনের সভার সিদ্ধান্তক্রমে অনুমতি নিয়ে দীর্ঘ দুই যুগ খাস জমির ওপর পরিত্যক্ত ভবনটিই ছিল সাংবাদিকদের ঠিকানা। সর্বশেষ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অনুমতি নিয়ে দাতা সংস্থার সহায়তায় ভবন নির্মাণ করা হচ্ছিল। ভবন নির্মাণে বদির বাধা দেয়া বেআইনী বলে দাবি করে সরকারের সংশ্লিষ্টদের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।